প্রধানমন্ত্রী বরিশাল থেকে যাওয়ার পরই চৌমাথা লেক আগের চেহারায়! প্রধানমন্ত্রী বরিশাল থেকে যাওয়ার পরই চৌমাথা লেক আগের চেহারায়! - ajkerparibartan.com
প্রধানমন্ত্রী বরিশাল থেকে যাওয়ার পরই চৌমাথা লেক আগের চেহারায়!

4:01 pm , December 31, 2023

বিশেষ প্রতিবেদক ॥ আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শুক্রবার বরিশাল সফর শেষে ফিরে যাওয়ার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই মহানগরী জুড়ে অবৈধ পথ খাবারের দোকানে ভরে গেছে। ফের বেদখল হয়ে গেছে বঙ্গবন্ধু উদ্যান সংলগ্ন রাস্তা ও নবগ্রাম রোড-চৌমাথা লেকের পাড়। গত শুক্রবার সড়ক পথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরিশালে পৌঁছে স্থানীয় বঙ্গবন্ধু উদ্যানে দলীয় এক বিশাল জনসভায় ভাষণ দেন। ওই দিন সন্ধ্যার আগে প্রধানমন্ত্রী সড়ক পথেই গোপালগঞ্জের উদ্দেশ্যে বরিশাল ত্যাগ করেন। নগর ভবনের কড়া বার্তা পেয়ে গত ২৩ ডিসেম্বর মধ্যরাতের পরে নগরীর নবগ্রাম রোড-চৌমাথা লেকের পাড়ের শতাধিক পথ খাবারের অবৈধ দোকান সরিয়ে নিয়েছিল মালিকরা। প্রায় একই সময়ে বঙ্গবন্ধু উদ্যানের অবৈধ স্থাপনাও সরিয়ে নেয়া হয়।
ওই সব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের ফলে গত সোমবার থেকে নগরীর অভ্যন্তরভাগে দেশের ৮ নম্বর জাতীয় মহাসড়কের নবগ্রাম রোড চৌমাথা, নথুল্লাবাদের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল ও মিনিবাস টার্মিনাল সংলগ্ন রূপাতলী এলাকায়  যানবাহন চলাচল সহ পথচারীদের জন্য অনেকটাই স্বস্তি ফিরে আসে। কিন্তু নির্বাচনী জনসভা শেষে শুক্রবার সন্ধ্যার আগে প্রধানমন্ত্রী ফিরে যাবার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই অবৈধ দখলদাররা ফিরতে শুরু করে এবং রাতের মধ্যে স্ব-স্ব স্থানের দখল কায়েম করে নির্বিঘেœ।
গত রোববার থেকে নবগ্রাম রোড-চৌমাথা লেকের পাড়ের বিশাল ওয়াকওয়েতে সবাই প্রায় স্বাচ্ছন্দ্যে ঘুরে বেড়ালেও শনিবার থেকে সে পথও রুদ্ধ হয়ে গেছে। লেকটির পশ্চিম-দক্ষিণ কোনে স্থানীয় অধিবাসী ও দক্ষিণাঞ্চলে তাবলীগের প্রধান কেন্দ্র চৌমাথা মারকাজ মসজিদের মুসুল্লীদের অজু-গোসলের জন্য নির্মিত ঘাটলাটির প্রবেশ পথও আটকে দিয়েছে পথ খাবারের দোকানগুলো।
শতাধিক পথ খাবারের দোকানের কারণে প্রায় ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত বরিশাল মহানগরীর সৌন্দর্য বর্ধনকৃত ‘নবগ্রাম রোড-চৌমাথা লেকটি ইতোপূর্বে নগরবাসীর গলার কাটা হয়ে উঠেছে। নতুন নগর পরিষদও বিষয়টি নিয়ে চরম বিব্রত। তবে ওইসব অবৈধ স্থাপনার দখল কায়েমের পেছনে  নগর পরিষদের একজন কাউন্সিললের ভূমিকা আছে এমন অভিযোগ এলাকাবাসীর। এসব অবৈধ দোকানের কারণে দেশের ৮ নম্বর জাতীয় মহাসড়কটির এ অংশে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনার ঝুঁকি বাড়ছে। লেকটির উত্তর প্রান্তে সড়ক অধিদপ্তরের জমি দখল করে জাতীয় মহাসড়কের ওপর নির্মিত শিশু পার্কটিও ইতোমধ্যে নগরীর অন্যতম দুর্ঘটনাস্থলে পরিনত হয়েছে। নতুন নগর পরিষদও বিদায়ী পরিষদের বিবেকহীন এ কর্মকান্ড নিয়ে যথেষ্ট উদ্বিগ্ন। এমনকি এ পার্ক নির্মানের নামে সিটি করপোরেশনেরই ‘রাজকুমার ঘোষ রোডটির সাথে মহাসড়কের সংযোগ স্থলটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ফলে এখানে অন্তত ৩শ পরিবার সহ দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকদের চলাচলের সহজ পথ রুদ্ধ করেছে সিটি করপোরেশন। এ পার্কটির বিষয়ে সড়ক অধিদপ্তর ও নগর ভবন কোন সিদ্ধান্ত নেবেন কিনা তা জানা যায়নি। তবে বরিশাল সদর আসনের এমপি ও আসন্ন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জাহিদ ফারুক ‘স্থানীয় গণমানুষ না চাইলে পার্কটি অপসারণের বিষয়টি বিবেচনার কথা জানিয়েছেন । লেকটির পাড় থেকে অবৈধ পথ খাবারের দোকানপাট উচ্ছেদের পরে তা পুনর্বহালে স্থানীয় এলাকাবাসী, মুসল্লী সহ ঐ মহাসড়ক ব্যবহারকারী এবং নগরীর বেশীরভাগ মানুষ ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT