মুলাদীতে প্রেমিকের সঙ্গে ঘুরতে বেরিয়ে নারী গণধর্ষণের শিকার মুলাদীতে প্রেমিকের সঙ্গে ঘুরতে বেরিয়ে নারী গণধর্ষণের শিকার - ajkerparibartan.com
মুলাদীতে প্রেমিকের সঙ্গে ঘুরতে বেরিয়ে নারী গণধর্ষণের শিকার

4:12 pm , July 5, 2024

মুলাদী প্রতিবেদক ॥ বরিশালের মুলাদীতে প্রেমিকের সঙ্গে ঘুরতে বেরিয়ে এক নারী (২০) গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। গত বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে উপজেলার সফিপুর ইউনিয়নের চরপদ্মা গ্রামের একটি মাছের ঘেরে এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ওই নারীর বাবা বাদী হয়ে ৫জনকে আসামী করে শুক্রবার বিকেলে মুলাদী থানায় মামলা করেছেন। এঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে বৃহস্পতিবার রাতেই প্রেমিকসহ ৪জনকে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ। ভুক্তভোগী ওই নারীকে চিকিৎসা ও পরীক্ষার জন্য বরিশাল শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) পাঠানো হয়েছে।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন : সফিপুর ইউনিয়নের চরপদ্মা গ্রামের আলমগীর আকনের ছেলে ফজলে রাব্বী (২০), মৃত আজাহার গোমস্তার ছেলে বাতেন গোমস্তা (২২), আজিজ বেপারীর ছেলে রুহুল আমিন (২০), কালাম খানের ছেলে নাবিল খান (২০)। এদের মধ্যে ফজলে রাব্বীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিলো বলে জানান ওই নারী। এঘটনায় অভিযুক্ত আবুল কালাম বেপারীর ছেলে রবিন বেপারী (২০) পলাতক রয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা ওই নারীকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে বলে জানায় থানা পুলিশ।
মামলা সূত্রে জানাগেছে, প্রায় ৩ বছর আগে ওই নারীর স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদ হওয়ার পর সে বাবার বাড়ি উত্তর পাতারচর গ্রামে থাকতো। ঢাকায় একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে ওই নারীর সঙ্গে ফজলে রাব্বীর পরিচয় হয়। পরবর্তীতে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের মাধ্যমে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রেমিক ফজলে রাব্বী ওই নারীকে নিয়ে চরপদ্মা এলাকায় মাছুম বিল্লাহর মাছের ঘেরে ঘুরতে যান। সেখানে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ফজলে রাব্বী ওই নারীকে ধর্ষণ করে। বিষয়টি টের পেয়ে ঘেরে থাকা ৪ জন কর্মচারীরা সেখানে উপস্থিত হয় এবং প্রেমিক-প্রেমিকাকে আপত্তিকর অবস্থায় আটক করে। পরে তারা প্রেমিক ফজলে রাব্বীকে মাছের ঘেরে একপ্রান্তে নিয়ে আটকে রেখে নারীর মুখ বেঁধে পালাক্রমে ধর্ষণ করে এবং মোবাইল ফোনে ছবি ও ভিডিওচিত্র ধারণ করে। সন্ধ্যার পরে ওই নারী বাড়ি ফিরে বিষয়টি বাবা-মাকে জানালে তারা সফিপুর পুলিশ ফাড়িতে লিখিত অভিযোগ দেয়। অভিযোগের ভিত্তিতে সহকারী পুলিশ সুপার বায়েজীদ ইবনে আকবর ও মুলাদী থানার ওসি মো. জাকারিয়ার নির্দেশে সফিপুর ফাঁড়ি পুলিশের এএসআই মো. শাহজাহান কবিরের নেতৃত্বে একদল পুলিশ রাতেই চরপদ্মা এলাকায় অভিযান চালিয়ে মাছের ঘের কর্মচারী বাতেন, রুহুল আমিন ও নাবিলকে আটক করে। পরে ওই এলাকায় থেকে ফজলে রাব্বীকে আটক করা হয়।
এব্যাপারে মুলাদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. জাকারিয়া বলেন, গণধর্ষণের ঘটনায় ওই নারীর বাবা বাদী হয়ে ৫জনকে আসামী করে মামলা করেছেন। এঘটনায় আটক প্রেমিকসহ ৪জনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। আরও একজনকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT