দেশে ডাল উৎপাদন চাহিদার অর্ধেকেরও কম দেশে ডাল উৎপাদন চাহিদার অর্ধেকেরও কম - ajkerparibartan.com
দেশে ডাল উৎপাদন চাহিদার অর্ধেকেরও কম

1:00 am , June 24, 2021

বিশেষ প্রতিবেদক ॥ দেশে প্রায় ২৫ লাখ টন চাহিদার বিপরীতে যে প্রায় সাড়ে ১০ লাখ থেকে পৌনে ১১ লাখ টন ডাল জাতীয় ফসল উৎপাদন হচ্ছে তার প্রায় ৩৫ ভাগই দক্ষিণাঞ্চলের জেলাগুলোতে। খেসারী ও মুগ ডালের ৪০ ভাগই আবাদ ও উৎপাদন হচ্ছে দক্ষিণাঞ্চল সহ দক্ষিন উপকূলীয় চরাঞ্চলে। তবে এখনো দেশে ডালের চাহিদার প্রায় ৬০ ভাগের যোগনই আমদানী নির্ভর। যা দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের উপর চাপ বাড়াচ্ছে। পাশাপাশি আমদানী-রফতানী বাণিজ্যের ভারসাম্যেও বিঘœ ঘটাচ্ছে। তবে সরকার আগামী ৫ বছরে দেশে ডাল জাতীয় ফসল আবাদ ও উৎপাদন বৃদ্ধির একটি বড় কর্মসূচী গ্রহন করেছে বলে কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের দায়িত্বশীল সূত্রে বলা হয়েছে। দেশে বর্তমানে প্রতি বছর সোয়া ৮ লাখ থেকে প্রায় সাড়ে ৮লাখ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের ডালের আবাদ হচ্ছে। উৎপাদন ১০ লাখ ৬৫ হাজার থেকে পৌনে ১১ লাখ টনের মত। এরমধ্যে দক্ষিনাঞ্চলেই প্রায় ৫ লাখ টনের মত খেশারী ও মুগ ডালের উৎপাদন হচ্ছে।
মাঠ পর্যায়ের কৃষিবীদদের মতে, কৃষি গবেষনা ইনস্টিটিউট-বারি উদ্ভাবিত উচ্চ ফলনশীল ডালবীজ সহ আবাদ প্রযুক্তি কৃষক পর্যায়ে হস্তান্তর এবং নিবিড় তদারকি করলে দেশে ডালের উৎপাদন আরো অন্তত ৩০ ভাগ বৃদ্ধি করা সম্ভব। এক্ষেত্রে বারি’ উদ্ভাবিত উন্নত ও উচ্চ ফলনশীল জাতের ডাল আবাদের কোন বিকল্প নেই বলেও মনে করছেন কৃষিবিদগন।
বারি’র বিজ্ঞানীগন ইতোমধ্যে মসুর ডালের ৭টি, খেসারী ডালের ৩টি, মুগ ডালের ৬টি, ছোলার ৯টি, মাষকলাই ডালের ৩টি ও ফেলন ডালের ১টি উচ্চ ফলনশীল জাত উদ্ভাবন করেছেন। বারি উদ্ভাবিত এসব উচ্চ ফলনশীল জাতের ডালের উৎপাদন হেক্টর প্রতি দেড় টন থেকে ২ টন পর্যন্ত। পাশাপাশি এসব ডালে আমিষের পরিমানও ২০-৩০ভাগ। এছাড়া ‘বাংলাদেশ পরমানু কৃষি গবেষনা প্রতিষ্ঠান-বিনা’ও বেশ কয়েকটি উচ্চ ফলনশীল ডাল বীজ উদ্ভাবন করেছে।
গোশতের পরেই ডালে প্রোটিন বা আমিষের পরিমাণ সবচেয়ে বেশী বলে তা আমাদের দেশের দরিদ্র ও স্বল্পোন্নত জনগোষ্ঠীর আমিষের চাহিদা পূরনের একটি সস্তা উৎস বলেও মনে করছেন কৃষি বিজ্ঞানীগন। ডাল থেকে যে পরিমান প্রোটিন পাওয়া যায়, তা ডিম, দুধ বা গোশতের মাধ্যমে অর্জনে প্রায় তিনগুন অর্থ ব্যয় করতে হয়। এ কারনে ডালকে ‘গরীবের গোশত’ বলেও আখ্যায়িত করা হয়ে থাকে। এছাড়া ডালের ছোলা বিভিন্ন পশু খাদ্যেরও একটি বড় উপকরন।
কিন্তু এখনো আমাদের দেশে ‘বারি’ ও ‘বিনা’ উদ্ভাবিত উচ্চ ফলনশীল এবং অধিক প্রোটিন সমৃদ্ধ ডালের বীজ মাঠ পর্যায়ে কৃষকের কাছে যেমনি পৌছছে না, তেমনি এসব ডাল-এর আবাদ প্রযুক্তিও মাঠ পর্যায়ে হস্তান্তরের উদ্যোগ খুব জোড়ালো নয়। বারি গবেষণার মাধ্যমে দেশের আবহাওয়া উপযোগী উচ্চ ফলনশীল ও কৃষকবান্ধব কৃষি পণ্য উদ্ভাবন করে তা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর-ডিএই’র কাছে হস্তান্তর করে থাকে। ডিএই তার ব্লক সুপারভাইজারদের প্রশিক্ষণ প্রদান করে এসব উফশী জাত-এর আবাদ ও উৎপাদন প্রযুক্তি কৃষকের কাছে পৌছে দেয়ার কথা। এমনকি এলক্ষ্যে বিভিন্ন ব্লকে প্রদর্শনী প্লট করেও কৃষকদের হাতে কলমে অভিজ্ঞতা বিনিময় করার কথা।
কিন্তু ডাল সহ অনেক ফসলের ক্ষেত্রেই তা এখনো কাঙ্খিত লক্ষে না পৌছলেও দায়িত্বশীল মহলের মতে, ‘দেশে ডালের উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে ডিএই যথাযথ দায়িত্ব পালন করছে’। মহলটির মতে, ‘গত এক দশকে দেশে ডালের উৎপাদন কিছুটা বেড়েছে। তা আরো বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে’ বলেও জানান দায়িত্বশীল কর্মকর্তাগন।
দায়িত্বশীল সূত্রের মতে, দেশে যে প্রায় সাড়ে ১০ লাখ থেকে পৌনে ১১ লাখ টন ডাল জাতীয় ফসল উৎপাদন হচ্ছে, তার মধ্যে ২ লাখ ৭০ হাজার হেক্টর জমিতে সাড়ে ৩ লাখ টন মসুর ডাল ও ২ লাখ ৮৫ হাজার হেক্টরে প্রায় পৌনে ৪ লাখ টন খেসারী ডাল উৎপাদন হচ্ছে। এর মধ্যে বারিশাল অঞ্চলেই প্রায় দেড় লাখ হেক্টরে পৌনে ২ লাখ টন খেসারী ডাল উৎপাদন হচ্ছে। তবে গত বছর ভাদ্রের অমবশ্যার ভরা জোয়ার ও প্রবল বর্ষনে দক্ষিণনাঞ্চলে খেশারী ডালের ব্যাপক ক্ষতি হয়। এছাড়া গত রবি মৌসুমে দেশে যে প্রায় ১ লাখ ৮৫ হাজার হেক্টরে আড়াই লাখ টনের মত মুগ ডাল উৎপাদন হয়। যারমধ্যে বরিশাল অঞ্চলেই প্রায় পৌনে ২ লাখ টন মুগ ডাল উৎপাদন হয়েছে।
পাশাপাশি দেশের প্রায় ১২ হাজার হেক্টর জমিতে প্রায় সাড়ে ১৩ হাজার টন মটর ডাল, ৭৫ হাজার হেক্টরে ৮৭ হাজার টন মাষকলাই ডাল, ৫৬ হাজার হেক্টরে ৭৮ হাজার টন ফেলন ডাল উৎপাদন হচ্ছে। এর মধ্যে বরিশাল অঞ্চলেই ৩২ হাজার হেক্টরে প্রায় ৪৫ হাজার টন ফেলন ডাল উৎপাদন হচ্ছে। এছাড়াও সারাদেশে মাত্র ৫শ’ হেক্টর জমিতে প্রায় ৬শ’ টন অড়হর ডাল উৎপাদন হয়ে থাকে। তবে অত্যন্ত পুষ্টি সমৃদ্ধ এ ডালের আবাদ ও উৎপাদন বৃদ্ধির যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT