‘মেয়রের পা ধরেও উন্নয়নমূলক কাজ আনতে পারিনি’ ‘মেয়রের পা ধরেও উন্নয়নমূলক কাজ আনতে পারিনি’ - ajkerparibartan.com
‘মেয়রের পা ধরেও উন্নয়নমূলক কাজ আনতে পারিনি’

4:05 pm , April 28, 2023

বিসিসি নির্বাচন-২০২৩
নিজস্ব প্রতিবেদক। মেয়রের পা ধরেও ওয়ার্ডের জন্য উন্নয়নমূলক কোনো কাজ আনতে পারিনি । ওয়ার্ডের আভ্যন্তরীণ ১৬ কিলোমিটার পাকা রাস্তার প্রায় সবটাই চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। পাঁচ বছর কাউন্সিলরের দায়িত্ব পালন করেও সর্বশেষ  হিরন সাহেবের সময়ে  করা এ সকল সড়কের বিন্দুমাত্র  কাজ করতে পারিনি । সাবেক মেয়রকে  ক্ষতিগ্রস্ত সড়কের প্রাক্কলন দিয়েও হয়নি কোন লাভ।  তাই এখন প্রায় সব সড়কগুলোই চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ছে । ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর মোঃ আজাদ হোসেন কালাম মোল্লা এমনটা জানিয়ে বলেন, আগামী ১২ জুন অনুষ্ঠিতব্য সিটি নির্বাচনে ৩০ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে  তিনি আবারো অংশগ্রহণ করছেন। নির্বাচিত হতে পারলে একজন ভালো  ও যোগ্য নগরপিতার অধীনে এবার করবেন ওয়ার্ড এর সার্বিক উন্নয়ন। এছাড়াও সমাধান করবেন মাদক, ইভটিজিং,  টিসিবির কার্ড ও বয়স্ক ভাতা নিয়ে দুর্নীতির মত বিষয়গুলো। নিশ্চিত করবেন ওয়ার্ডবাসীর সকল নাগরিক সুবিধার। আসন্ন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নিয়ে ওয়ার্ড পরিক্রমায়  দৈনিক আজকের পরিবর্তনের কাছে এ সব কথা বলেন ৩০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ আজাদ হোসেন কালাম মোল্লা। গতকাল ৩০ নং ওয়ার্ড পরিক্রমায় সাধারণ বাসিন্দাদের সাথে আলাপকালে তারা এই ওয়ার্ডের পাকা সড়কের বেহাল দশাকেই প্রধান  সমস্যা বলে জানিয়েছেন। তারা জানান, সড়কের সমস্যার সাথে সাথে এই ওয়ার্ডে রয়েছে আরও কিছু সমস্যা। এই ওয়ার্ডটিকে মাদকের অভয়ারণ্য বলে আখ্যায়িত করেছেন তারা। সকল ধরনের মাদক এখানে কেনাবেচা চলে। বাসিন্দারা অভিযোগ করে জানান, স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ও বর্তমান কাউন্সিলরের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ মদদে  মাদক সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে।
এটি  ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের একটি অন্যতম প্রধান সমস্যা। এছাড়াও রয়েছে টিসিবির  কার্ড বিতরণ নিয়ে অনিয়ম, সালিশ ব্যবস্থায় পক্ষপাতিত্বের মত বিষয়গুলো। এ সকল সমস্যার সবচেয়ে ভালো সমাধান যে দিবে তাকেই তারা ভোট দেবেন। ৩০ নং ওয়ার্ড থেকে  আজাদ হোসেন কালাম মোল্লা ছাড়াও কাউন্সিলর পদে আরো নির্বাচনে অংশ নেয়ার কথা জানিয়েছেন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা ও সাবেক কাউন্সিলর খায়রুল মামুন শাহীন। নির্বাচনে অংশগ্রহণের কারণ ও নির্বাচিত হতে পারলে জনগণের প্রত্যাশা কতটুকু পূরণ করতে পারবেন এমন প্রশ্নের জবাবে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা জানান, দলের সভাপতি হিসেবে ২০ বছরের অধিক সময় তিনি দায়িত্ব পালন করে আসছেন। জনগণকে নিয়েই তাই তার কাজ। তাই সাধারণ ভোটারদের সমস্যা এবং নাগরিক অসুবিধাগুলো তিনি ভালোই বোঝেন। বর্তমান প্রেক্ষাপট অন্যরকম জানিয়ে তিনি বলেন, ওয়ার্ডের সড়ক গুলোর বেহাল দশা, এছাড়াও রয়েছে মাদক ইভটিজিংসহ নানা ধরনের সমস্যা। এ সকল সমস্যা সমাধান করতেই তিনি নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাকেই এই ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেয়া হবে। নির্বাচনে অংশগ্রহণের আশা ব্যক্ত করলেও বর্তমানে এই ওয়ার্ডের ভোটার সংখ্যা কত তা জানতে চাইলে মোঃ গোলাম মোস্তফা বলতে পারেননি। অন্যদিকে অপর আরেক প্রার্থী সাবেক কাউন্সিলর মো : খায়রুল মামুন শাহীন জানান,  চলাচলের অযোগ্য  সড়ক,  মাদক ব্যবসা ও চুরি এই ওয়ার্ডের প্রধান সমস্যা বর্তমানে। এই ওয়ার্ডে প্রচুর পরিমাণে গরু চুরি হয়ে থাকে। নগরীর সর্বশেষ ওয়ার্ড হওয়ায়  সহজেই এখান থেকে গরু চুরি করে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা। ওয়ার্ডে চারটি সিসি রাস্তা ছাড়া সব রাস্তার অবস্থা খুবই খারাপ। ২০১৮ সালে সর্বশেষ দুটি সড়কের  সংষ্কার কাজ হয়। এরপরে আর কোন কাজই হয়নি। মাদককে এই ওয়ার্ডের একটি ভয়ংকর সমস্যা আখ্যা দিয়ে শাহীন বলেন, এই ওয়ার্ড এখন সব ধরনের মাদক ও মাধক বিক্রেতাদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে। যা বর্তমান জনবিচ্ছিন্ন কাউন্সিলর কালাম মোল্লা কোনভাবেই সমাধান করতে পারছেন না। শাহিন বলেন, কালাম মোল্লা নিজেও পরোক্ষভাবে এ সকল মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত বলে জনশ্রুতি রয়েছে।  এবারে ভোটে অংশগ্রহণ করে নির্বাচিত হতে পারলে সাধারণ ভোটারদের এ সকল সমস্যাই দূর করবেন বলে জানান মামুন।  শাহীন ২০১৩ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত এই ওয়ার্ডের কাউন্সিল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।উল্লেখ্য, আাগামী ১২ জুন বিসিসি নির্বাচন। বরিশাল সিটিতে বর্তমান ভোটারের সংখ্যা ২ লাখ ৭৪ হাজার ৯৯৫ জন।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT