মঠবাড়িয়া উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দরিদ্রদের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন মঠবাড়িয়া উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দরিদ্রদের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন - ajkerparibartan.com
মঠবাড়িয়া উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দরিদ্রদের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

3:05 pm , October 13, 2020

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ মঠবাড়িয়া উপজেলার চেয়ারম্যন মো. রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ ও উপজেলা থানা নির্বাহী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে করোনাকালীন সময়ে বিভিন্ন ইউনিয়নের দরিদ্র জনগোষ্ঠির জন্য জীবানুনাশক-ব্লিচিং পাউডার, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, হ্যান্ড গ্লোবস, মাক্স, এন্টিসেপটিক সাবান সহ বিভিন্ন প্রতিরোধমূলক দ্রব্য ক্রয়ের জন্য দু দফায় ৫ লক্ষ ৮৯ হাজার টাকা বরাদ্ধ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। গতকাল মঙ্গলবার এ অভিযোগ নিয়ে শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাচনের তার কাছে পরাজিত আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হোসাইন মোশারেফ সাকু ওই সংবাদ সম্মেলন করেন। সেখানে তিনি উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ রিয়াজ উদ্দিনের বিরুদ্ধে কোন কমিটি গঠন ও বোর্ড রেজুলেশন ছাড়াই ওই বরাদ্ধ টাকা খরচ না করে আত্মসাত করার অভিযোগ এনেছেন। এছাড়াও তার দূর্ণীতি, সন্ত্রাসী ও ক্যাডার বাহিনীর অপ কর্মের কথা তুলে ধরেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলার আমড়া গাছিয়া ইউনিয়নের যুবলীগ সভাপতি মোঃ রাসেল, টিকিকাঠি ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি ইয়াসিন হোসেন ও তাতী লীগ সভাপতি মোঃ আঃ গফফার। সংবাদ সম্মেলনে হোসাইন মোশারেফ সাকু বলেন, করোনা ভাইরাসের চরম ক্রান্তিলগ্নে গত ২৫ই মার্চ উপজেলা পরিষদে ৪ লক্ষ ৮৯ হাজার সহ মোট ৫ লক্ষ ৮৯ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয় সরকার। বরাদ্দের সাথে সাথে মন্ত্রালয় ১৫ জুলাইয়ের মধে বরাদ্ধ ব্যয়ের বিবরনী মন্ত্রনালয়ে পাঠানোর নিদের্শনা ছিল। উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা যৌথভাবে ব্যয় করার নিদের্শনা ছিল। উপজেলা চেয়ারম্যান রিয়াজ উদ্দিন গত ৮ জুন উপজেলা মাসিক সভায় দায়সারা আলোচনার মাধ্যমে ৪ লক্ষ ৮৯ হাজার টাকার কথা উত্থাপন করেন। কিন্তু অন্য খাতের জন্য বরাদ্দ আসা ১ লক্ষ টাকার জানাননি। একই সভায় বরাদ্ধ কিভাবে খরচ হয়েছে সেই বিষয়ে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ব্যয়ে ৩টি কম্পিউটার ক্রয় করা হয় বলে জানান। এতে সকল সদস্য বিস্ময় প্রকাশ করেন। অপরদিকে চেয়ারম্যানের সন্ত্রাসী ক্যাডার বাহিনী ভয়ে উপজেলা থানা নির্বাহী কর্মকর্তা সহ সকলেই আতংকে কাজ করেন। যার কারনে বাকি ১ লক্ষ টাকা সহ এবং অপর অংশের এত টাকায় কোথায় কিভাবে খরচ হয়েছে তার হিসাব কেউ জানতে চায়নি। তাই তিনি এই করোনা কালীন সময়ের দরিদ্র মানুষের জন্য দেয়া সরকারী টাকা আত্মসাত করার বিষয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রালয় সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে সঠিকভাবে তদন্ত করার জন্য আহবান জানান।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT