পুলিশ-জনতার সেতুবন্ধন গড়তে কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রম-আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ পুলিশ-জনতার সেতুবন্ধন গড়তে কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রম-আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ - ajkerparibartan.com
পুলিশ-জনতার সেতুবন্ধন গড়তে কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রম-আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ

2:46 pm , October 26, 2019

আইন শৃঙ্খলা সঠিক থাকলে দেশের উন্নয়ন সম্ভব-পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী

পুলিশ ও জনগণ হচ্ছে রাষ্ট্রের অন্যতম শক্তি-সিটি মেয়র

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ সকাল থেকে প্রবল বর্ষণের মধ্যেও নানা কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে উদযাপন করা হয়েছে ‘কমিউনিটি পুলিশিং ডে’। গতকাল শনিবার সকাল থেকে বরিশাল জেলা ও মেট্রোপলিটন পুলিশ দিবসটি উদযাপনে পৃথকভাবে নানা কর্মসূচি পালন করে। এর মধ্যে সকাল সাড়ে ১০টায় বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উদ্যোগে নগরীর সদর রোডস্থ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। যা নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে নগরীর বঙ্গবন্ধু উদ্যানে গিয়ে শেষ হয়। র‌্যালির উদ্বোধন করেন মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ ও অতিরিক্ত আইজিপি মীর শহিদুল ইসলাম ও পুলিশ কমিশনার মো. শাহাবুদ্দিন খান। র‌্যালি পরবর্তী বঙ্গবন্ধু উদ্যোনে কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশ হয়। প্রবল বৃষ্টি উপক্ষো করে এতে জনতার ঢল নামে। পুলিশ কমিশনার মো. শাহাবুদ্দিন খান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন- পার্বত্য শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন ও পরিবিক্ষণ কমিটির মন্ত্রীমর্যায় আহ্বায়ক আলহাজ্ব আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ-এমপি।
বিশেষ অতিথি ছিলেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী ও বরিশাল সদর আসনের সংসদ সদস্য কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীম, মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ, র‌্যাব-৮ এর অধিনায়ক ও অতিরিক্ত ডিআইজি আতিকা ইসলাম ও জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান। প্রধান বক্তা ছিলেন বাংলাদেশ পুলিশের অতিরিক্ত ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজিপি) মীর শহিদুল ইসলাম।
প্রধান অতিথি’র বক্তৃতায় আলহাজ্ব আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ-এমপি বলেছেন, পুলিশ জনতার পরামর্শ ছাড়া এবং জনতা পুলিশের পরামর্শ ছাড়া কিছু করতে পারে না। এ কারনে পুলিশ ও জনতার মধ্যে সেতুবন্ধন গড়ে তুলতেই কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রম।
কমিউনিটি পুলিশকে জনগণের বন্ধনের বন্ধু আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, ‘অন্য যে কোন দেশের পুলিশের থেকে আমাদের দেশের পুলিশ অনেক শাক্তিশালী এবং সাহসী। তারা বিভিন্ন দেশের শান্তি রক্ষা করতে শান্তি রক্ষা মিশনে যাচ্ছে। আমাদের দেশের পুলিশ জঙ্গিদের সাথে যুদ্ধ করে তাদের নির্মুল করেছে। আপনারা দেখেছেন সম্প্রতি বুয়েটের ঘটনায় মাত্র সাত দিনের মধ্যে ২৪ আসামিকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে এসেছে। হাসানাত আবদুল্লাহ বলেন, ‘বর্তমান সরকার পুলিশ বিভাগকে শক্তিশালী করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করেছে। যার মধ্যে পুলিশ বাহিনীতে জনবল বৃদ্ধি করা একটি বড় উদ্যোগ। ইতিপূর্বে যেখানে এক লাখ ৫৪ হাজার পুলিশ সদস্য ছিলো সেখানে আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বর্তমানে ২ লাখ ১১ হাজারে উন্নীত করেছেন। আজ বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে তিনি হয়তো পুলিশ বিভাগকে আরো ঢেলে সাজাতে পারতেন। তার অবর্তমানে প্রধানমন্ত্রী সেই কাজ করছেন। এখন পুলিশ ও জনতার ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। পুলিশ ও জনগণকে এক হয়ে সমাজ থেকে জঙ্গিবাদ, মাদক, সন্ত্রাস, বাল্যবিবাহসহ যে কোন অপরাধ দূর করতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি। অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি’র বক্তৃতায় পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক শামীম-এমপি বলেছেন, ‘কমিউনিটি পুলিশিং এর যে মুল উদ্দেশ্য রয়েছে তা বাস্তবায়ন হলে ধরনের মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, বালবিবাহ, ইভটিজিংসহ কোন ধরনের অপরাধ হওয়ার অবকাশ নেই। পুলিশ কর্মকর্তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব ও কর্তব্য তারা যদি সঠিকভাবে পালন করে তবে প্রধানমন্ত্রীর লক্ষ্যে পৌঁছাতে দেরী লাগবে না।
তিনি বলেন, ‘একটি দেশের আইন শৃঙ্খলা সঠিক থাকলে দেশের উন্নয়ন সম্ভব। আমাদের দেশের আইন শৃঙ্খলা সঠিক আছে বিধায় উন্নয়ন হচ্ছে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে তাদের এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারলেই ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ একটি সমৃদ্ধশালী দেশে রূপান্তরিত হবে।
কমিউনিটি পুলিশের বিষয়ে নগর পুলিশ কর্মকর্তাদের আহ্বান জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘যারা অপরাধী তাদের কমিউনিটি পুলিশে যাতে জায়গা না হয় সেই বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে। যারা অপরাধের বিরুদ্ধে স্বোচ্ছার, যারা অপরাধ প্রতিরোধে বদ্ধপরিকর, যাতের সৎ সাহস আছে তাদেরকে নিয়েই কমিউনিটি পুলিশিং প্লাটফর্ম তৈরীর আহ্বান জানান তিনি।
বিশেষ অতিথি’র বক্তৃতায় মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ বলেন, ‘পুলিশ ছাড়া যেমন জনগণ চলতে পারে না, তেমনি পুলিশও জনগণের বাইরে চলতে পারে না। পুলিশ ও জনগণ হচ্ছে রাষ্ট্রের অন্যতম শক্তি। দুই শক্তি কাজে লাগিয়ে দেশের উন্নয়ন এবং সমাজ থেকে সকল অপরাধ রোধ করা সম্ভব। তাই দেশ এবং জাতির উন্নয়নে পুলিশ ও জনতা এক হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি।
সমাবেশের প্রধান বক্তা অতিরিক্ত আইজিপি মীর শহিদুল ইসলাম বলেন, জনগণ ‘পুলিশকে ভয় পেলে চলবে না। পুলিশকে বন্ধু ভেবে কাজ করতে হবে। পাশাপাশি প্রতিটি পুলিশ সদস্যকে খেয়াল রাখতে হবে যাতে কোনভাবেই নিরাপরাধীরা শাস্তি না পায়। বিশেষ করে জনগণ যাতে পুলিশকে ভয় না পায়, বন্ধু ভাবতে পারে সেভাবে সেবা দেয়ার আহ্বান জানান তিনি।
সমাপনি বক্তৃতায় বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. শাহাবুদ্দিন খান বলেন, ‘আজকে আমরা যেটা করেছি সেটার পেছনে অবশ্যই একটি স্বার্থ রয়েছে। তা হলো নিরাপত্তার অধিকার। কেননা অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থানের পাশাপাশি নিরাপত্তাও জনগণের অন্যতম মৌলিক অধিকার। যদি নিরাপত্তার অধিকার পুরন না হয় তবে শান্তি মেলে না। নিরাপত্তার অধিকার পুরনে পুলিশ এবং কমিউনিটি পুলিশ মিলে সেই অধিকার পুরন করব। সমাজ থেকে সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ, জঙ্গিবাদ, ধর্ষণ, নির্যতান, বাল্যবিবাহসহ সকল ধরনের অপরাধ নির্মুল করব।
তিনি বলেন, ‘কমিউনিটি পুলিশিং কমিটিতে কারা এসেছেন এবং কারা আসছেন সে বিষয়টি আমরা লক্ষ্য করছি। আমরা জানি কিছু অপরাধী এই কমিটিতে ঢুকে পড়েছে। এদেরকে বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে জানিয়ে পুলিশ কমিশনার বলেন, ‘কমিউনিটি পুলিশ কমিটিতে যারা আসবেন তাদের আস্থাবান হতে হবে, আগুয়ান হতে হবে। সত্যিকারের ভালো লোকদের নিয়ে একটি প্লাটফর্ম গড়ে তুলব।
সমাবেশে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য ও উপস্থিত ছিলেন- বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট তালুকদার মো. ইউনুস, বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার প্রলয় চিসিম, উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) মোয়াজ্জেম হোসেন ভূঁঞা, উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মোখতার হোসেন, উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি) মো. জাহাঙ্গীর মল্লিক, উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) খায়রুল আলম, বরিশাল সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান রিন্টু, কোতয়ালী মডেল থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) নুরুল ইসলাম, কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির পক্ষে বক্তব্য রাখেন শাহরিয়ার বাবু, আব্দুর রাজ্জাক হাওলাদার ও মুক্তিযোদ্ধা আমিরুল ইসলাম প্রমুখ।
এছাড়াও কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির বিভিন্ন ওয়ার্ড, ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ, আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ, বিসিসি’র প্যানের মেয়র, কাউন্সিলর এবং নারী নেতৃসহ বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে কমিউনিটি সমাবেশ শেষে বঙ্গবন্ধু উদ্যানে রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন অতিথিবৃন্দ। তার পূর্বে কমিউনিটি পুলিশিং ডে’ উপলক্ষে অনুষ্ঠিত চিত্রাংকন, রচনা ও বিতর্ক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহনকারী বিজয়ী ও কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রমে বিশেষ অবদান রাখা পুলিশ কর্মকর্তা এবং কমিউনিটি পুলিশ সদস্যদের পুরস্কার দেয়া হয়।
এর আগে বরিশাল জেলা পুলিশের উদ্যোগে কমিউনিটি পুলিশিং ডে উপলক্ষে গৌরনদীতে র‌্যালি এবং আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গৌরনদী বাসস্ট্যান্ড থেকে বের হওয়া র‌্যালি উপজেলা পরিষদে গিয়ে শেষ হয়। এতে জেলার পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম ও গৌরনদীর পৌর মেয়র হারিছুর রহমান হারিছ সহ বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
এছাড়া বরিশাল জেলা ও মহানগর পুলিশের উদ্যোগে প্রীতি ফুটবল ও কাবাডি প্রতিযোগিতা, পুরস্কার বিতরণ এবং সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু উদ্যান ও পুলিশ লাইন্সে পৃথকভাবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT