চারজনকে ধরে তিনজনকে ছেড়ে দিলো পুলিশ ! চারজনকে ধরে তিনজনকে ছেড়ে দিলো পুলিশ ! - ajkerparibartan.com
চারজনকে ধরে তিনজনকে ছেড়ে দিলো পুলিশ !

3:59 pm , April 26, 2024

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশালের আগৈলঝাড়ায় পুলিশী অভিযানে বিপুল পরিমান ইয়াবাসহ চারজনকে পুলিশ আটক করে আনার পর রাতেই রহস্যজনকভাবে তিনজনকে ছেড়ে দিয়ে একজনের কাছ থেকে মাত্র ১০পিস ইয়াবা উদ্ধার দেখিয়ে শুক্রবার সকালে মামলা দায়ের করা হয়েছে। অপরদিকে  অর্থের বিনিময়ে মাদক ব্যবসায়িদের ছেড়ে দেয়ার ঘটনায় উপরজলা শহরজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও একাধিক বিস্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে ওসির নিজস্ব লোক হিসেবে পরিচিত এসআই মনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে এসআই মিল্টন, কনস্টেবল কবির, বরকত উল্লাহ, কম্পিউটার অপারেটর সাইমুম রহমান জিলাম বাকাল এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৯০ পিস ইয়াবাসহ বাকাল গ্রামের বাসিন্দা সুলতান আহমেদ এর ছেলে মুশফিকুর রহমান রিফাত (৩২), একই গ্রামের মৃত পরিতোষ দাসের ছেলে গোপাল দাস, নারায়ণ শীলের ছেলে ইন্দ্রজিৎ শীল ও মৃত সুরেণ রায়ের ছেলে সুশান্ত রায়কে গ্রেফতার করে। পরে রাতে রিফাতের বাবা সুলতানের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পুলিশ লোক দেখানো নাটকীয় একটি অভিযান চালায়।
চারজন আটকের পর থানায় নিলে ওই মাদক ক্রেতা-বিক্রেতাদের পাঁচ লাখ টাকার বিনিময়ে চারজনকে ছাড়িয়ে নিতে পুলিশের সোর্স হিসেবে কাজ করা একটি চক্র গভীর রাত পর্যন্ত থানা ও আশপাশ এলাকায় অবস্থান করে। এরসাথে একজন ঠিকাদারও ছিলেন। মোটা অংকের টাকায় রফা হলে তিনজনেক ছেড়ে দিয়ে রিফাতকে আটক রাখা হয়। অবশেষে রাত বারোটার পরে থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আলম চাঁদ নিজের বাসা থেকে পুনরায় থানার অফিস কক্ষে এসে রিফাত বাদে বাকি তিনজনকে ছেড়ে দেয়ার নির্দেশ দেন।
এদিকে মাদক উদ্ধার অভিযানে নেতৃত্বদানকারী ও মামলার বাদী এসআই মনিরুজ্জামান জানান, বৃহস্পতিবার রাত সোয়া এগারোটার দিকে থানা ব্রীজ সংলগ্ন একটি দোকানের সামনে অভিযান চালিয়ে মুশফিকুর রহমান রিফাতকে ১০পিস ইয়াবাসহ আটক করেন। এ সময় রিফাতের কাছ থেকে মাদক বিক্রির ১২ হাজার ২শ টাকা জব্দ করা হয়। মাদক উদ্ধার ও আটকের ঘটনায় রিফাতকে আসামী করে তিনি বাদী হয়ে শুক্রবার সকালে মামলা দায়ের করেন।
চারজন আটকের পর তিনজনকে ছেড়ে দেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে এসআই মনিরুজ্জামান জানান, অন্য কারনে তিনজনকে আটক করা হয়েছিল। জিজ্ঞাসাবাদের পরে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে। থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আলম চাঁদ বলেন, একজনকে মাদকসহ আটক করে মামলা দেয়া হয়েছে। বাকি তিনজন সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরা করায় আদের আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।গৌরনদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শারমিন সুলতানা রাখি ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT