ভান্ডারিয়া হাপাতালে সূর্যমুখীর হাসি ॥ রোগীদের মনে প্রশান্তি ভান্ডারিয়া হাপাতালে সূর্যমুখীর হাসি ॥ রোগীদের মনে প্রশান্তি - ajkerparibartan.com
ভান্ডারিয়া হাপাতালে সূর্যমুখীর হাসি ॥ রোগীদের মনে প্রশান্তি

4:05 pm , February 20, 2024

ভা-ারিয়া প্রতিবেদক ॥ ফুটেছে সূর্যমুখী। সূর্য যখন যেদিকে হেলেছে, সূর্যমুখী ফুলও সেদিকে হেলে পড়ছে। সবুজের মধ্যে হলুদ ফুলগুলো অপরূপ সৌন্দর্যের উৎস হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়ে প্রজাপতি যেমন ছুটে আসছে তেমনি প্রকৃতি প্রেমীরা আসছেন দল বেঁধে। ফুলের সৌন্দর্য দেখতে ও ছবি তুলতে আসছেন অনেকে। ফুলের মাঠে মৌমাছি, পাখির আনাগোনাও বেশ। বাতাসে দোল খাওয়া সূর্যমুখীর হাসিও চোখে পড়ার মতো। দূর থেকে দেখলে মনে হবে বিশাল আকারের হলুদ গালিচা বিছিয়ে রাখা হয়েছে। কাছে গেলে চোখে পড়ে হাজারও সূর্যমুখী ফুল। ফুলগুলো বাতাসে দোল খেয়ে যেন আমন্ত্রণ জানাচ্ছে প্রাকৃতিক নৈসর্গিক সৌন্দর্য উপভোগ করার। চোখ জুড়ানো মনোমুগ্ধকর এমন অপরূপ সৌন্দর্যের দেখা মিলবে পিরোজপুরের ভা-ারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এলেই। পরিদর্শনে গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এর মূল ফটক দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করতেই কম্পাউন্ড চত্বরে সূর্যমুখী ফুলের হয়েছে আবাদ। এছাড়াও এ বাগানে রয়েছে গোলাপ, গাঁধা, কাগজ ফুলের সাথে বিভিন্ন ধরনের ফুলের সমারোহ। প্রস্ফুটিত এসব ফুলে এখন সুশোভিত স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কমপাউন্ডের চত্বর । ফুলে ফুলে সজ্জিত চত্বরটি যেন শিল্পীর তুলিতে আঁকা নয়ন জুড়ানো অপরূপ কোনো দৃশ্য। ফুটে থাকা এসব ফুলের বাগানের সৌন্দর্যে মোহিত হন রোগী সহ সবাই। এ বাগানে ফুটেছে রংবেরঙের নানা প্রকৃতির ফুল। তবে সবচেয়ে বেশি ফুটেছে সূর্যমুখী। এ হাসপাতালে আসা আরিফ নামে এক রোগী বলেন, সবুজ পাতার আড়ালে সূর্যমুখীর হাসি কাছে টানছে প্রকৃতি প্রেমীদের। অনেক রোগীরা এ বাগানের পাশ দিয়ে হাটছেন এবং দেখছেন এতে তাদের মনে এক প্রকার প্রশান্তি বিরাজ করছে। স্থানীয় বাসিন্দা দিপু জানান, এ হাসপাতালে রোগীদের সাথে প্রতিদিন দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ আসছেন, তারা সূর্যমুখী ফুলের পাশে দাঁড়িয়ে কেউ সেলফি তুলছেন, কেউবা ছবি তুলছেন। প্রাকৃতিক এ সৌন্দর্যে রোগী ও তাদের স্বজনদের মধ্যে মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে। মঙ্গলবার সকালে ফুলগাছের পরিচর্যাকালে কথা হয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মালি মিন্টুর সাথে। তিনি জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে‘র এ সূর্যমুখী বাগানটি তিনি দেখভাল করেন। বিনিময় উপজেলা চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলাম তাকে মাসিক বেতন প্রদান করেন। কারণ, উপজেলা চেয়ারম্যান ফুলকে অনেক ভালবাসেন। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: বর্ণালী দেব নাথ বলেন, হাসপাতালে ঢুকলেই মন ভালো হয়ে যেতে বাধ্য। হরেক রকম শীতকালীন ফুলে ভরে আছে বাগান। তবে সবচেয়ে বেশি ভালো লাগে সূর্যমুখী বাগানের পাশ দিয়ে যেতে। কমপ্লেক্স চত্বর জুড়ে বাহারি ফুলের ছোঁয়ায় রোগীর স্বাস্থ্য সহ সকলের মনন চিন্তা শক্তি বাড়বে বলে মনে করি।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT