১৯ কোটি টাকা বেতন বকেয়া রেখে দেয়া হয় অতিরিক্ত জনবল নিয়োগ ১৯ কোটি টাকা বেতন বকেয়া রেখে দেয়া হয় অতিরিক্ত জনবল নিয়োগ - ajkerparibartan.com
১৯ কোটি টাকা বেতন বকেয়া রেখে দেয়া হয় অতিরিক্ত জনবল নিয়োগ

3:03 pm , December 8, 2023

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ পঞ্চম পরিষদকে আর্থিক সংকটে ফেলতে অনিয়মতান্ত্রিকভাবে নিয়োগ দেয়া জনবল বাতিল করা হয়েছে। চতুর্থ পরিষদের অবৈধভাবে নিয়োগ দেয়া ১৩৪ জনকে গত বৃহস্পতিবার বাতিলের নোটিশ দেয়া হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেন সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মাসুমা আক্তার। এছাড়াও চতুর্থ পরিষদের আমলে অনিয়মতান্ত্রিকভাবে চাকুরিচ্যুত ৩১ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বহাল করেছেন সিটি মেয়র আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ খোকন সেরনিয়াবাত। চতুর্থ পরিষদের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ অব্যাহতির নেয়ার পূর্বে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ১৯ কোটি টাকা বকেয়া রেখে যান। বরিশাল সিটি কর্পোরেশন সুত্রে জানা গেছে, গত ১২ জুন বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের ভোট হয়। এতে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ পঞ্চম পরিষদের মেয়র নির্বাচিত হন। নির্বাচনের পর দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় চতুর্থ পরিষদের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ আগষ্ট ও সেপ্টেম্বর মাসে প্রায় ৩শ’জনকে সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন শাখায় অস্থায়ী ভিত্তিতে নিয়োগ দেন। নিয়োগের বিষয়টি জানতে পেরে সিটি কর্পোরেশনের দায়িত্ব নেয়ার পূর্বেই বর্তমান মেয়র আবুল খায়ের ওই অস্থায়ী ভিত্তিতে নিয়োগ নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। এছাড়াও নিয়োগকে অপ্রয়োজনীয় ও তাকে ঝামেলায় ফেলতে নিয়োগ দেয়া হয় বলে দাবি করেন সিটি মেয়র আবুল খায়ের। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬ টার দিকে সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসন, হাটবাজার, পরিছন্নতা, ভান্ডার, বিদ্যুৎ সম্পত্তি, জন্ম নিবন্ধন, প্রকৌশল, সিটি নিরাপত্তা, কর আদায়, সম্পত্তি, বাণিজ্য ও জনসংযোগসহ কয়েকটি শাখায় কর্মরত ১৩৪ জন কর্মচারীকে চাকরিচ্যুত করার নোটিশ টানিয়ে দেয়া হয়। সিটি কর্পোরেশনের নোটিশ বোর্ডেও টানিয়ে দেয়া ছাড়াও ৫১ জন কর্মচারীকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কর্মস্থলে আসার জন্য নিষেধ করা হয়। আগামী রোববার তাদের চূড়ান্তভাবে চাকুরিচ্যুত করা হবে। এদিকে আরেক নোটিশে দেখা গেছে, সাবেক মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহর দায়িত্বথাকাকালীন সময়ে চাকুরিচ্যুত ৩১ জনকে পূন.নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ২৫ জনের বিল ছাড় হয়েছে। ১৬ জনের বিল শিঘ্রই ছাড় হবে। এ বিষয়ে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ খোকন সেরনিয়াবাতের সাথে যোগাযোগ করলে তার একান্ত সহকারী মো. রুবেল হাওলাদার বলেন, নতুন মেয়র শপথ নেওয়ার পর তাকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলতে অপ্রয়োজনী ও অবৈধ নিয়োগ দেয়া হয়। সকলকে দুই মাসের আগাম বেতন দিয়ে সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন শাখায় নিয়োগ দেয় চতুর্থ পরিষদ। রুবেল হাওলাদার আরো জানান, সাবেক মেয়র সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ১৯ কোটি টাকা বকেয়া রেখে গেছেন। সিটি কর্পোরেশনের ৩৯ জন স্থায়ী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অবৈধভাবে চাকুরিচ্যুত করেছেন। ওএসডি করা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের খোড়পোষের ভাতাও দেননি। সকলে মানবেতর জীবন-যাপন করেছেন। এখন তাদের পূর্নবাসনের প্রক্রিয়া চলছে। বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মাসুমা আক্তার বলেন, তাদের যতটা কর্মচারী প্রয়োজন তার চেয়েও দ্বিগুন রয়েছে। যাদের বাদ দেয়া হয়েছে, তারা দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া কর্মচারী। নিয়োগ দেওয়ার সময় শর্ত ছিল যখন কর্তৃপক্ষ চাইলে নিয়োগ বাতিল করতে পারবে। তাই ১৩৪ জনের নিয়োগ বাতিল করা হয়েছে। বাকি ৫১ জনের নিয়োগ রোববার বাতিল করা হবে।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT