বেহাল সড়ক : আরো তিনমাস দুর্ভোগ পোহাতে হবে নগরবাসীকে বেহাল সড়ক : আরো তিনমাস দুর্ভোগ পোহাতে হবে নগরবাসীকে - ajkerparibartan.com
বেহাল সড়ক : আরো তিনমাস দুর্ভোগ পোহাতে হবে নগরবাসীকে

3:17 pm , November 3, 2023

বিশেষ প্রতিবেদক ॥ বর্ষা নেই, তারপরও ময়লা দুর্গন্ধযুক্ত পানি জমে আছে সড়কের খানাখন্দে। সড়ক সংলগ্ন ড্রেন উপচে পড়া নোংরা পানি আর ভাঙাচূড়া ইট বিছানো পথে অতি সাবধানে অন্ত:সত্ত্বা নারীদের পথ চলার দৃশ্য চোখে পড়ে বরিশালের বেশিরভাগ অভ্যন্তরীণ সড়কে। বিশেষ করে অক্সফোর্ড মিশন রোড, মুসলিম গোরস্থান রোড, কালু শাহ সড়ক ছাড়াও বর্ধিত এলাকার ৮টি ওয়ার্ডের প্রায় সব সড়কেরই বেহাল চিত্র।  আর এই চিত্র খুব শীঘ্রই বদলে যাবে বলে স্বপ্ন দেখছেন বরিশাল সিটি করপোরেশনের বাসিন্দারা। কেননা নবনির্বাচিত মেয়র আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ দায়িত্ব নেয়া মাত্রই এসব সড়ক মেরামত বা সংস্কারের কাজ শুরু হয়ে যাবে বলে আশাবাদী সবাই। আর মেয়র খোকন সেরনিয়াবাত এর নির্বাচনী ইশতেহারও তাই বলছে। আগামী ১৪ নভেম্বর যদি নতুন মেয়র দায়িত্ব গ্রহণ করেনও সবকিছু বুঝে নিয়ে মাঠে নামতে কয়েকমাস সময় লাগবে বলে মনে করেন নগর চিন্তাবিদ কাজী এনায়েত হোসেন শিবলু। তিনি বলেন, সড়কের ভোগান্তি দূর করার আন্তরিক ইচ্ছা যদি থাকে তাহলেও তা চাক্ষুষ হতে আরো তিনমাস অপেক্ষা করতে হবে আমাদের।
অন্যদিকে নগরবাসীর দাবী, বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ অনেক সড়কের সংস্কার করেছেন। পাঁচ বছরের নিশ্চয়তা দিয়ে করা এসব সড়কগুলোতে ইতিমধ্যেই খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। বাংলা বাজার ও শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনের সড়ক যা উৎকৃষ্ট উদাহরণ। এর উপর মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহ শুধুমাত্র তার পছন্দের কাউন্সিলরদের এলাকার সড়ক ও ড্রেনেজ ব্যবস্থার সামান্য কিছু উন্নয়ন করেছেন। যেসব ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বা বাসিন্দা তার পছন্দ নয়, সেসব এলাকায় কোনো উন্নয়নই তিনি করেননি বলে অভিযোগ ২০ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জিয়াউর রহমান বিপ্লবের। নগরীর কালু শাহ সড়কের বেহাল দশা অবশ্য প্রয়াত মেয়র কামালের সময় থেকেই। মেয়র আহসান হাবিব কামালের বাড়িও এই সড়কে। তারপরও এ সড়কের কোনো উন্নয়ন হয়নি। যদিও এই সড়কে এখন বসবাস করেন বর্তমান মেয়র আবুল খায়ের আবদুল্লাহ খোকন সেরনিয়াবাত। গোরস্থান রোডের সড়কের টেন্ডার নিয়ে স্থানীয় কাউন্সিলর ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতার দ্বন্দ্বে এখানের অবস্থা এখন বিপদজনক। প্রতিদিনই ছোটখাটো দুর্ঘটনা লেগেই আছে এ সড়কে। যা ৩ নভেম্বর শুক্রবার সাবেক কাউন্সিলর ও বরিশাল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির এর মায়ের মৃত্যুতে জানাজায় অংশ নিতে আসা নগরীর গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গও  টের পেয়েছেন। বিসিক বা মড়কখোলা সড়কটি সংস্কার করে দেয়া হয়েছে দাবি করে প্যানেল মেয়র গাজী নঈমুল হোসেন লিটু বলেন, পর্যাপ্ত বরাদ্দ না থাকায় অনেক সড়কের কাজ অনুমোদন হয়েও থেমে আছে। যেসব সড়কের কথা বলা হচ্ছে, তার সবগুলোর টেন্ডারও হয়ে গেছে। কাজেই পছন্দ অপছন্দের এলাকা বলে কোনো অভিযোগ সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহর ক্ষেত্রে সঠিক নয়। কিছু কাজ এখন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলো ইচ্ছে করে দেরী করছে বলে জানান লিটু। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে,  নবনির্বাচিত মেয়র খোকন সেরনিয়াবাত দায়িত্ব গ্রহণের পরই এসব সড়কের কাজ শুরু হবে। তবে আগের টেন্ডারে হবে নাকি নতুন টেন্ডার এ নিয়েও রয়েছে শংকা।
বরিশাল সিটি করপোরেশন এলাকার আয়তন ৫৮ বর্গ কিলোমিটার।  জনসংখ্যা বর্তমানে প্রায় ৫ লাখ। সীমানা উত্তরে কাউনিয়া ও এয়ারপোর্ট থানা, দক্ষিণে বন্দর থানা এবং নলছিটি ও বাকেরগঞ্জ উপজেলা, পূর্বে কাউনিয়া ও বন্দর থানা, পশ্চিমে এয়ারপোর্ট ও কোতোয়ালী থানা এবং নলছিটি উপজেলা।
বরিশাল সিটি করপোরেশন ঘোষণা করা হয় ২০০১ সালের ২৫ জুলাই। আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয় ২০০২ সালে। আর প্রথম নির্বাচন হয় ২০০৩ সালে। বর্তমানে ৩ টি থানা, ৩০ টি ওয়ার্ড এবং ১২৫টি মহল্লা নিয়ে গঠিত বরিশাল সিটি করপোরেশন এলাকা। রাজধানী ঢাকার সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ে এখানের ৫২ হাজার বাড়ির হাউজিং ট্যাক্স ও বাড়ি ভাড়া। অথচ পাল্লা দিয়ে বাড়েনা শহরের উন্নয়ন। প্রধান তিনটি সড়ক  বাদ দিলে সিটি করপোরেশন এলাকার প্রতিটি সড়কের এখানে বেহাল দশা। সামান্য বৃষ্টিতেই ডুবে যায় বাড়িঘর। জোয়ারের পানি আর বৃষ্টির জলের জলাবদ্ধতা দূর করতে ঢাকার সাথে পালা দিয়ে বাড়ে বিভিন্ন বাজারী কৌশল। উৎখাতের চিত্রও দেখা যায়। তবে জলাবদ্ধতা দূর হতে চায়না কখনোই।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT