বাবুগঞ্জে বুদ্ধি-প্রতিবন্ধী কিশোরী ধর্ষণের অভিযোগ বাবুগঞ্জে বুদ্ধি-প্রতিবন্ধী কিশোরী ধর্ষণের অভিযোগ - ajkerparibartan.com
বাবুগঞ্জে বুদ্ধি-প্রতিবন্ধী কিশোরী ধর্ষণের অভিযোগ

3:19 pm , September 10, 2022

বাবুগঞ্জ প্রতিবেদক ॥ বাবুগঞ্জে এক সন্তানের জনকের বিরুদ্ধে এক বুদ্ধি প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এমনকি এ ঘটনাটিকে অর্থের বিনিময়ে ধামাচাপা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। ধর্ষণের ঘটনা অর্থের বিনিময়ে ধামাচাপা দিতে চাচ্ছে ধর্ষক শহিদুল ইসলাম খানের (৩৪) বড় ভাই বাবুল খান ও এলাকার একটি প্রভাবশালী মহল। ঘটনাটি ঘটেছে বাবুগঞ্জ উপজেলার দেহেরগতি ইউনিয়নে। ধর্ষক শহিদুল ইসলাম খান (৩৪) উপজেলার দেহেরগতি ইউনিয়নের বাহেরচর ক্ষুদ্রকাঠী গ্রামের মৃত মো. মালেক খান এর ছেলে। ধর্ষিতার পরিবার সূত্রে জানা যায়, গত ৮ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুরে বাহেরচর ক্ষুদ্রকাঠী গ্রামের কৃষকের বুদ্ধি প্রতিবন্ধী কিশোরী মেয়েকে বাসায় রেখে তাঁর মা একই ইউনিয়নে অবস্থিত উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে যান। বাবা কৃষি কাজে বাইরে যান। এ সুযোগে একই বাড়ির বাসিন্দা শহিদুল ইসলাম ঘরে প্রবেশ করে জোরপূর্বক বুদ্ধি প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণ করে। এ সময় বুদ্ধি প্রতিবন্ধী কিশোরীর বাবা বাড়িতে এসে দরজা বন্ধ দেখে দরজায় ধাক্কা দিলে ধর্ষক শহিদুল ইসলাম পালিয়ে যান। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে অভিযুক্ত শহিদুল ইসলাম সেইদিনই এলাকা ত্যাগ করেন। তাঁর বড় ভাই বাবুল খান ধর্ষিতার পরিবারকে দশ হাজার টাকা দিয়ে বিষয়টি কাউকে না জানানোর জন্য হুমকি প্রদান করেন বলে জানান ধর্ষিতা কিশোরীর মা। ধর্ষক শহিদুল ইসলাম ও তার ভাই বাবুল খান এলাকার প্রভাশালী হওয়ায় অর্থের বিনিময়ে ঘটনাটি গোপনে মীমাংসার চেষ্টা করেন। এলাকাবাসী জানায়, ধর্ষক শহিদুল ইসলাম এর ভাই বাবুল খান বুদ্ধি প্রতিবন্ধী মেয়েটি দরিদ্র হওয়ায় ধর্ষক ও এলাকার কিছু মাতব্বর ধর্ষিতার পরিবারকে টাকার বিনিময়ে ঘটনাটি মীমাংসা করার চেষ্টা করছে। ধর্ষিতার মা জানায়, আমি বাড়িতে না থাকায় কৌশলে ঘরে প্রবেশ করে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী মেয়েকে জোর পূর্বক ধর্ষণ করেছে। এ ঘটনার তিনি ন্যায্য বিচার দাবি করেন। এ বিষয়ে অভিযুক্ত ধর্ষক মো. শহিদুল ইসলাম এর সাথে তার ব্যবহৃত মোবাইল (০১৯০৫০৬০২৯০ নম্বরে) যোগাযোগ করা হলে ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। তাঁর ভাই বাবুল খান বলেন, আমার ভাই দোষী হলে তার বিচার হোক আমিও চাই। শহিদুল ইসলাম এর মা ও স্ত্রী আকলিমা বেগম দশ হাজার টাকা ধর্ষিতার পরিবারকে দেওয়ার কথা স্বীকার করেন। এ বিষয়ে বাবুগঞ্জ থানার ওসি মো. মাহাবুবুর রহমান বলেন, ঘটনাটি আমার জানা নেই। এ ব্যাপারে থানায় কেউ কোন অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আমরা প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

 

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT