গৌরনদীতে হারিছের একক আধিপত্যের অবসান গৌরনদীতে হারিছের একক আধিপত্যের অবসান - ajkerparibartan.com
গৌরনদীতে হারিছের একক আধিপত্যের অবসান

4:07 pm , July 2, 2024

গৌরনদী প্রতিবেদক ॥ বরিশালের গৌরনদী উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচন ও গৌরনদী  পৌরসভার মেয়র পদে উপনির্বাচনে বরিশাল-১ আসনের সংসদ সদস্য ও বরিশাল জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল হাসনাত আবদুল্লাহর সমর্থিত দুই প্রার্থীর নির্বাচনে ভরাডুবি হয়েছে। গৌরনদী উপজেলা ও পৌরসভা নির্বাচনে পরাজয়ের মধ্য দিয়ে হাসানাত আবদুল্লার বিশ্বস্ত সহযোগী ও তার প্রতিনিধি উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক, সাবেক পৌর মেয়র মোঃ হারিছুর রহমানের গত ১৫ বছরের একক আধিপত্যের অবসান হয়েছে বলে দাবি করেছেন আওয়ামীলীগের একাংশ। ওই একাংশের নেতাকর্মীরা গৌরনদীতে হারিছুর রহমানকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে জেলার নেতাদের কাছে গৌরনদী উপজেলা আওয়ামী লীগ ও পৌর কমিটি বাতিলের দাবি জানিয়েছেন। বরিশাল-১ আসনের সংসদ সদস্য আবুল হাসানাত আবদুল্লাহর আগৈলঝাড়ার সেরালস্থ বাসভবনে আনুষ্ঠানিকভাবে সভা করে তার সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে  গৌরনদী উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ হারিছুর রহমানকে প্রার্থী ঘোষনা করেন। আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ গৌরনদীতে চেয়ারম্যান পদে মোঃ হারিছুর রহমানকে তার সমর্থিত প্রার্থী ঘোষনা করায় গৌরনদী আওয়ামীলীগ দুইভাগে বিভক্তি হয়ে পড়ে। হাসানাত সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী হারিছুর রহমানের বিরুদ্ধে গৌরনদীতে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন গৌরনদী পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ মনির হোসেন মিয়া । গত ৯ জুন নির্বাচনে হাসানাত সমর্থিত প্রার্থী মোঃ হারিছুর রহমান পরাজিত হন। হাসানাত বিরোধী শিবিরের প্রার্থী সভাপতি মোঃ মনির হোসেন মিয়া চেয়ারম্যন নির্বাচিত হন। উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে গৌরনদী পৌরসভার মেয়র মোঃ হারিছুর রহমান গত ২৭ এপ্রিল মেয়র পদ থেকে পদত্যাগ করলে পদটি শূন্য ঘোষনা করে মেয়র পদে উপনির্বাচনে ২১ মে তফশিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন । উপনির্বাচনে গৌরনদী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এইচএম জয়নাল আবেদীন  (মোবাইল ফোন) , উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও সরকারি গৌরনদী কলেজের ছাত্র সংসদের সাবেক জিএস মোঃ আলাউদ্দিন ভূঁইয়া (নারিকেল গাছ)সহ চার প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। বরিশাল-১ আসনের সংসদ সদস্য, বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ  গত ২০ জুন আগৈলঝাড়ার সেরালস্থ নিজ বাসভবনে আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের বর্ধিত সভা ডেকে প্রকাশ্যে গৌরনদী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও মেয়র পদে মোবাইল ফোন প্রতীকের প্রার্থী জয়নাল আবেদীনকে দলের প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করে তার পক্ষে ভোট চান। ২৬ জুন উপনির্বাচনে আবুল হাসানাত আবদুল্লাহর সমর্থিত প্রার্থীকে বিপুল ভোটে পরাজিত করে আলাউদ্দিন ভূঁইয়া মেয়র নির্বাচিত হন।
গৌরনদী পৌরসভার কাউন্সিলর ও পৌর যুবলীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ আল আমিন হাওলাদার বলেন, ২০০৮ সালে হারিছুর রহমান গৌরনদীতে এসে রাজনীতি শুরু করে যুবলীগের সদস্য হন। পর্যায়ক্রমে সংসদ সদস্য আবুল হাসানাত আবদুল্লাহর মন জয় করে তার আস্থাভাজন হয়ে তিনবার (২০১০, ২০১৫, ২০২০এর নির্বাচনে) মেয়র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত  হন।  হারিছুর আবুল হাসানাতের আস্থাভাজন হয়ে দলের মধ্যে নিজের ব্যক্তিগত বলয় সৃষ্টি করে গোটা রাজনীতির নিয়ন্ত্রন নিয়ে আওয়ামীলীগের দুর্দীনের ত্যাগি নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে নিয়ে নিজস্ব বাহিনী গড়ে তোলেন। উন্নয়ন প্রকল্প, অফিস-আদালত, থানাসহ সব কিছুই তার নিয়ন্ত্রনে চলে। হারিছ এতই ক্ষমতাবান হয়ে উঠেন যে, তার কথাই ছিল গৌরনদীতে শেষ কথা।  গৌরনদী উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও বরিশাল জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সৈয়দা মনিরুন নাহার মেরী বলেন, হারিছুর রহমান গত ১৫ বছর ক্ষমতায় থেকে একক আধিপত্য বিস্তার করে একটি বাহিনী গড়ে তুলেছেন। সেই সন্ত্রাসী বাহিনীর ভয়ে কেউ মুখ খুলতে পারে সাহস পায়নি।
গত ১৫ বছরের প্রচেষ্টায় গৌরনদী উপজেলা ও পৌরসভা সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে হারিছকে প্রতিহত করা হয়েছে। নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ মনির হোসেন মিয়া বলেন, সংসদ সদস্য আবুল হাসানাত আবদুল্লাহর দোহাই দিয়ে হারিছুর রহমান থানা  ও প্রশাসনের নিয়ন্ত্রন নিয়ে গৌরনদীতে রামরাজত্ব কায়েম করেছিল। সুষ্ঠু  দুটি নির্বাচনে তার দুঃশাসন থেকে গৌরনদীর নিরীহ মানুষ মুক্তি পেয়েছে। মাহিলাড়া ইউপি চেয়ারম্যান  ও উপজেলা অওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক সৈকত গুহ বলেন, গত ১৫ বছরে হারিছুর রহমানের হাতে আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ছাত্রলীগের কয়েকশ নেতাকর্মী শারীরিকভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন কিন্তু তার বিরুদ্ধে কেউ মামলা করতে সাহস পায়নি।
গত ২৮ জুন বিজয়ী উপজেলা চেয়ারম্যান ও মেয়র সমর্থিত নেতাকর্মীরা হারিছুর রহমানের দখলে থাকা গৌরনদী উপজেলা অওয়ামীলীগের কার্যালয়ের তালা ভেঙ্গে দখলে নেন। সেখানে আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের একাংশের নেতাকর্মীরা সভা করে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান,  নবনির্বাচিত মেয়রসহ আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতাকর্মীরা হারিছুর রহমানকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে জেলা নেতৃবৃন্দের কাছে গৌরনদী উপজেলা ও পৌর কমিটি বিলুপ্ত করার দাবি জানান।
উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি, আবুল হাসানাত সমর্থিত পরাজিত মেয়র প্রার্থী এইচএম জয়নাল আবেদীন বলেন, দলের মধ্যে থাকা বিপদগামী কতিপয় নেতাকর্মী জামাত-বিএনপির সন্ত্রাসীদের নিয়ে ষড়যন্ত্র করে আমার এজেন্টদের বের করে দিয়ে কেন্দ্র দখল করে আমাকে পরাজিত করেছে।  নির্বাচনের পরে বিএনপি জামাত সন্ত্রাসীদের নিয়ে এলাকায় সন্ত্রাস চালাচ্ছে। হাসানাত সমর্থিত পরাজিত উপজেলা চেয়ারম্যান প্রাথী ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ হারিছুর রহমান তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন,  আমার রাজনৈতিক অভিভাবক আবুল হাসানাত আবদুল্লাহর হাতকে শক্তিশালী করতে নেতার দেয়া নির্দেশনা ও পরামর্শ অনুযায়ী কাজ করেছি। এতে অনেকের স্বার্থে আঘাত লেগেছে। ওইসব সুবিধাবাদী জামাত-বিএনপির এজেন্টারই আমার বিরুদ্ধে মিথ্যাচার চালাচ্ছে। জামাত-বিএনপি ও প্রশাসনের সমর্থন নিয়ে আওয়ামীলীগের মধ্যে ঘাপটি মেরে থাকা একটি গোষ্ঠি ষড়যন্ত্র করে আমাকে পরাজিত করে ক্ষান্ত হয়নি তারা গৌরনদীতে আওয়ামীলীগকে নিশ্চিহ্ন করে জামাত-বিএনপির রাজনীতি প্রতিষ্ঠায় নেমেছে। বরিশাল জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক তালুকদার মোঃ ইউনুস বলেন, নির্বাচনে দলের একাধিক নেতা প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে। সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনে কেউ বিজয় লাভ করেছে কেউ পরাজিত হয়েছে। সবাই আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী। জয়-পরাজয়ে সাময়িক কিছুটা অভিমান ক্ষোভ থাকতে পারে তাতে আওয়ামীলীগ  বিভক্ত হওয়ার কিছু নাই।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT