৩০০টি সিগারেটের জন্য একটি পূর্ণাঙ্গ গাছ কেটে ফেলতে হয়  ৩০০টি সিগারেটের জন্য একটি পূর্ণাঙ্গ গাছ কেটে ফেলতে হয়  - ajkerparibartan.com
৩০০টি সিগারেটের জন্য একটি পূর্ণাঙ্গ গাছ কেটে ফেলতে হয় 

4:08 pm , June 26, 2024

তামাক বিরোধী সেমিনারে বললেন বক্তারা
খবর বিজ্ঞপ্তি ॥ ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমের আওতায় বিভাগীয় পর্যায়ে তামাক বিরোধী সেমিনার গতকাল বুধবার সার্কিট হাউজ সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। বিভাগীয় কমিশনার মোঃ শওকত আলী সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন।
প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বিভাগীয় কমিশনার বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা, ২০৪০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে তামাকের ব্যবহার সম্পূর্ণভাবে নির্মূল করতে হবে। ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য যেমন ক্ষতিকর তেমনি পরিবেশের জন্যও হুমকি স্বরুপ। প্রতি ৩০০টি সিগারেট তৈরির জন্য একটি পুর্ণাঙ্গ গাছ কেটে ফেলতে হয়। বিশ্বব্যাপী সিগারেট তৈরির জন্য প্রতিবছর ৬০ কোটি গাছ কাটা পড়ছে এবং ৩.৫ মিলিয়ন হেক্টর জমি ধ্বংস হয়।
বক্তারা বলেন, একটি সিগারেট থেকে ১৪ গ্রাম কার্বনডাইঅক্সাইড গ্যাস বায়ুমন্ডলে ছড়িয়ে পড়ে। তামাক চাষ মাটির উর্বরতা শক্তি কমায়। এছাড়াও তামাক চাষে প্রচুর পানি ব্যবহার হয়। একটি সিগারেটে ব্যবহৃত সমপরিমাণ তামাক উদপাদনের জন্য ৩.৭ লিটার পানি ব্যবহার হয়।
বক্তারা আরও বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশে ত্রিশ বছরের অধিক বয়সীদের মধ্যে ৭০ লাখের অধিক তামাক সেবনজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত। এরমধ্যে ১৫ লক্ষাধিক মানুষ তামাকজনিত হৃদরোগ, স্ট্রোক, ফুসফুস ক্যান্সার, স্বরযন্ত্র ও মুখগহব্বরের ক্যান্সার, শ্বাসযন্ত্রের দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতা রোগে আক্রান্ত। তাছাড়াও তামাকপণ্য সেবনের কারণে বাংলাদেশে প্রতিবছর একলক্ষ ৬১ হাজারের অধিক মানুষ মারা যায়।বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের দপ্তরের সহকারী পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডাঃ মোহম্মদ মাহামুদ হাসান সেমিনারে তামাক নিয়ন্ত্রণ ও বাস্তবায়ন বিষয়ক পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন।
অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) মোঃ সোহরাব হোসেন এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডাঃ শ্যামল কৃষ্ণ মন্ডল, শের-ই বাংলা হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ মোঃ সাইফুল ইসলাম, উপপুলিশ কমিশনার মোহম্মদ নজরুল হোসেন বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT