মসজিদে সাড়ে ৫ কোটি টাকা দিলেন এক ব্যক্তি! মসজিদে সাড়ে ৫ কোটি টাকা দিলেন এক ব্যক্তি! - ajkerparibartan.com
মসজিদে সাড়ে ৫ কোটি টাকা দিলেন এক ব্যক্তি!

3:47 pm , May 3, 2019

ডেস্ক ॥ পিরোজপুর শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত ১৩৭ বছরের ঐতিহ্যবাহী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ভবনটি পুনঃনির্মাণ করা হয়েছে। ৫ কোটি ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে আধুনিক স্থাপত্যশৈলী ও ইসলামিক দৃষ্টি নন্দিত পাঁচতলা এ মসজিদ ভবনটি নির্মাণ করেছেন মাল্টি ফ্যাবস লিমিটেডের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন ফারুকী (সিআইপি)। শুক্রবার বেলা ১১টায় মুসলি¬দের নামাজ আদায় করার জন্য এ মসজিদ ভবনটি উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ সরকারের গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শ ম রেজাউল করিম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাত হোসেন, ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মোল¬া আজাদ হোসেন, পৌর মেয়র হাবিবুর রহমান মালেক, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মজিবুর রহমান খালেকসহ স্থানীয় মুসলি¬বৃন্দ। পরে মন্ত্রী মুসলি¬দের সঙ্গে জুমার নামাজ আদায় করেন। মসজিদ ভবন নির্মাণের প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল মজিদ জানান, নবনির্মিত এ পাঁচতলা ভবনের ভেতর ও বাইরের দেয়ালসহ মেঝে, অজুখানা ও সিঁড়িতে লাগানো হয়েছে মারবেল পাথর। প্রধান ফটকে লাগানো হয়েছে ৫ লাখ ৬০ হাজার টাকা দামের বার্মাটিক ডোর। লাগানো হয়েছে চোখ জুড়ানো ঝাড়বাতি, ১৪টি এসি ও নিরাপত্তার জন্য সিসি ক্যামেরা। এর আগে ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের পুরাতন শতবর্ষী ভবনটি ভেঙে ফেলা হয় এবং ২২ ডিসেম্বর নতুন এ ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন ওই সময়ের জেলা প্রশাসক মো. খায়রুল আলম শেখ। মসজিদের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস : ১৮৮২ খ্রিস্টাব্দে ভারত বর্ষের উত্তর প্রদেশের জৈনপুর জেলা সদরের জনৈক হাফেজ মো. সুলায়মান ইসলাম ধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্যে পিরোজপুরে আসেন। এসময় তিনি নিজস্ব অর্থে শহরের ২০ শতাংশ জমি ক্রয় করে গোলপাতার ছাউনী দিয়ে একটি কাঠের মসজিদ ঘর প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠার পর প্রায় ৪০ বছর ধরে মোতাওয়াল¬ী, মুয়াজ্জিন ও ইমাম হিসেবে যাবতীয় দায়িত্ব পালন করেন তিনি। এক পর্যায়ে তিনি বার্ধক্যে পৌঁছলে ১৯১৮ সালে তার কনিষ্ঠ সন্তান হাফেজ মো. নোমানকে জৈনপুর থেকে পিরোজপুর নিয়ে আসেন এবং এ মসজিদের সমস্ত দায়িত্ব তার ওপর অর্পণ করে জৈনপুর প্রত্যাগমন করেন। হাফেজ মো. নোমান ১৯৮৪ সালের ৩ জানুয়ারি ৭৫ বছর বয়সে পিরোজপুরে নিজ বাস ভবনে ইন্তেকাল করেন। তিনি বেঁচে থাকতেই ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের আপ্রাণ চেষ্টা ও আর্থিক সহায়তায় গোলপাতার মসজিদকে পর্যাক্রমে দালানে রূপান্তরিত করেন। পরবর্তীতে এ মসজিদটি তিনতলা বিশিষ্ট প্রধান জামে মসজিদ হিসেবে পরিচিতি লাভ করে।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT