গৌরনদীর হোসনাবাদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৭ শিক্ষার্থী ও নূরানী মাদ্রাসার ৩ শিক্ষার্থী শ্রেণিকক্ষে অচেতন গৌরনদীর হোসনাবাদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৭ শিক্ষার্থী ও নূরানী মাদ্রাসার ৩ শিক্ষার্থী শ্রেণিকক্ষে অচেতন - ajkerparibartan.com
গৌরনদীর হোসনাবাদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৭ শিক্ষার্থী ও নূরানী মাদ্রাসার ৩ শিক্ষার্থী শ্রেণিকক্ষে অচেতন

4:27 pm , July 6, 2024

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ অর্ধবার্ষিক মূল্যায়ন পরীক্ষা চলাকালে বরিশালের গৌরনদী উপজেলার হোসনাবাদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ৭জন ও হোসনাবাদ নূরানী মাদ্রাসার ৩ ৩জন ছাত্রী শ্রেণিকক্ষে ফের অচেতন হয়ে পড়েছে। এ ঘটনায় তাদের অভিভাবক মহলে চরম উৎকন্ঠা দেখা দিয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শী, অসুস্থ শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা জানান, ওই বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ডিজিটাল প্রযুক্তি বিষয়ের পরীক্ষা চলাকালে শনিবার দুপুর ১টার দিকে শিক্ষার্থী সুপ্তি (১৫) শ্রেণিকক্ষের মধ্যে হঠাৎ অচেতন হয়ে পড়ে। এ ঘটনা দেখার পর নবম শ্রেণির আরও বেশ কয়েকজন ছাত্রী পর্যায়ক্রমে অসুস্থ হড়ে পড়ে। তাদের ৬ জনকে গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। একজনকে বাড়িতে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।
একই দিন দুপুরে হোসনাবাদ নূরানী মাদ্রাসার ৬ষ্ঠ শ্রেণির তিন ছাত্রী  শ্রেণি কক্ষে অচেতন হয়ে পড়ে। তাদেরকেও গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে কর্মরত চিকিৎসকরা জানান, হোসনাবাদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৬জন শিক্ষার্থী ও নূীরানী মাদ্রাসার ৩জন শিক্ষার্থীকে জরুরী বিভাগ থেকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এদের মধ্যে ৪জন চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছে। বাকি ৬ জনকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। অচেতনরা সবাই শ^াসকষ্টে ভুগছে।
অভিভাবক সাইদুল ইসলাম মুন্সী জানান, মেয়ের জীবন ও লেখাপড়া নিয়ে এখন খুব উৎকণ্ঠায় আছি।  গত ৫ জুন ওই বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ১৩জন ছাত্রী অচেতন হয়ে পড়েছিল। তাদের মধ্যে আমার মেয়েও ছিল। এ ঘটনার পর আমিসহ শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা মিলে বিভিন্নভাবে শিক্ষকদেরকে অনুরোধ করেছি শ্রেণিকক্ষে ফ্যানসহ আলো বাতাসের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রাখতে। তারা আমার কথার প্রতি কোন গুরুত্বই দেয়নি। এক পর্যায়ে আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম মেয়েকে পরীক্ষা দেয়াবো না। স্যারদের অনুরোধে পরীক্ষা দেয়াতে রাজি হই। শ্রেণিকক্ষে আমার স্ত্রী হাতপাখা নিয়ে বসে থেকে মেয়েকে বাতাস দিচ্ছিল। তার পরও মেয়েকে সুস্থ রাখতে পারলামনা।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT