সাংবাদিক লিটন বাশারের সপ্তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ সাংবাদিক লিটন বাশারের সপ্তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ - ajkerparibartan.com
সাংবাদিক লিটন বাশারের সপ্তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

4:06 pm , June 26, 2024

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ আজ ২৭ জুন। আজ থেকে ঠিক সাত বছর আগে ২০১৭ সালের এই দিনে আকস্মিক সকলকে কাঁদিয়ে লিটন বাশার অকালেই পাড়ি জমান না ফেরার দেশে। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বাবার সাথে ঈদ উদযাপন করতে লিটন বাশার চরমোনাইয়ের গ্রামের বাড়িতে গিয়েছিলেন। সুস্থ সবল মানুষটি ঈদের দ্বিতীয় দিন সকালে অসুস্থবোধ করলে চিকিৎসার জন্য তাঁকে দ্রুত বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু সকল চেষ্ঠা করে ব্যর্থ হওয়ার পর অল্প সময়ের মধ্যেই চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।তরুন ও মেধাবী সাংবাদিক লিটন বাশার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত জাতীয় দৈনিক ইত্তেফাকের বরিশাল অফিস প্রধানের দায়িত্ব পালন করে গেছেন। বরিশাল সদর উপজেলার চরমোনাই এলাকার সন্তান লিটন বাশার সাংবাদিকতাকে ধ্যান ও জ্ঞান মনে করে এ পেশায় প্রতিষ্ঠা পেতে কঠোর পরিশ্রম করেছেন। তিনি বরিশালের স্থানীয় বিভিন্ন দৈনিকে কাজ করার পাশাপাশি উপকূলীয় এলাকা ভোলা জেলায়ও অবস্থান করে দীর্ঘদিন সেখানে সাংবাদিকতা করেছেন। সংবাদের জন্য ছুটে বেড়িয়েছেন বরিশালের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত। তিনি পেশাগত অনেক সাংবাদিকের ভরসার আশ্রয়স্থল হিসেবে তাদের বিপদে-আপদে পাশে দাঁড়িয়েছেন সবার আগে। তাঁর কাছে কোন সাংবাদিক সমস্যা নিয়ে গিয়ে সমাধান পাননি এরকম কোন নজির নেই।বরিশালসহ দেশের কোথাও সাংবাদিক নির্যাতন ও হয়রানির খবর কানে আসলেই লিটন বাশার রাজপথে সরব হতেন সর্বাগে। ক্ষমতাসীনদের রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে প্রতিবাদী সহকর্মীদের নিয়ে তিনি অন্যায়ের প্রতিবাদ করতেন নির্ভয়ে।আদর্শিকভাবে প্রগতিশীল ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার এ মানুষটি সাংবাদিকদের স্বার্থ রক্ষায় কারো সাথে কখনো আপোষ করেননি। এজন্য তাঁকে নির্যাতনের পাশাপাশি হয়রানীর শিকার হতে হয়েছে।সদাহাস্যোজ্জল ও ভালো মণের অধিকারী লিটন বাশার সবসময় তাঁর নিজস্ব কর্মস্থলের পাশাপাশি বরিশাল প্রেসক্লাবকেও জমিয়ে রাখতেন প্রানবন্ত আড্ডায়। প্রেসক্লাবের স্বার্থের প্রশ্নেও তিনি ছিলেন অবিচল। বরিশাল প্রেসক্লাবের নির্বাচন এলেই তাকে ঘিরে সাংবাদিকদের একটা বড় অংশ ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্যানেল তৈরীর মাধ্যমে নির্বাচনে অংশ নিতো।বয়সে প্রবীন না হলেও নির্বাচনী কৌশল ভালভাবে রপ্ত করার কারণে লিটন বাশার প্রবীন সাংবাদিকদেরও কাছে ব্যাপক জনপ্রিয় ছিলো মূলত তার নেতৃত্বেই প্রবীন-নবীন সমন্বয়ে একটি প্যানেল গঠিত হতো। কথিত আছে তিনি যেই প্যানেলকে সমর্থন করতেন অথবা যাদের যাদের সমর্থন করতেন বিজয়ের ক্ষেত্রে তাদের পাল্লাই বেশী ভাড়ি ছিলো।তাঁকে বরিশালের সাংবাদিক অঙ্গন জানতো একজন নির্বাচনী মেকার হিসেবে। তাঁর দূরদৃষ্টি সম্পন্ন নেতৃত্বের গুনে তিনি নিজে যেমন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হতেন তেমনি তাঁর প্যানেলকেও বিজয়ী করতে মুখ্য ভূমিকা পালন করতেন। তিনি অল্প সময়েই সাংবাদিকদের নেতৃত্ব পর্যায়ে আসীন হন।লিটন বাশারের অকাল মৃত্যুতে বরিশাল সাংবাদিক অঙ্গনে নেতৃত্বের সংকট হয়েছে এটা বলা যায় নিঃসন্দেহে। জীবদ্দশায় লিটন বাশার পেশাজীবী সাংবাদিকদের সংগঠন বরিশাল সাংবাদিক ইউনিয়নেরও নেতৃত্ব প্রদান করেছেন। তিনি ছিলেন ওই সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক।বিনোদন প্রিয় মানুষ লিটন বাশার বরিশাল সাংস্কৃতিক সংগঠনভূক্ত অন্যতম নাট্য সংগঠন প্রজন্ম নাট্যকেন্দ্রের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন দীর্ঘ কয়েক বছর। সাংবাদিক মাইনুল হাসান স্মৃতি সংসদ তাঁকে সাংবাদিক মাইনুল হাসান স্মৃতি পদকে ভূষিত করেছে। লিটন বাশার মৃত্যুকালে বাবা, ছোট ভাই, সহধর্মিনী ও অবুঝ এক সন্তান রেখে গেছেন।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT