অবৈধ যানবাহনের দাপটে নাকাল নগরবাসী অবৈধ যানবাহনের দাপটে নাকাল নগরবাসী - ajkerparibartan.com
অবৈধ যানবাহনের দাপটে নাকাল নগরবাসী

4:03 pm , July 9, 2024

বিশেষ প্রতিবেদক ॥ অবৈধ যানবাহনের বেপরোয়া ও বিশৃঙ্খল কর্মকান্ডে পুরো বরিশাল মহানগরীর গণপরিবহন ব্যবস্থা নাগরিক সুবিধার পরিবর্তে চরম ঝুঁকিপূর্ণ পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে। মহানগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের সুষ্ঠু সমন্বয়ের অভাবে এ নগরীর গণ পরিবহন ব্যবস্থায় ন্যূনতম কোন শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা সম্ভব হচ্ছেনা বলেও মনে করছেন অনেকে। ফলে বরিশাল নগরীতে সুষ্ঠু ও নিরাপদ গণপরিবহন ব্যবস্থা ইতোমধ্যেই অতীত স্মৃতিতে পরিনত হয়েছে।
প্রায় ৬০ বর্গকিলোমিটারের বরিশাল মহানগরীর দেড় শতাধিক কিলোমিটার সড়ক ছাড়াও জাতীয় মহাসড়কের প্রায় ১৫ কিলোমিটার অংশে এখন কত যানবাহন চলাচল করছে তার কোন পরিসংখ্যান নেই কারো কাছে। তবে নগরভবন থেকে ২০০৯ থেকে ’১৩ এবং ২০১৪ থেকে ১৮ সালে দু’দফায় ২ হাজার ৬১০টি ইজিবাইকের লাইসেন্স প্রদানের কথা বলা হয়েছে। পাশাপাশি বিদায়ী নগর পরিষদ পূর্ববর্তি দুটি পরিষদের সময় ইস্যুকৃত ২ হাজার ৬১০টি ইজিবাইক লাইসেন্স নবায়ন করেনি টানা প্রায় ৫ বছর। বিদায়ের আগে গত বছর গোড়ার দিকে সাবেক মেয়র নতুন করে ৫ হাজার লাইসেন্স ইস্যু করেন। ফলে এ নগরীতে লাইসেন্সধারী ইজিবাইকের সংখ্যা সাড়ে ৭ হাজার হলেও নগরীর রাস্তায় এখন প্রতিদিন গড়ে ১২-১৫ হাজারেরও বেশী ইজিবাইক চলাচল করছে। সাথে আছে বিআরটিএর অনুমোদিত গ্যাসচালিত অটোরিকশা ছাড়াও আরো অন্তত ১৫ হাজার ব্যাটারিচালিত রিকশা।
অপরদিকে এ নগরীতে ১২ হাজার প্যাডেলচালিত রিকশার লাইসেন্স  থাকলেও বিগত এক যুগেরও বেশী সময় ধরে এসব রিকশার লাইসেন্স আর নবায়ন করছেন না মালিকরা। গত ৫ বছরে গরীতে অন্তত ১৫ হাজার ব্যাটারীচালিত অবৈধ রিকশা। বছর তিনেক আগে নগর ভবন থেকে এসব রিকশার বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করা হলেও বাম গণতান্ত্রিক দলের আমরন অনশনে নগরভবন তার সিদ্ধান্ত থেকে পিছু হটতে বাধ্য হয়। এক বছরের জন্য নগরীর সদর রোড বাদে অন্যসব রাস্তায় ব্যাটারীচালিত রিকশা চলাচলের সুযোগ লাভ করে তা স্থায়ী করে নিয়েছে অবৈধ যানবাহন। বর্তমানে বরিশাল মহানগরীতে সব মিলিয়ে অন্তত ২৫ হাজার অবৈধ যানবাহন রয়েছে।
ফলে পুরো নগরী সহ বরিশাল-ফরিদপুর ও বরিশাল-পটুয়াখালী জাতীয়  মহাসড়কের মহানগরী অংশ জুড়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে অবৈধ ইজিবাইক সহ ব্যাটারীচালিত রিকশা। ইজিবাইকের চেয়েও ভয়ঙ্কর ব্যাটারীচালিত রিকশা। এসব রিকশার অবকাঠামোর সাথে সঙ্গতিহীন এর গতি। ফলে নগরীতে প্রতিদিন অগনিত দুর্ঘটনায় পঙ্গুত্বও বরণ করছেন অনেকে। বেপরোয়া গতির এসব রিকশা নারী ও শিশুদের জন্য যথেষ্ট ভয়ঙ্কর বলে প্রমানিত হলেও সুষ্ঠু ও নিরাপদ গণ পরিবহন নিশ্চিত করার কোন উদ্যোগ নেই। এ ব্যাপারে মঙ্গলবার বরিশাল সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে আলাপ করা হলে তিনি জানান, নগর পরিষদের প্রথম সভায় পূর্বের ২ হাজার ৬১০টি ইজিবাইকের লাইসেন্স নবায়নের সিদ্ধান্ত হয়েছে। পরবর্তি ৫ হাজারের বিষয়টি নিয়ে সামনের যেকোন পর্ষদ সভায় আলোচনা হতে পারে। তবে নগরীতে বৈধ-অবৈধ মিলিয়ে প্রায় ১৫ হাজার ইজিবাইক চলাচলের কথা স্বীকার করেন তিনি।  অনুরূপভাবে ব্যাটারীচালিত রিকশার বিষয়েও পরবর্তি যেকোন পর্ষদ সভায় আলোচনা করে সিদ্ধান্তের কথা জানান প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা। এছাড়া বিআরটিএ যেসব গ্যাসচালিত ইজিবাইকের লাইসেন্স দিয়েছে, সে বিষয়ে নগর ভবনের কিছু করার নেই বলে জানিয়ে তিনি বলেন, মহানগর এলাকায় কোন গণপরিবহনের অনুমতি দেয়ার আগে নগরভবনের সাথে পরামর্শ করার একটি অলিখিত বিধান থাকলেও অতীতে তা করা হয়নি। ফলে সিটি করপোরেশনও জানে না, এ নগরীতে কত ধরনের যানবাহন ও তার সংখ্যা কত।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT