‘ডিরেক্ট অফিসার্স এসোসিয়েশন’ নামের ভূয়া কমিটিতে বিভ্রান্তি ‘ডিরেক্ট অফিসার্স এসোসিয়েশন’ নামের ভূয়া কমিটিতে বিভ্রান্তি - ajkerparibartan.com
‘ডিরেক্ট অফিসার্স এসোসিয়েশন’ নামের ভূয়া কমিটিতে বিভ্রান্তি

4:17 pm , June 4, 2024

‘বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স এসোসিয়েশনের’ সংবাদ সম্মেলন
নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তাদের সংগঠন ‘বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স এসোসিয়েশন’ এর নাম অনুকরন করে কর্তৃপক্ষের অনুমোদনহীন ভুয়া একটি কমিটি গঠনের অভিযোগ উঠেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের পেশাজীবী কর্মকর্তাদের প্রকৃত সংগঠনের নির্বাচনে একাধিকবার হেরে ‘ডিরেক্ট অফিসার্স এসোসিয়েশন’ নামের কমিটিটি গঠন করেছে গুটি কয়েক কর্মকর্তা বলে জানিয়েছে অভিযোগকারীরা। ২ জুন ভুয়া এই কমিটি গঠনের পর ‘ডিরেক্ট অফিসার্স এসোসিয়েশন’ এর ব্যানারে কর্মসূচি পালন ও তা প্রচার করে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করা হচ্ছে বলে জানান তারা। এতে বিভিন্ন মহলে সৃষ্ট বিভ্রান্তি পরিস্কার করে প্রকৃত ঘটনা তুলে ধরার উদ্দেশ্যে সংবাদ সম্মেলন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের পেশাজীবী কর্মকর্তাদের প্রকৃত সংগঠন ‘বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স এসোসিয়েশন’। মঙ্গলবার বিকেল ৪.৩০ মিনিটে শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাবে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। লিখিত বক্তব্যে এসময় ‘বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স এসোসিয়েশন’ এর সভাপতি মো. বাহাউদ্দিন গোলাপ জানান, ২০১২ সালের ৪ জানুয়ারি তৎকালীন উপাচার্যের স্বাক্ষরিত কর্তৃপক্ষীয় অনুমোদনের মাধ্যমে গঠিত হয় ‘বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স এসোসিয়েশন’। এটি সহ বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক সমিতি, কল্যান পরিষদ গ্রেড ১২-১৬ এবং কল্যান পরিষদ গ্রেড ১৭-২০ নামের মোট ৪ টি অনুমোদিত সংগঠন রয়েছে। ‘বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স এসোসিয়েশন’ এর সংবিধান অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ১২৪ কর্মকর্তার সকলেই এসোসিয়েশনের সদস্য। কিন্তু গত ২ জুন কাইকে কিছু না জানিয়ে উদ্দেশ্য প্রনোদিত ভাবে এসোসিয়েশনের বিগত সময়ে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে একাধিকবার হেরে যাওয়া গুটি কয়েক কর্মকর্তা মিলে ‘ডিরেক্ট অফিসার্স এসোসিয়েশন’ নামের কমিটিটি গঠন করে। ১৫ সদস্যের আহবায়ক এই কমিটির আহবায়ক হয়েছেন উপ-পরিচালক (অর্থ ও হিসাব) সুব্রত কুমার বাহাদুর এবং সদস্য সচিব হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে উপ-পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক সাযযাদ উল্লাহ মো. ফয়সাল এর নাম। গনমাধ্যমে প্রচারিত সংবাদের মাধ্যমে এই কমিটির খবর জানতে পারেন বলেন বাহাউদ্দিন গোলাপ। তবে সরাসরি নিয়োগপ্রাপ্ত মোট ৭৬ জন ও পদোন্নতি পাওয়া ৪৮ জন কর্মকর্তার সিংহভাগের কাছেই এই কমিটির কোন খোজ খবরই ছিলনা জানান তিনি। সামান্য সংখ্যক কর্মকর্তা ব্যাক্তিগত স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে পূর্বের নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার পর টিকে থাকার জন্য এই কমিটি গঠনের পরিকল্পনা করেছে। বিষয়টি প্রচারিত হওয়ার পর বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয় এবং ‘বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স এসোসিয়েশন’ উপাচার্যর দারস্থ হয়। উপাচার্য এমন কোন কমিটির অনুমোদন দেননি বলে জানান বাহাউদ্দিন গোলাপ। এমনকি ভুয়া এই কমিটির সদস্যরা উপচার্যকে ফুল দিতে গেলে সেই ফুল তিনি গ্রহন করেননি। কোন ধরনের বিভ্রান্তি সৃষ্টি হওয়ার অবকাশ নেই এই ভুয়া কমিটি নিয়ে জানিয়ে উপাচার্য বলেছেন, ঈদুল আজহার পর শান্তিপূর্নভাবে দুই পক্ষকে নিয়ে বিষয়টি সমাধানের আশ্বাস দিয়েছেন বলে নিশ্চি করেছেন ‘বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স এসোসিয়েশন’ সভাপতি বাহাউদ্দিন গোলাপ। সংবাদ সম্মেলনে এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন, ‘বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স এসোসিয়েশন’ এর সাধারন সম্পাদক মো. নাদিম মল্লিক, ২নং কার্যকরী সদস্য তৌছিক আহমেদ রাহাত, বিশ্ববিদ্যালয় কর্মকর্তা ফাতেমা মমতাজ মলিসহ বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মকর্তারা।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT