চরম সংকটে শেবাচিম ॥ রোগীর চাপে হিমশিম ডাক্তার ও নার্স চরম সংকটে শেবাচিম ॥ রোগীর চাপে হিমশিম ডাক্তার ও নার্স - ajkerparibartan.com
চরম সংকটে শেবাচিম ॥ রোগীর চাপে হিমশিম ডাক্তার ও নার্স

4:06 pm , June 27, 2024

বিশেষ প্রতিবেদক ॥ অর্থোপেডিক্স, মেডিসিন আর জরুরী বিভাগে রোগীর চাপে হিমশিম ডাক্তার ও নার্স। ১০০০ বেডের বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এই মুহূর্তে প্রায় ২৫০০ রোগী ভর্তি আছে। অথচ এই রোগীদের চিকিৎসা সেবায় রয়েছেন মাত্র ৮৭ জন চিকিৎসক। তারউপর ১০টি লিফটের ছয়টি অকেজো, নেই উন্নত পরীক্ষা নিরীক্ষার যন্ত্রপাতি। যা আছে তাও নষ্ট নয়তো অকেজো। সবচেয়ে অদ্ভুত সত্য হচ্ছে এখানে কোনো বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নেই এবং পর্যাপ্ত অত্যাধুনিক সরঞ্জামের অভাব স্বীকার করলেন স্বয়ং হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।
সরেজমিনে ২৬ জুন বুধবার বরিশালের ঐতিহ্যবাহী চিকিৎসা সেবা কেন্দ্র শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (শেবাচিম) ঘুরে দেখা গেছে অস্থির ও অমানবিক কিছু চিত্র। প্রবেশ পথের জরুরী বিভাগে রোগীর ছটফটানি ও শিক্ষানবিশ চিকিৎসকদের ছুটোছুটি বলে দেয় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ছাড়া তারা কতটা অসহায় এখানে। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন খয়রাবাদ এলাকায় সড়ক দূর্ঘটনার শিকার আহত দুজনকে নিয়ে আসা সিএনজি চালক আসলাম জানান, ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা তাদের সিএনজিতে তুলে দিয়েছেন। বলেছেন হাসপাতালে পৌঁছে দিতে। এখানে এসে জরুরী বিভাগে যোগাযোগ করে তাদের সম্পর্কে জানানোর পরও আধাঘন্টা হয়ে গেছে কেউ আসেনি। নিজেই স্ট্রেচারে করে ভিতরে রেখে আসলাম এখন। স্ট্রেচারও দিতে রাজী নয় তারা। পরে হাসপাতালের একজন কর্মী অবস্থা দেখে দ্রুত স্ট্রেচার নিয়ে সাহায্য করেন। তবে ইন্টার্নি চিকিৎসক ছাড়া কাউকে দেখা যায়নি জরুরী বিভাগে। যদিও ইন্টার্নি চিকিৎসকদের ব্যবহার খুবই আন্তরিক।
এখানে একজন রোগীর স্বজন বললেন, আমার স্বামীকে এখানে আনা হলে এখানকার ডাক্তার খুব আন্তরিকতার সাথেই চিকিৎসা দেয়ার চেষ্টা করেছেন। পরে তাকে অর্থোপেডিক্সে রেফার করেছেন।
সড়ক দূর্ঘটনায় আহত দুজনের একজনকে অর্থোপেডিক্স ও একজনকে ৫ নং ওয়ার্ডে মেডিসিন বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানালেন দায়িত্বরত ইন্টার্নি চিকিৎসক। তাদের দেখানো পথে পুরাতন ভাংগাচুরা ভবনের সিঁড়ি বেয়ে তৃতীয় তলার অর্থোপেডিক্স বিভাগে এসে দেখা গেল, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের অপেক্ষা চলছে। বড় ডাক্তার না আসলে রোগীর অবস্থা নিয়ে কিছু বলতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন ইন্টার্নি চিকিৎসকরা। তারা জানালেন, তাদের স্যার আসার অপেক্ষা করছেন তারা।
একই অবস্থা দেখা গেল নতুন ভবনের মেডিসিন বিভাগেও। বিছানা না পেয়ে ফ্লোরে রোগীদের জায়গা দিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। এই মূহুর্তে ১৩৭৬ জন রোগী ভর্তি আছে বলে জানালেন হাসপাতালের তথ্য কর্মকর্তা মাসুম ও এমি। এমি বলেন, এই হিসেব গতকাল ২৫ জুন সকাল আটটা থেকে আজ ২৬ জুন সকাল আটটা পর্যন্ত। এখন বেলা ১ টায় যে রোগী এসেছেন, সে হিসাব আগামীকাল পাবেন। তবে আনুমানিক ৭০০ জন হবে।
এমি ও মাসুমের দেয়া তথ্য অনুযায়ী এই মূহুর্তে শেবাচিমে রোগী ভর্তি প্রায় ২৫০০ জন। স্বাভাবিক কারণেই বেড সংকট তৈরি হয়েছে। ফ্লোরে রেখে হলেও চিকিৎসা সুবিধা দেয়ার চেষ্টা করছেন এখানের ডাক্তাররা।
এদিকে গত বছর জানুয়ারিতে শেবাচিম থেকে একযোগে আট চিকিৎসককে বদলি করার পর আজ পর্যন্ত কোনো বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক আসেনি শেবাচিমে। মাত্র ছয়জন প্রফেসর, ৮৭ জন এসিসট্যান্ট দিয়ে চলছে আমাদের চিকিৎসা সেবা জানিয়ে স্বয়ং হাসপাতাল পরিচালক ডাঃ সাইফুল ইসলাম বলেছেন, ৫০০ শয্যার চিকিৎসা ব্যবস্থা দিয়ে চলছে এই হাসপাতাল। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের ৪০টি পদই শূন্য এখানে। ১২৯ জন সহকারী প্রফেসর এর দায়িত্ব পালন করছেন মাত্র ২৯ জন। এই হাসপাতালে তীব্র চিকিৎসক সংকট চলছে। ২০২৩ সালের জানুয়ারীতে এখান থেকে আটজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের বদলি হয়েছে। এরপর আর নতুন কোনো বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক পায়নি এই হাসপাতাল। তিনি বলেন, দক্ষিণাঞ্চলের সব উপজেলার রোগীই এ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসেন। এমনকি ফরিদপুর, মাদারীপুর ও গোপালগঞ্জের রোগীও পাবেন এখানে। একটি এমআরআই মেশিন ও ক্যান্সার চিকিৎসার উপকরণ খুবই জরুরী প্রয়োজন আমাদের।
পরিচালক সাইফুল ইসলাম আরো বলেন, হাসপাতালের ম্যানেজিং কমিটির পরিবর্তন ঘটেছে। বরিশাল ৫ আসনের সংসদ সদস্য পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী এখন সভাপতি মনোনীত হয়েছেন। ২৮ জুন তিনি হাসপাতালের সমস্যা ও প্রয়োজন নিয়ে নগরবাসীর সাথে সরাসরি মতবিনিময় ও পরামর্শ করবেন। আশাকরি দক্ষিণাঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী এই হাসপাতালের পরিবেশ পুনরায় এশিয়ার অন্যতম চিকিৎসা সেবাকেন্দ্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে বলে জানান ডাঃ সাইফুল ইসলাম।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT