জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের কল্যান ভাতার কার্ড জালিয়াতি মামলার আসামীর ৮ বছর দন্ড জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের কল্যান ভাতার কার্ড জালিয়াতি মামলার আসামীর ৮ বছর দন্ড - ajkerparibartan.com
জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের কল্যান ভাতার কার্ড জালিয়াতি মামলার আসামীর ৮ বছর দন্ড

4:19 pm , June 4, 2024

নিজস্ব প্রুিতবেদক ॥  জালিয়াতির মাধ্যমে জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের কল্যান ভাতার কার্ড তৈরির দায়ে এক ব্যক্তিকে দুই ধারায় ৮ বছরের কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। পাশাপাশি পাঁচ হাজার করে মোট ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে তিন মাস করে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার বরিশালের বিভাগীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মেহেদি আল মাসুদ কারাদন্ড দেন বলে বেঞ্চ সহকারী আবুল বাশার জানিয়েছেন।
দন্ডিত বঙ্গেঁশ্বর ভদ্র গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার ছত্রকান্দা গ্রামের বরেন্দ্র নাথ ভদ্রের ছেলে। রায় ঘোষনার সময় সে আদালতে উপস্থিত ছিলো।
মামলার বরাতে বেঞ্চ সহকারী আবুল বাশার বলেন, ২০১৮ সালের ২১ জুন দন্ডিত  বঙ্গেঁশ্বর ভদ্র সোনালী ব্যাংকের বরিশালের কর্পোরেট শাখায় জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যান বোর্ডের একটি কল্যান ভাতার কার্ড জমা দেয়। ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট শাখার কর্মকর্তার বিষয়টি সন্দেহ হয়। তিনি যাচাই-বাছাই করে দেখতে পায় কল্যান ভাতার কার্ড সোনালী ব্যাংকের পটুয়াখালীর মৌকরন শাখায় জমা দেয়া হয়েছে। বঙ্গেঁশ্বর ভদ্রের জমা দেয়া কার্ডে বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয়ের কর্মচারী কল্যান বোর্ডের সহকারী পরিচালক উৎপালেন্দু দেবনাথের স্বাক্ষর রয়েছে। একই দিন সহকারী পরিচালক এসে জানিয়েছেন কার্ডে দেয়া স্বাক্ষর ও সিল তার নয়। জালিয়াতির মাধ্যমে কার্ড তৈরি করা হয়েছে। জালিয়াতির মাধ্যমে কার্ড তৈরির অভিযোগে বঙ্গেঁশ্বর ভদ্রকে কোতয়ালী মডেল থানার পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। পরে এ ঘটনায় বঙ্গেঁশ্বর ভদ্রকে আসামী করে সোনালী ব্যাংকের বরিশাল কর্পোরেট শাখার এ্যাসিস্ট্যান্ড জেনারেল ম্যানেজার মো. জাহাঙ্গীর আলম সরদার বাদী হয়ে মামলা করেন। বরিশাল দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারী পরিচালক রনজিৎ কুমার কর্মকার ২০২১ সালের ১৯ জানুয়ারী অবৈধভাবে লাভবান হওয়ার জন্য প্রতারনার মাধ্যমে জাল-জালিয়াতি করে মুল্যবান কাগজপত্র তৈরি করে খাটি হিসেবে ব্যবহার করার অভিযোগে অভিযুক্ত করে চার্জশীট জমা দেয়। বিচারক দুই ধারায় চার বছর করে মোট ৮ বছর কারাদন্ড দেয়। দুই ধারার দন্ড একই সাথে কার্যকর করার আদেশ দিয়েছেন বিচারক বলে জানান বেঞ্চ সহকারী।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT