নির্ভেজাল তাল শাঁসের কদর বেড়েছে নির্ভেজাল তাল শাঁসের কদর বেড়েছে - ajkerparibartan.com
নির্ভেজাল তাল শাঁসের কদর বেড়েছে

4:02 pm , May 18, 2023

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ ঘূর্ণিঝড় মোখার আতঙ্ক কেটে যাওয়ার পরেরদিন সোমবার সন্ধ্যায় বরিশালে মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাত হলেও কমেনি গরম। তীব্র গরমের মধ্যে একটু স্বস্তি পেতে শৌখিন ক্রেতা থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষের কাছে মধু মাসের ফল তাল শাঁসের কদর বেড়েছে। সহজলভ্য ও মুখরোচক হওয়ায় বিভিন্ন বয়সের মানুষের পছন্দের তালিকায় রয়েছে তাল শাঁস। পুষ্টিগুণে ভরপুর  তালের নরম কচি শাঁস খেতে সুস্বাদু হওয়ায় বর্তমানে এর চাহিদা বেড়েছে। মঙ্গলবার বরিশাল নগরীর বিভিন্ন সড়কের মোড়ে মোড়ে দেখা গেছে, মৌসুমী তাল শাঁস বিক্রেতারা ভ্যানযোগে ঘুরে কচি তাল শাঁস বিক্রি করছেন। অনেক শৌখিন ক্রেতাকে দেখা গেছে, পরিবারের সদস্যদের জন্য এক ছড়া হিসেবে তাল শাঁস ক্রয় করে নিয়ে যাচ্ছে। নগরীর সদর রোডে বসে কথা হয় মৌসুমী তাল শাঁস বিক্রেতা স্বপন সরদারের সাথে। তার সাথে কথা বলে জানা যায়, তিনি এ মৌসুমে জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে তাল সংগ্রহ করে নগরীতে এনে খুচরামূল্যে বিক্রি করেন। অন্য সময় পেশা হিসেবে তিনি রিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন।
স্বপন সরদার বলেন, ক্রেতাদের মধ্যে কেউ একটু তরল, আবার কেউ একটু শক্ত তাল শাঁস পছন্দ করেন। প্রতিদিন তিনি ৫০ থেকে ৬০ ছড়া তাল বিক্রি করেন। স্বপন আরও জানায়, প্রতি পিস তাল তার পাইকারি দামে আট টাকা করে ক্রয় করতে হয়। আর তিনি খুচরা পর্যায়ে ১৫ থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি করেন। গত কয়েকদিন থেকে একবেলা তাল শাঁস বিক্রি করে তার ১২’শ টাকার মতো বাড়তি আয় হচ্ছে।
অপর বিক্রেতা রশিদ মোল্লা জানান, অন্যান্য বছরের মতো এবছরও তিনি গ্রামাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকা থেকে তাল শাঁস পাইকারী হিসেবে ক্রয় করে ভ্যানযোগে পাড়া ও মহল্লায় ঘুরে বিক্রি করছেন। এবছর গরম বেশী হওয়ায় এবং কোন রকম ফরমালিন বা মানবদেহের জন্য ক্ষতিকারক কিছু মেশানো সম্ভব নয় বলে সবার কাছে তাল শাঁসের চাহিদা বেড়েছে। তবে এবার ফলন কম হওয়ায় দাম কিছুটা বাড়তি দাবি করে তিনি আরও জানান, গ্রামের এক একটি তাল গাছ আগেভাগেই পাঁচশ’ টাকা থেকে এক হাজার টাকায় সিজন হিসেবে ক্রয় করে রাখেন। পরে সেই তাল গাছ থেকে তাল শাঁস সংগ্রহ করে ভ্যানযোগে বিভিন্নস্থানে ঘুরে বিক্রি করা হয়। ভালো ফলন হলে খরচ বাদে সেই গাছের তাল বিক্রি করে দুই থেকে তিন হাজার টাকা পর্যন্ত আয় হয়। রশিদ মোল্লা বলেন, শৌখিন ক্রেতাদের কাছে চাহিদা থাকলেও ফলন কম হওয়ায় এবার তাল শাঁস বিক্রিতে তেমন সময় লাগছে না। শৌখিন ক্রেতাদের পাশাপাশি স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থী ও পথচারীরা প্রচন্ড গরমে একটু স্বস্তি পেতে ভিড় করছেন তাল শাঁস বিক্রেতাদের কাছে।
নগরীর জিলা স্কুল মোড়ে বসে কথা হয় শৌখিন ক্রেতা নাজমুল সানীর সাথে। তিনি বলেন, এবছর তাল শাঁসের দাম একটু বেশি হলেও এটা মৌসুমি ফল হওয়ার পাশাপাশি পুষ্টিকর ও ভেজালমুক্ত ফল। এ কারণে নিজে খাওয়ার পাশাপাশি পরিবারের সবার জন্য আমি তাল শাঁস ক্রয় করে নিয়ে যাচ্ছি।
কি এমন গুণাগুণ রয়েছে কচি তালের শাঁসে জানতে চাইলে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. মীর্জা মো. মাহাবুব বলেন, একটি তাল শাঁসের ৯২ শতাংশই জলীয় অংশ, ক্যালরি থাকে ২৯, শর্করা ৬ দশমিক ৫ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ৪৩ মিলিগ্রাম, খনিজ শূন্য দশমিক ৫ মিলিগ্রাম, ভিটামিন সি ৪ মিলি গ্রাম। তিনি আরো বলেন, তাল শাঁসের বেশির ভাগ অংশ জলীয় হওয়ায় শরীরে পানির চাহিদা মেটাতে সক্ষম। প্রচন্ড তাপদাহের কারণে দ্রুত শরীর থেকে পানি বের হওয়ার ঘাঁটতি পূরণ করে তাল শাঁস। এছাড়াও তাল শাঁস শরীরকে দ্রুত শীতল করে। অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ হওয়ায় শরীরের কোষের ক্ষয় প্রতিরোধ করে। শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করে দেয়। সব বয়সের মানুষের মৌসুমী ফল তাল শাঁস খাওয়া উচিৎ বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT