বরিশাল কৃষি অঞ্চলের ১১ জেলায় বোরো আবাদ লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করতে যাচ্ছে বরিশাল কৃষি অঞ্চলের ১১ জেলায় বোরো আবাদ লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করতে যাচ্ছে - ajkerparibartan.com
বরিশাল কৃষি অঞ্চলের ১১ জেলায় বোরো আবাদ লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করতে যাচ্ছে

3:17 pm , March 5, 2023

বিশেষ প্রতিবেদক ॥ বরিশাল কৃষি অঞ্চলে ১৭ লাখ টন চাল উৎপাদনের লক্ষ্যে ৩ লাখ ৭০ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করতে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে দক্ষিণাঞ্চলের প্রায় ৩ লাখ ৫৩ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ সম্পন্ন করেছেন কৃষি যোদ্ধারা। যা লক্ষ্য মাত্রার প্রায় ৯৬%। চূড়ান্ত হিসেবের জন্য ১৫ মার্চ বোরো আবাদের শেষ দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। ফলে ১০ লক্ষাধিক টন খাদ্য উদ্বৃত্ত দক্ষিণাঞ্চলে চাল উৎপাদন লক্ষ্য অতিক্রমের ব্যপারে আশাবাদী কৃষিবীদরা। বীজতলা তৈরীর লক্ষ্য ইতিপূর্বে অতিক্রম করলেও পৌষের শুরু থেকে তাপমাত্রা অব্যাহতভাবে স্বাভাবিকের নিচে থাকার পাশাপাশি মাঝারী থেকে ঘন কুয়াশায় ‘কোল্ড ইনজুরী’তে কিছুটা ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছেন কৃষকরা। তবে ডিএই’র দায়িত্বশীল সূত্রের মতে এবার তাপমাত্রা স্বাভাবিকের নিচে নেমে যাবার সাথে আগেভাগে শীত বিদায় সহ মাঘের মধ্যভাগ থেকে তাপমাত্রা  উঠে যাওয়ায়  পরিবেশগত কিছু সমস্যা তৈরী হয়। তবে তা দক্ষিণাঞ্চলে বোরো আবাদ ও উৎপাদনের ক্ষেত্রে বড় কোন সমস্যা তৈরী করেনি। এবার রবি মৌসুমে দেশে ৪৯ লাখ ৭৭ হাজার ৬৬০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে রোববার পর্যন্ত ৪৭ লাখ ৬৭ হাজার ৩৩০ হেক্টরে আবাদ সম্পন্ন হয়েছে। যা মূল লক্ষ্যমাত্রার প্রায় ৯৬%। উৎপাদন লক্ষ্য রয়েছে ২ কোটি ১০ লাখ টনেরও বেশী। চলতি মৌসুমে রোববার আবাদকৃত জমির পরিমান গত বছরের একই সময়ের চেয়ে প্রায় ১ লাখ হেক্টর পেছনে রয়েছে বলে দায়িত্বশীল সূত্রে বলা হলেও ১৫ মার্চের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রমের ব্যপারে আশাবাদী কর্তৃপক্ষ। সমাপ্তপ্রায় রবি মৌসুমে দক্ষিণাঞ্চলের ১১ জেলায় বোরো ধান থেকে প্রায় ১৭ লাখ টন চাল পাবার লক্ষ্য স্থির করে ৩ লাখ ৬৮ হাজার হেক্টর জমিতে আবাদের লক্ষ্য স্থির করে কৃষি মন্ত্রণালয়। সদ্য সমাপ্ত খরিপ-২ মৌসুমে দক্ষিণাঞ্চলে ৮ লাখ ৫৭ হাজার ১৩৮ হেক্টর জমিতে আমন আবাদ লক্ষ্য অর্জিত হয়। ফলে এ অঞ্চলে প্রায় ২০ লাখ ৫৬ হাজার টন চাল উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করেছে বলে মনে করছে ডিএই’র দায়িত্বশীল মহল। বিগত খরিপ-১ মৌসুমে এ অঞ্চলে আবাদকৃত আউশ ধান থেকে  প্রায় ৬ লাখ টন চাল পাওয়া গেছে। দক্ষিণাঞ্চলে খরিপ-১, খরিপ-২ ও রবি মৌসুমেই ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াশ’,‘অশণি’ ও ‘সিত্রাং’এর মত ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগের বিরুদ্ধে লড়াই করতে হচ্ছে কৃষি যোদ্ধাদের।  একের এপর এক প্রাকৃতিক দুর্যোগ কৃষকদের ক্ষতির সাথে দুশ্চিন্তাকে বৃদ্ধি করলেও বরিশাল কৃষি অঞ্চলের ১১ জেলায় এবারের খরিপ-১, খরিপ-২ ও রবি মৌসুমে প্রায় ৫০ লাখ টন দানাদার খাদ্য ফসল উৎপাদনের ব্যাপারে আশাবাদী কৃষি মন্ত্রণালয়। এবার শীত মৌসুম শুরুর আগেই তাপমাত্রার পারদ স্বাভাবিকের নিচে নামতে থাকে। বরিশালে তাপমাত্রার পারদ এবার প্রায় ৮ ডিগ্রী সেলসিয়াসে নেমে যায়। যা ছিল স্বাভাবিকের প্রায় ৪ ডিগ্রী নিচে। দেশের বিভিন্ন এলাকার সাথে বরিশাল সহ দক্ষিণাঞ্চলের কয়েকটি জেলাও মৃদু থেকে মাঝারী শৈত্য প্রবাহের কবলে পড়ে ৩ দফায়। মাঘের শুরুতে তাপমাত্রা স্বাভাবিকের ২-৪ ডিগ্রী সেলসিয়াস নিচে নেমে যাবার সাথে উত্তর-পশ্চিমের হিমেল হাওয়ায় বোরো বীজতলা ‘কোল্ড ইনজুরির’ ঝুঁকির কবলে পড়লেও মধ্য মাঘ থেকে শীত উধাও হয়ে তাপমাত্রা স্বাভাবিকের ওপরে উঠে যায়। এমনকি পৌষের শুরু থেকে মাঘের প্রথমভাগে হাড় কাঁপানো শীতে কৃষক ও কৃষি শ্রমিকরা মাঠে নামতে পারেনি। প্রকৃতির বিরুদ্ধে লড়াই করে আউশ ও আমনের সফলতার পরে বরিশাল কৃষি অঞ্চলের ১১ জেলার কৃষি যোদ্ধারা আরো প্রায় সাড়ে ১৭ লাখ টন বোরো চাল পাবার লক্ষ্যে নিরন্তর সংগ্রাম করে চলেছেন। বরিশাল,পটুয়াখালী,ভোলা,মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ ও ফরিদপুরের বিস্তীর্ণ এলাকা সরেজমিনে ঘুরে লক্ষ্য করা গেছে কৃষি যোদ্ধাদের অবিরাম ব্যস্ততা। বিগত প্রায় ৩টি বছরের করোনা মহামারী সংকটে কৃষি যোদ্ধারাই সমগ্র দক্ষিণাঞ্চলের অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে মূখ্য ভূমিকা পালন করে। একের পর এক প্রাকৃতিক দুর্যোগ আর করোনা মহামারী সারা দেশের মত দক্ষিণাঞ্চলের অর্থনীতিতে যে বিরূপ পরিস্থিতি তৈরী করে, তা থেকে উত্তরণে কৃষক ও কৃষির ভূমিকা ছিল অপরিসীম। আর কৃষিনির্ভর দক্ষিণাঞ্চলের অর্থনীতিকে সচল রাখতে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছে কৃষিযোদ্ধারা। বিগত খরিপ-১ ও ২ মৌসুম সহ চলতি রবি মৌসুমে আউশ,আমন,বোরো, গম, ডাল,তেলবীজ ও তরমুজ সহ বিভিন্ন ধরনের শাক-সবজি উৎপাদনে প্রকৃতির বিরুদ্ধে লড়াই করেছে দক্ষিণাঞ্চলের কৃষি যোদ্ধারা। ১০ লক্ষাধিক টন খাদ্য উদ্বৃত্ত দক্ষিণাঞ্চলের কৃষি অর্থনীতি যথেষ্ট শক্ত অবস্থানে থাকলেও তা এখনো প্রায় পুরোটাই প্রকৃতি নির্ভর বলেই মনে করছেন কৃষিবীদরা। তবে চলমান বোরো আবাদ লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রমের পরে বড় কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না ঘটলে দক্ষিণাঞ্চলে খাদ্য উৎপাদন বেড়ে উদ্বৃত্তের পরিমান ১১ লাখ টনের কাছে পৌঁছবে বলে আশাবাদী মাঠ পর্যায়ের কৃষিবীদরা।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT