প্রতিটি কেন্দ্রে থাকবে ১৫ থেকে ১৭ জন আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বহিনীর সদস্য প্রতিটি কেন্দ্রে থাকবে ১৫ থেকে ১৭ জন আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বহিনীর সদস্য - ajkerparibartan.com
প্রতিটি কেন্দ্রে থাকবে ১৫ থেকে ১৭ জন আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বহিনীর সদস্য

3:28 pm , December 24, 2023

বরিশাল জেলার ৩ টি উপজেলা দুর্গম হিসেবে চিহ্নিত
হেলাল উদ্দিন ॥ আগামী ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিন প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ-আনসারসহ বিভিন্ন বাহিনীর ১৫ থেকে ১৭ জন করে সদস্য মোতায়েন থাকবেন। তবে কেন্দ্রের বাইরে সশস্ত্র বাহিনী, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি), র‌্যাব ভ্রাম্যমাণ ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে দায়িত্ব পালন করবে। এ ছাড়া পুলিশ ও সহযোগী হিসেবে আনসার বাহিনীও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে দায়িত্ব পালন করবে। উপকূলীয় এলাকায় নৌ-বাহিনী ও কোস্টগার্ড দায়িত্বে থাকবে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত পরিপত্র জারি করা হয়েছে। এদিকে অপর একটি প্রজ্ঞাপনে ৯ জানুয়ারী পর্যন্ত লাইসেন্সধারীদের আগ্নেয়াস্ত্র বহন ও প্রদর্শনে নিষেধাজ্ঞা প্রদান করা হয়েছে। জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. মোস্তাফিজুর রহমান স্বাক্ষরিত পরিপত্রে বলা হয়, ‘২৯ ডিসেম্বর থেকে সশস্ত্র বাহিনী দায়িত্ব পালন শুরু করবে। যাতায়াত সময়সহ ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত এই দায়িত্ব পালন করা হবে। বরিশাল জেলায় ৬ টি আসনে মোট কেন্দ্র রয়েছে ৮২৭ টি। এই কেন্দ্রগুলোকে সাধারন ও বিশেষ দুটি ভাগে বিভক্ত করা হবে। জেলার মধ্যে হিজলা, মুলাদী ও মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলা কে দুর্গম উপজেলা হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। পরিপত্রে বলা হয়েছে মেট্রো এলাকার বাইরে প্রতিটি সাধারণ ভোটকেন্দ্রে অস্ত্রসহ দুজন পুলিশ সদস্য, একজন আনসার সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। এ ছাড়া অস্ত্র বা লাঠিসহ একজন আনসার, আনসার ও ভিডিপির ৪ জন নারী ও ৬ জন পুরুষ সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। অবশ্য গুরুত্বপূর্ণ (ঝুঁকিপূর্ণ) ভোটকেন্দ্রে একজন করে অস্ত্রধারী পুলিশ বাড়বে। প্রতিটি কেন্দ্রেই চৌকিদার বা দফাদার দায়িত্ব পালন করবে। তবে মেট্রোপলিটন এলাকার সাধারণ ভোটকেন্দ্রে পুলিশের তিনজন করে সশস্ত্র সদস্য থাকবেন। পুলিশ কমিশনার এবং পুলিশ সুপার গুরুত্ব বিবেচনায় রিটার্নিং কর্মকর্তার পরামর্শে ভোটকেন্দ্রে পুলিশ ও আনসার সদস্য বাড়াতে পারবেন। বরিশাল জেলার রিটার্নিং অফিসার মোঃ শহিদুল ইসলাম বলেন পরিপত্র ও সার্বিক পরিস্থিতি অনুযায়ী আইন শৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হবে। তিনি আরো বলেন সাধারন ও গুরুত্বপূর্ন কেন্দ্র নির্ধারন করতে এখনো কাজ চলছে। খুব দ্রুত সাধারন ও বিশেষ কেন্দ্র সিলেক্ট করা হবে। পরিপত্রে বলা হয়েছে র‌্যাব, বিজিবি, কোস্টগার্ড, আর্মড পুলিশ ও আনসার ব্যাটালিয়ন স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে দায়িত্ব পালন করবে। র‌্যাব, ভ্রাম্যমাণ ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি নির্বাচনী এলাকায় সামগ্রিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি রক্ষায় কাজ করবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় প্রয়োজনে হেলিকপ্টার ও ডগ স্কয়াড ব্যবহার করতে পারবে র‌্যাব ও বিজিবি। বিজিবি জেলা, উপজেলা ও থানা এলাকা এবং কোস্টগার্ড উপকূলীয় এলাকায় দায়িত্বে থাকবে। রিটার্নিং কর্মকর্তা বা প্রিসাইডিং কর্মকর্তার চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে ভোটকেন্দ্রের ভেতর কিংবা ভোট গণনা কক্ষের শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় দায়িত্ব পালন করতে পারবে র‌্যাব ও বিজিবি। পরিপত্রে আরো বলা হয়েছে, ভোটকেন্দ্রের চৌহদ্দির মধ্যে ধূমপান করা যাবে না, ওই এলাকায় দিয়াশলাই বা লাইটারসহ কোনো ধরনের দাহ্যবস্তু বহন করা যাবে না। ভোটকেন্দ্রের ভেতর বৈদ্যুতিক হিটার বা যে কোনো ধরনের চুলা সম্পূর্ণ নিষেধ করা হয়েছে। তিনদিন বন্ধ থাকবে মোটরসাইকেল চলাচল: ৭ জানুয়ারি নির্বাচন কেন্দ্র করে ৫ জানুয়ারি থেকে ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত তিনদিন নির্বাচনী এলাকাগুলোতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছে
জননিরাপত্তা বিভাগের পরিপত্রে। ৫ জানুয়ারি মধ্যরাত ১২টা থেকে ৮ জানুয়ারি মধ্যরাত পর্যন্ত নির্বাচনী এলাকায় মোটরসাইকেল চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে। এ ছাড়া ৬ জানুয়ারি রাত ১২টা থেকে ৭ জানুয়ারি রাত ১২টা পর্যন্ত নির্বাচনী এলাকায় ট্যাক্সিক্যাব, মাইক্রোবাস, পিকআপ, ট্রাক, লঞ্চ, ইঞ্জিনচালিত নৌকাসহ (নির্দিষ্ট রুটে চলাচলকারী ব্যতীত) অন্যান্য
যানবাহন চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে। তবে নির্বাচনী প্রার্থী, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, সশস্ত্র বাহিনী, প্রশাসন ও অনুমতিপ্রাপ্ত পর্যবেক্ষক এবং নির্বাচনী এজেন্টদের জন্য এসব নির্দেশ প্রযোজ্য হবে না। পর্যবেক্ষক, পোলিং এজেন্টদের যানবাহনে নির্বাচন কমিশনের দেওয়া স্টিকার ব্যবহার করতে হবে। জাতীয় মহাসড়কের ক্ষেত্রে এই নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। পরিপত্রে নির্বাচনী ফলাফল দ্রুততার সঙ্গে প্রেরণের জন্য সংশ্লিষ্ট এলাকার টেলিফোন, ফ্যাক্স ও ইন্টারনেট সংযোগ সচল রাখতে বলা হয়েছে। কোনো অবস্থাতেই জেলা প্রশাসক বা ক্ষমতাপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নির্দেশ ছাড়া বেসরকারি যানবাহন ব্যবহার করা যাবে না বলে এতে বলা হয়।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT