‘বাবা শুক্রবার বাড়িতে এসে আমাকে নিয়ে নামাজে যাওয়ার কথা’ ‘বাবা শুক্রবার বাড়িতে এসে আমাকে নিয়ে নামাজে যাওয়ার কথা’ - ajkerparibartan.com
‘বাবা শুক্রবার বাড়িতে এসে আমাকে নিয়ে নামাজে যাওয়ার কথা’

3:24 pm , January 18, 2024

৪৮ ঘন্টায় মৃতদেহ উদ্ধার না হওয়ায় পরিবারের ক্ষোভ

তরিকুল ইসলাম, ভা-ারিয়া ॥ ভান্ডারিয়া উপজেলার মাটিভাঙ্গা গ্রামের সড়কগুলো সুনসান নীরব। একটু এগোতেই চোখে পড়ল একটি বাড়িতে শত শত নারী-পুরুষ ও শিশু ভিড় জমিয়েছে। বাড়ির ভেতরে ঢুকতেই দেখা মিলল পিতা ও স্বামীহারা সন্তান ও স্ত্রীর কান্নামাখা আহাজারি। নিহত ব্যক্তির স্ত্রী-স্বজনদের কান্নার শব্দে বাতাস যেন ভারী হয়ে উঠেছে। একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে স্ত্রী রজি আক্তারের আহাজারিতে উপস্থিত সবাই স্তব্ধ।মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটের কাছে পদ্মায় পণ্যবাহী ৯টি ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান নিয়ে রজনীগন্ধা নামের ফেরিডুবির ঘটনায় নিখোঁজ ফেরিটির সহকারী চালক হুমায়ুন কবিরের বাড়িতে গিয়ে এমন দৃশ্যই চোখে পড়েছে।এ সময় ঘরের ভিতরে হুমায়ুনের স্ত্রী রজি আক্তার কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, আমাকে ফোন দিয়ে বলেন ‘আমি আগামী শুক্রবার বাড়িতে আসব, পাঞ্জাবী টা ধুয়ে রেখ ছেলেকে নিয়ে মসজিদে নামজ পড়তে যাবে। এ কথাই যে শেষ কথা হবে তা বুঝতে পারিনি। স্কুল পড়–য়া দুটি মেয়ে  ও একমাত্র ছেলে তাদের পড়ালেখার খরচ কে বহন করবে।
একমাত্র ছেলে ইয়াসিন (১০) জানায়, শুক্রবারে সকালে এসে বাড়িতে আমার মার্কসিট দেখার কথা ছিল। মার্কসিট দেখে আমাকে নিয়ে দুপুরে নামাজ পড়তে যাবে মসজিদে এ কথাই ছিল বাবার সাথে আমার শেষ কথা।
একাদশ শ্রেণিতে পড়–য়া মেয়ে কামুন্নাহার বলেন, আমার বাবা গত মঙ্গলবার রাতে মাকে শেষবারের মত কল দেয়। কল দিয়ে বলে শীতে মেয়েদের যেন  কষ্ট না হয়। কষ্ট হলে তার ব্যবহৃত পোশাক ব্যবহার করতে বলে। বাবা আমাদের প্রতিদিন ১০-১২ বার কল দিত। সে বিভিন্ন সময় ভিডিও কল দিত আমাদের সাথে কথা বলার জন্য। এখন আমাদের খোঁজ নিবে কে। আমাদের পরিবারের একমাত্র কর্মক্ষম হল আমার বাবা। এখন আমাদের পরিবার কিভাবে চলবে তা আমরা বুঝতে পারছি না। আমাদের লেখাপড়া কিভাবে চলবে তা নিয়ে অনিশ্চয়তা পড়ে গেছি।
এ সময় নবম শ্রেণিতে পড়–য়া ছোট মেয়ে নূরি জান্নাত ক্ষোভ প্রকাশ করে বলে, আজ দুই দিন হলেও আমার বাবার কোন খোঁজ আমরা জানি না। এটা কেমন হল। আমরা সরকারের কাছে আমার বাবার লাশটা অন্তত ফেরত চাই।
সাবেক ইউপি সদস্য মো: মনসুর আলী বলেন , হুমায়ন ছোট থেকে অনেক কষ্ট করে বড় হয়েছে। সে অনেক ভাল মনের মানুষ ছিল। আমরা স্থানীয়রা তাকে আমাদের মসজিদের সভাপতি করেছি। এই শুক্রবার বাড়িতে আসার কথা আমাদের সকলকে জানিয়েছে সে। শুক্রবার বিকালে একটি সভা  করে কিভাবে মসজিদের উন্নয়ন করা যায়। কিন্তু তার জীবন এভাবে হবে আমরা তা ভাবতে পারিনি
গত বুধবার সকালে পাটুরিয়া ঘাটে ঘন কুয়াশার কারনে রজনীগন্ধা নামে একটি ফেরি ডুবে যায়। এ ফেরিটির মাষ্টার ছিল হুমায়ুন কবির। তিনি ২০১১ সালে বিআইডব্লিইটিএ তে যোগদান করে।
হুমায়নের  ছোট ভাই রফিকুল ইসলাম শাওন জানান, আমরা গতকালকে এ দুর্ঘটনা শোনার পরে ঘাটে চলে আসি। এসে আমরা ট্রলার নিয়ে নদীতে আমরা ভাইয়ের লাশ খুঁজতেছি। আমরা তো তার লাশ চাই না, আমরা চাই সে জীবিত ফিরে আসুক আমাদের কাছে। আমরা উদ্ধার তৎপরতা নিয়ে প্রশ্ন করতে চাই। আমার ভাইয়ের লাশ উদ্ধারে কোন পদক্ষেপ দেখছি না সরকারের। বৃহষ্পতিবার মাত্র একটি ট্রাক উদ্ধার করা হয়েছে কিন্তু আমর ভাইয়ের লাশ উদ্ধারে কোন গতি নেই। এখানে চাকরি করা ছিল কি আমার ভাইয়ের অপরাধ।
ভা-ারিয়া উপজেলা নির্বাহী আফিসার মোঃ ইয়াসিন আরাফাত রানা জানান, সে একজন সরকারি চাকুরীজীবী। সরকারি বিধি মোতাবেক তার জন্য সকল ধরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT