ভান্ডারিয়ায় পথের ধারে সৌন্দর্যের ডালি সাজিয়ে বসেছে লাল টুকটুকে কৃষ্ণচূড়া ভান্ডারিয়ায় পথের ধারে সৌন্দর্যের ডালি সাজিয়ে বসেছে লাল টুকটুকে কৃষ্ণচূড়া - ajkerparibartan.com
ভান্ডারিয়ায় পথের ধারে সৌন্দর্যের ডালি সাজিয়ে বসেছে লাল টুকটুকে কৃষ্ণচূড়া

4:05 pm , May 3, 2024

কবির খান, ভান্ডারিয়া প্রতিবেদক ॥  প্রকৃতিতে এখন গ্রীষ্মকাল। কাঠফাটা রৌদ্রের তীব্রতর তাপদাহ উপেক্ষা করেই বসন্তের সেই রক্তিম রেশ ধরে রেখেছে গ্রীষ্মের চোখধাঁধানো লাল টুকটুকে কৃষ্ণচূড়া। খররোদে তপ্ত দিনে ভা-ারিয়া উপজেলার ব্যস্ততম মেডিকেল মোড় সড়কের পথের ধারে কৃষ্ণচূড়া ডালি সাজিয়ে প্রকৃতির রুপের এভাবেই যেন জানান দিচ্ছে । এ সড়কের কৃষ্ণচূড়া ফুলে ফুলে লালে লাল। দূর থেকে মনে হবে কৃষ্ণচূড়া ডালে ডালে আগুন লেগেছে। কৃষ্ণচূড়া যে মানুষের মনে নতুনের দোলা দেয়, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এরই মধ্যে পিরোজপুরের ভা-ারিয়ার বিভিন্ন পথঘাটে কৃষ্ণচূড়া এনেছে ভিন্ন আমেজ। অনেক স্থানে দেখা মিলছে কৃষ্ণচূড়া ফুলের। গ্রাম বাংলার মেঠো পথের দুই ধারে এখন শোভা পাচ্ছে লাল এই ফুল।  গ্রীষ্মের ঘামঝরা দুপুরে কৃষ্ণচূড়ার ছায়া যেন প্রশান্তি এনে দেয় অবসন্ন পথিকের মনে। তাপদাহে দিশেহারা পথচারীরা পুলকিত নয়নে, অবাক বিস্ময়ে উপভোগ করেন এই সৌন্দর্য। জানা গেছে, সাধারণত বৈশাখ-জৈষ্ঠ এ দু?ই মাস নিয়েই গ্রীষ্মকাল। আর গ্রীষ্মের ফুলের কথা বলতেই সবার চোখের সামনে ভেসে ওঠে কৃষ্ণচূড়ার কথা। সুমিষ্ট রসাল ফলের জন্য গ্রীষ্মকাল এগিয়ে রয়েছে, তবে ফুলের দিক থেকেও অন্যসব ঋতুর তুলনায় এগিয়ে রয়েছে গ্রীষ্মকাল। তাই ফুল উৎসবের ঋতু বলা যায় গ্রীষ্মকালকেই। এ মৌসুমে কৃষ্ণচূড়ার লাল রঙের যে উম্মাদনা, তা এতই আবেদনময়ী যে চোখ ফেরানো অসম্ভব। এদিকে সারাদেশের মতো ভা-ারিয়ায়  প্রকৃতিতেও এখন কৃষ্ণচূড়ার সুদিন বইছে। এ সুদিনের সুবাতাস ছুঁয়ে যাচ্ছে ফুল ও প্রকৃতিপ্রেমি মানুষের হৃদয়। পাখির ডানায়, হাওয়ায়-হাওয়ায় উড়ছে তার লাবণ্য। গাছে গাছে রক্তিম আভা নিয়ে জেগে থাকা কৃষ্ণচূড়া দৃষ্টি কাড়ছে সেইসব ফুলপ্রেমি মানুষদের, যারা শত ব্যস্ততার মধ্যেও ফুলের জন্য অপেক্ষা করেন। আর কৃষ্ণচূড়ার জন্য প্রহর গোনেন। শুক্রবার দুপুরে ভা-ারিয়া-মঠবাড়িয়া-পিরোজপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের মেডিকেল মোড়ে এলাকায় দেখা মিলেছে মনমুগ্ধকার কৃষ্ণচূড়ার। প্রকৃতির এই অপরূপ দৃশ্যের ছবি তুলছেন অনেকেই। কেউ কেউ আবার গাছ থেকে একমুঠো ফুল বাড়িতে নিয়ে যাচ্ছেন। ভা-ারিয়া পৌর শহরের বাসিন্দা কলেজ ছাত্রী সুমাইয়া  আক্তার এ প্রতিবেদককে বলেন, তিনি একজন ফুলপ্রেমি মানুষ। যখন কৃষ্ণচূড়া ফোটে তখন গাছের লাল-সবুজ রঙে যেন মুখর হয়ে উঠে। আর এ সময়টা আমার কাছে অন্যরকম ভাল লাগে । এ অনুভূতির কথা মুখে বলে প্রকাশ করা সম্ভব নয়। অপর শিক্ষার্থী সায়লা আক্তার মীম বলেন, কৃষ্ণচূড়ার রঙে প্রকৃতি যেন এক অপূর্ব সুন্দর সাজে। প্রতিদিন এ দৃশ্য না দেখলে মনে হয় জীবনটাই বৃথা। তাই প্রতিবছর নয়, প্রতিটি দিনই যেন অপেক্ষায় গ্রীষ্মের এই দিনগুলোর জন্য। স্থানীয় কবি ইয়াছিন মোল্লা বলেন, আমি কৃষ্ণচূড়াকে প্রচন্ড ভালোবাসি। আমি তাকে নিয়ে বই লিখি। গ্রীষ্মের এই খরতাপে শান্তির পরশ বুলিয়ে দেয় কৃষ্ণচূড়া গাছগুলো। রক্তিম লালে প্রকৃতিকে যেন অনেক অপরূপ দেখায়। ভা-ারিয়া শাহাবুদ্দীন কামিল মাদ্রসার ইতিহাস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো: বশির উদ্দিন বলেন, বৈশাখ মানেই ভিন্ন সাজে বাংলার প্রকৃতির ইতিহাস। আকাশে গনগনে সূর্য। কাঠফাটা রোদ্দুরে তপ্ত বাতাস। গ্রীষ্মের এই নি®প্রাণ রুক্ষতা ছাপিয়ে প্রকৃতিতে কৃষ্ণচূড়া নিজেকে মেলে ধরে আপন মহিমায়।
ভা-ারিয়া সাহিত্য ও সংস্কৃতিক সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মো: এনায়েত হোসেন বলেন, বৃক্ষ নিধনের শিকার হয়ে দিন দিন কমে যাচ্ছে দেশ থেকে থেকে রঙিন এই গাছ। এক সময় এ গাছ হারিয়ে যাওয়ার শঙ্কাও রয়েছে। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের পাশাপাশি, মানুষ ও প্রকৃতির স্বার্থেই বেশি করে কৃষ্ণচূড়া গাছ লাগানোর আহ্বান জানান তিনি।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT