ঈদ কেনাকাটার চাপে নগরীতে তীব্র যানজট ঈদ কেনাকাটার চাপে নগরীতে তীব্র যানজট - ajkerparibartan.com
ঈদ কেনাকাটার চাপে নগরীতে তীব্র যানজট

4:03 pm , April 4, 2024

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ মুসলিমদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদ উল ফিতরের সময় যত ঘনিয়ে আসছে ততই যানজট তীব্র হচ্ছে বরিশাল নগরীতে।  বিশেষ করে নগরের কিছু পয়েন্টের অবস্থা গতকাল এমন ছিল, যা সামাল দিতে হিমশিম খেতে হয়েছে দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশদের। মাত্রাতিরিক্ত বৈধ-অবৈধ যানবাহন, সড়কের পাশে ব্যাক্তিগত যানগুলোর পার্কিং, ঈদে কেনাকাটার বাড়তি চাপ এবং চালকদের আগে যাওয়ার প্রতিযোগীতা, অন্যকে ছাড় না দেওয়ার মনোভাব এমন পরিস্থিতি তৈরির অন্যতম কারন বলে মনে করছে ট্রাফিক বিভাগ। নগরী ও সড়কের আয়তনের তুলনায় কয়েকগুন বেশি যানবাহনের কারনে সারাবছরই বরিশালের কয়েকটি পয়েন্টে যানজট নিয়মিত হয়ে থাকে। তবে ঈদের কারনে বর্তমানে কাকলির মোড় থেকে শুরু করে বিবির পুকুর পাড়  হয়ে গীর্জা মহল্লা, চকবাজার, কাটপট্টি, ফলপট্টি, নগর ভবনে সামনে এখন যানবাহন নিয়ে প্রবেশ তো দূরের কথা পায়ে হেটে চলারও পরিস্থিতি নেই। অন্যদিকে জেলখানার মোড়, বটতলার মোড়, শশী মিষ্টান্ন ভান্ডারের সামনে, চৌমাথা, সাগরদী, চান্দুর মার্কেট, রুপাতলী, নথুল্লাবাদ, নতুন বাজারের মত এলাকাগুলোতে সবসময় যেখানে যানজট লেগে থাকত সেসব পয়েন্টে এখন তা আরও তীব্র হয়েছে। এই পরিস্থিতি সামাল দিতে ট্রাফিক বিভাগ পূর্ব পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করলেও বেশ হিমশিম খাচ্ছে। ঈদের চাপ সামাল দিতে কয়েকদিন আগ থেকেই সদর রোডে ব্যাটারিচালিত সব ধরনের যানবাহনের প্রবেশ সীমাবদ্ধ করা হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে সদর রোডে দায়িত্বরত ট্রাফিক সদস্যদের সংখ্যা। এছাড়া ব্যস্ত এলাকাগুলোতে সাধারনের যানবাহন পার্কিং এর জন্য করা হয়েছে বিকল্প পার্কিং স্পেস। এর পরেও যারা সড়ক আটকে পাকিং করে তাদের সাবধান করতে সড়কের পাশে পার্ক করা গাড়ি আটকের অভিযানও পরিচালিত হয়েছে। এত কিছুর পরেও মাত্রাতিরিক্ত যানবাহনের কারনে সব চেষ্টা ব্যর্থতায় পরিনত হতে দেখা গেছে। গতকাল সকাল থেকে শুরু হয় যা ছিলো নিয়ন্ত্রনের বাইরে। সন্ধ্যার দিকে যানজট কিছুটা কম থাকলেও আবার রাতে বাড়তে শুরু করে। প্রচন্ড গরমে এই পরিস্থিতি সামাল দিতে একরকম অসহায় অবস্থায় দেখা গেছে দায়িত্বে থাকা ট্রাফিক পুলিশদের। যানচালকদের দাবী সড়ক ও শহরের তুলনায় এত যানবাহন এখন এই নগরে রয়েছে যা যানজটের প্রধান কারন। এছাড়া বরিশাল  শহরের অভ্যন্তরে যানবাহন চলাচলের কোন সঠিক নিয়মও নেই। যে যেমন করে পারছে আগে যাওয়ার চেষ্টা করছে। এ কারণে হচ্ছে অসহনীয় যানজট। ঈদে বরিশাল ও আশপাশের জেলা-উপজেলা থেকেও কেনাকাটা করতে আসা মানুষ ও তাদের যানবাহনগুলো বাড়তি চাপ তৈরি করেছে। ঈদের আগে এই অবস্থা স্বাভাবিক করা কষ্টসাধ্য বিষয় বলে মন্তব্য নগরবাসীর। এ বিষয়ে ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক আব্দুর রহিম বলেন, নগরীতে অতিরিক্ত ও অবৈধ যানবাহনের চাপ কমানোর জন্য সচেষ্ট রয়েছে ট্রাফিক বিভাগ। ঈদের আগে তাই নগরীর ৩টি প্রবেশ মুখ বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় এর সামনে, কালিজিরা এবং গড়িয়ার পাড়ে চেক পোস্ট বসানো হয়েছে। নগরীর সদর রোডে ব্যাটারিচালিত যানবাহনের চলাচলে সীমাবদ্ধতা আনা হয়েছে। পাকিং এর জন্য গীর্জা মহল্লায় একটি আলাদা স্পেস তৈরি করা হয়েছে। নগরীর যে সকল স্পটগুলোতে যানজট হয় সেই স্থানে অতিরিক্ত ট্রাফিক সার্জেন্ট দায়িত্ব পালন করছেন। এর পরেও যানজট সামাল দিতে উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশনা অনুযায়ী সব ধরনের ব্যবস্থা পর্যায়ক্রমে গ্রহণ করা হবে বলে জানান পরিদর্শক আব্দুর রহিম।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT