জীবন মৃত্যুর সন্ধিঃক্ষণে আলোকিত মানুষ আলো ভাই জীবন মৃত্যুর সন্ধিঃক্ষণে আলোকিত মানুষ আলো ভাই - ajkerparibartan.com
জীবন মৃত্যুর সন্ধিঃক্ষণে আলোকিত মানুষ আলো ভাই

5:21 pm , March 5, 2023

আরিফ আহমেদ, বিশেষ প্রতিবেদক ॥ জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে বরিশালের জনপ্রিয় সমাজসেবক, শিক্ষাবিদ এবং ক্রীড়া সংগঠক মোঃ আলমগীর হোসেন আলো। এই মুহুর্তে বাংলাদেশ স্পেশালিষ্ট হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার অবস্থা খুবই আশংকাজনক। তাকে দেখতে বাংলাদেশ স্পেশালিষ্ট হাসপাতালের আইসিইউতে যান পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্ণেল অব. জাহিদ ফারুক শামীম এমপি। তিনি দীর্ঘ সময় আলমগীর হোসেন আলোর পাশে থাকেন এবং তার সু-চিকিৎসার ব্যাপারে চিকিৎসকদের সাথে পরামর্শ করেন। অক্সিজেনের মাধ্যমে শ্বাসপ্রশ্বাস নিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের ডিউটি অফিসার ডাঃ ফরহাদ। তিনি জানান, গত শুক্রবার রাতে ৭০ বছর বয়সী আলমগীর হোসেন খানকে ভর্তি করা হয়েছে। আলমগীর হোসেন আলো ইন্টারনাল মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডাঃ মহিউদ্দিন এর ত্বত্তাবধানে আছেন বলে জানান ডাঃ ফরহাদ। বরিশাল জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন খান আলোর সুস্থতার জন্য বরিশালবাসীর কাছে দোয়া
চেয়েছেন তার পরিবারের সদস্যরা। রবিবার সকালে আলমগীর হোসেন আলোর ছোট ভাই বরিশাল সিটি করপোরেশনের ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর লিয়াকত হোসেন খান লাভলু দৈনিক আজকের পরিবর্তনকে জানান, গত শুক্রবার রাতে তাঁকে আমেরিকা থেকে দেশে আনা হয়েছে। এয়ারপোর্ট থেকেই সরাসরি সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে আইসিইউ সংকটের কারণে তাঁকে বাংলাদেশ স্পেশালিষ্ট হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। তাঁর শারীরিক অবস্থা খুব একটা ভালো নয় জানিয়ে পরিবারের পক্ষ থেকে তাঁর জন্য বরিশালবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন লিয়াকত হোসেন ।
আলমগীর হোসেন খান আলো বরিশালের বেশিরভাগ মানুষের কাছে আলো ভাই হিসেবে পরিচিত। তরুণ বয়সে তিনি একজন দক্ষ ফুটবলার ছিলেন। বরিশালের ক্রীড়া সংগঠক আসাদুজ্জামান খসরু বলেন, ছোটবেলা থেকেই ফুটবল ও ক্রিকেটে দক্ষ খেলোয়াড় ছিলেন আলমগীর হোসেন খান আলো। তখন থেকেই বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনের সাথে যুক্ত রয়েছেন তিনি। বরিশাল জেলা ও বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার বিভিন্ন পদে সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন।
খসরু বলেন, যতদূর মনে আছে ১৯৮৮ সালে আলমগীর হোসেন খান আলো প্রথম বরিশাল আব্দুর রব সেরনিয়াবাত স্টেডিয়ামের এডহক কমিটির সেক্রেটারি হন। ১৯৯২ সালে জেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচনে আলো ভাই প্রথম সাধারণ সম্পাদক হন। এই কমিটি ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। এরপর থেকে আজ পর্যন্ত গত ২৪ বছর ধরে এডহক কমিটি চলছে। কখনো আলো ভাই, কখনো ফেরদৌস, কখনো আমি সেক্রেটারি। এভাবেই চলছে জেলা। পাশাপাশি ২০০৯ সালে আলমগীর হোসেন খান আলো প্রথম বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সেক্রেটারি হন। তার উদ্যোগেই বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচন হয়। আমি, সাইদুর রহমান রিন্টু এরা সহ সভাপতি হই। ২০১৪ সালে তিনি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক হন। ২০১৮ সালেও তিনি পরিচালক হয়ে আজ পর্যন্ত দায়িত্বে রয়েছেন বলে জানান আসাদুজ্জামান খসরু। তিনি আরো বলেন, আলমগীর হোসেন আলো বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন ও জেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের দায়িত্ব পালন করেছেন দীর্ঘদিন।
আলমগীর খান আলো সন্তানের অসুস্থতার সংবাদে আমেরিকা ছুটে যান। সেখানে গিয়ে গত ১২ জানুয়ারী তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। আলোর একমাত্র পুত্র ফয়সাল খান ও শুভাকাঙ্খি মঞ্জরুল আহসান ফেরদৌস এসময় তার পাশেই ছিলেন। ফেরদৌস জানান, আলমগীর খান আলো আমেরিকায় তার অসুস্থ ছেলেকে দেখতে গিয়েছিলেন। সেখানে গিয়ে তিনি নিজেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। বর্তমানে তার শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ । তাকে প্রথমে ডালাসের একটি হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসকের নিবিড় পর্যবেক্ষনে রাখা হয়। পরবর্তীতে গত বুধবার ১ মার্চ তাকে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। কেননা, তিনি কিছুতেই আমেরিকায় থাকতে রাজী হননি। দেশের মাটিতে, দেশের মানুষের মাঝেই তিনি থাকতে চান বলে তার সন্তান ও পরিবারের সম্মতি নিয়ে তাকে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।
এদিকে তার সুস্বাস্থ্যের জন্য দোয়া কামনা করে বরিশাল সাহিত্য সংসদের সহ সভাপতি ও বরিশাল অর্থনীতি সমিতির সভাপতি কাজী মিজানুর রহমান দৈনিক আজকের পরিবর্তনকে বলেন, আমাদের প্রতিবেশী আলমগীর হোসেন খান আলো একজন চমৎকার উদারমনা মানুষ। একজন ফুটবলার, ক্রীড়া সংগঠক, ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার, পরে বিএম কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে পড়াশুনা করেছেন। একজন প্রথম শ্রেনীর ঠিকাদারও ছিলেন তিনি। তৎকালীন পৌরসভার কমিশনার ছিলেন। ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক। বড় আত্মার মানুষ। আমাদের ক্লাবের জন্য ফুটবল, ক্রিকেট এর জন্য আর্থিক সহযোগীতা করেছেন।
বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনের বহুমুখী সংগঠক ছাড়াও তিনি মসজিদ, মাদ্রাসাসহ বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দীর্ঘ বছর ধরে সুনামের সাথে সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তার এই অসুস্থতার খবর নিজ এলাকায় ছড়িয়ে পরলে শুক্রবার বাদ জুম্মা প্রতিটি মসজিদে রোগমুক্তির জন্য দোয়া করা হয়।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT