ক্যান্সার আক্রান্ত সহধর্মিণীর সেবামগ্ন শিক্ষক নেতা আশিষ দাস গুপ্তের মানবেতর জীবন ক্যান্সার আক্রান্ত সহধর্মিণীর সেবামগ্ন শিক্ষক নেতা আশিষ দাস গুপ্তের মানবেতর জীবন - ajkerparibartan.com
ক্যান্সার আক্রান্ত সহধর্মিণীর সেবামগ্ন শিক্ষক নেতা আশিষ দাস গুপ্তের মানবেতর জীবন

3:31 pm , January 11, 2023

বিশেষ প্রতিবেদক  ॥ রাজধানী ঢাকায় অসুস্থ শরীরে যেমন কষ্টে আছেন কবি হেলাল হাফিজ। ঠিক তেমনি তার ফেরিওয়ালা কবিতাকে আঁকড়ে এই বরিশালের গৌরনদী উপজেলার ঐতিহাসিক গৈলা গ্রামে কষ্টসুখে পরষ্পরকে জড়িয়ে জীবনযাপন করছেন দুজন মানুষ গড়ার কারিগর। জ্ঞান বিতরণই যাদের আজন্ম পেশা। তাদের একজন অবসর নিয়েছেন সেই ২০১২ সালে। অন্যজন ২০১৮ তে শিক্ষা জীবন থেকে অবসর নিয়ে শারীরিক অসুস্থতার কারণে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছেন শহরমুখী সব কর্মকান্ড থেকে। অবসর জীবনের শুরু থেকেই শহর ছেড়ে গ্রামে নিজ বাড়ী গৈলার দাস বাড়িতে স্থায়ী বসবাস শুরু হয় তাদের। এখানেও থেমে নেই তারা। দাস বাড়ির রান্নাঘর ও বৈঠকখানা হয়ে ওঠে শিশুদের গান নিত্য ও প্রাথমিক শিক্ষার পাঠশালা। বাংলাদেশে  করোনাকালীন সংকট শুরু হলে নিজ ঘরে গড়ে তোলেন করোনাকালীন শিক্ষা গ্রহণের অভয়ারণ্য। ২০১৯ ডিসেম্বর থেকে থেকে ২০২২ ডিসেম্বর পুরো সময়টা এই পাঠশালায় শিশুদের বিনামূল্যে শিক্ষা দান করে সময় কেটেছে তাদের। অবশ্য এর আগে সেই ১৯৮০ সালে যখন শিক্ষকতা পেশা বেছে নেন তখন থেকেই নি¤œ আয়ের মানুষের সন্তানদের খুঁজে এনে নিজ ঘরে বসিয়ে শিক্ষা দান করাটা তাদের নেশা হয়ে গেছে বলে জানালেন সাবেক শিক্ষক সমিতির সভাপতি আশিষ দাস গুপ্ত। এখন এই অবসর জীবনে এসে তাদের উপার্জনের পথ বলতে ছেলে-মেয়ের পাঠানো টাকা। সঞ্চয় বলে কিছুই নেই তাদের তার উপর স্ত্রীর ক্যান্সার। হাঁটাচলা করতে পারেন না পরস্পর পরস্পরকে আঁকড়ে বেঁচে থাকার শেষ লড়াই চলছে তাদের এই অপরাহ্ন বেলায়।
সহধর্মিণী নমিতা দাস গুপ্ত নিজেও একজন শিক্ষক। ব্রেস্ট ক্যান্সার থেকে এখন বোন ক্যান্সারে আক্রান্ত তিনি। প্রতিমাসে পনের থেকে বিশ হাজার টাকার ঔষধ প্রয়োজন তার। তিনি বলেন, একটা সময় গেছে যখন স্বামীর উপার্জন পুরোটাই ব্যয় হয়েছে মানুষের সেবায়। আর আমরটা সংসারে। এখন পরিস্থিতি বদলে গেছে। এখন হাঁটাচলা করতে পারিনা আর। ও ধরে এনে বিছানায় শুইয়ে দেয়, আমি চাইলে এই বারান্দায় চেয়ার বসিয়ে দেয়। ও নিজেই এখন রান্না করে খেতে দেয় আমাকে।
গৌরনদী উপজেলার গৈলা গ্রাম তথা এই বৃহত্তর বরিশালে দাস বাড়ির আশীষ কুমার গুপ্ত ও নমিতা দাস কে চেনেন না এমন মানুষ খুবই কম। বরিশাল শহর থেকেই শিক্ষক আশীষ কুমার দাসের সুনাম শোনা যায় পাশাপাশি উঠে আসে নমিতা দাসের নাম। এই শহরে বগুড়ার রোডে শ্রীচৈতন্য গোবিন্দমোহন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন তারা দুজন। উদারমনা রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবক প্রয়াত শিক্ষক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর গফুর এর সহকর্মী হবার গর্বিত ইতিহাস এই দুজনেই শিক্ষকতা পেশা থেকে অবসর নিয়ে আজ মানবিক জীবনযাপন করছেন গৈলা গ্রামে। অর্থাভাবে সুচিকিৎসার দুয়ারও বন্ধ হবার পথে। কারণ ভাইদের সাহায্য নিয়ে আর কতদিন চলবে তারা? তাদের জন্য কি সরকারের কোনো দায়িত্ব নেই? এ প্রশ্ন তার প্রতি সম্মান ও ভালোবাসা রাখা গৈলা গ্রামের প্রতিটি মানুষের।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT