শেবাচিম হাসপাতালের পরিবেশ দেখে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অসন্তোষ প্রকাশ শেবাচিম হাসপাতালের পরিবেশ দেখে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অসন্তোষ প্রকাশ - ajkerparibartan.com
শেবাচিম হাসপাতালের পরিবেশ দেখে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অসন্তোষ প্রকাশ

3:30 pm , January 19, 2023

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥  বরিশাল শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আরো এক হাজার বেড বৃদ্ধিসহ পুরাতন ভবন ভেঙ্গে নতুন ভবন তৈরীসহ চিকিৎসা ব্যবস্থার আধুনিকায়নের বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বৃহস্পতিবার সকালে বরিশালের সুকান্ত শিশু হাসপাতাল, নবনির্মিত ক্যান্সার হাসপাতাল ও দক্ষিণ অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে দেখেন এবং শেবাচিমের পরিবেশ নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। পরে শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ চত্বরে দাঁড়িয়ে সংক্ষিপ্ত সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘শেবাচিমের বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে যা দেখলাম, তাতে চিত্রটা ভালো মনে হলো না। কারণ অনেক বেশি রোগী, ফলে মেঝে পা ফেলার জায়গা নেই। নতুন ভবনে মেডিসিন ইউনিট নেয়া হয়েছে, তারপরও সেখানে দেখলাম করিডোরে অনেক রোগী। আর পুরাতন ভবনেও তো অনেক রোগী, যেখানে মেঝেতেও রোগী রয়েছে।
‘রোগীরা চিকিৎসাটা যেভাবে নিচ্ছে সেটা আমাদের কাঙ্খিত নয়। আমরা চাই দেশের প্রত্যেকটা রোগী বেডে থেকে সম্মানের সাথে চিকিৎসা নেবে। এটাই প্রধানমন্ত্রীর অঙ্গীকার, নির্দেশনা, ইচ্ছে ও আশা। আমরা চেষ্টা করছি সেটা বাস্তবায়নের।’
তিনি আরও বলেন, ‘শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুরনো ভবনের মেঝে ও দেয়াল ঠিক নেই। ৫৫ থেকে ৬০ বছর হয়ে গেছে ভবনের বয়স, ফলে এখানে অবকাঠামোর খুবই অবনতি হয়েছে। আমি মনে করি এখানে নতুন অবকাঠামো হওয়া প্রয়োজন।’ যত দ্রুত সম্ভব আমরা এই ভবনের অবকাঠামো পরিবর্তনের উদ্যোগ নেব।
এর আগে সকালে নগরীর আমানতগঞ্জ এলাকায় নির্মানাধীন শহীদ সুকান্ত বাবু শিশু হাসপাতাল ভবন পরিদর্শনে যান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। সেখানে তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান রিন্টু। এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডাঃ আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম, বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. মো. হুমায়ুন শাহীন খান, সিভিল সার্জন ডা. মারিয়া হাসানসহ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও  গণপূর্ত অধিদপ্তরের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ। মন্ত্রী শহীদ সুকান্ত বাবু শিশু হাসপাতালের ভবন নির্মান কাজের অগ্রগতি সম্পর্কে জানতে চাইলে প্রকৌশলীরা জানান, ২০১৭ সালে ২৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ভবনটি নির্মান কাজ শুরু হয় এবং ২০১৯ সালে এর নির্মান কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিলো। তবে করোনাসহ নানা কারনে এর নির্মান কাজ এখনও শেষ হয়নি। চলতি বছরের জুন মাসের মধ্যে ভবনটি হস্তান্তর করার কাজ এগিয়ে চলছে। মন্ত্রী নির্মান কাজ শেষ হওয়ার মেয়াদের পরও তিন বছর অতিবাহিত হওয়ায় বিস্ময় প্রকাশ করেন এবং বিলম্ব হওয়ার কারন জানতে চান। তখন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষে সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান রিন্টু মন্ত্রীকে জানান, প্রথমে জমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়ার কারনে নির্মান কাজ শুরুতে বিলম্ব হয়েছে। এরপর পুকুর ভরাটসহ নানা সমস্যা সমাধানে এক বছর শেষ হয়ে গেছে। এছাড়া  আশপাশের ভবনে ফাটল ধরায় পাইল ড্রাইভের প্রক্রিয়ায় বিলম্ব হয়েছে। তবে বর্তমান নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাজ শেষ হওয়ার কথা জানান তিনি।
এসময় স্বাস্থ্য মন্ত্রী বরিশালের সুকান্ত বাবু শিশু হাসপাতাল ও ক্যান্সার হাসপাতালটি দ্রুত চালু করতে নির্দেশনা দিয়েছেন।
মন্ত্রী শহীদ সুকান্ত বাবু শিশু হাসপাতালটির চারতলা ভবন ঘুরে দেখে খুবই ভালো লেগেছে জানিয়ে বলেন, এটি একটি অত্যাধুনিক শিশু হাসপাতাল হবে।
ক্যান্সার হাসপাতালের কাজে খুবই ধীরগতি স্বীকার করে জাহিদ মালিক এটি দ্রুত সম্পন্ন করার নির্দেশনা দিয়েছেন। এ সময় তিনি বলেন, এটি তৈরি সম্পন্ন হলে দক্ষিনাঞ্চলের মানুষের ক্যান্সার চিকিৎসার জন্য আর ঢাকামুখী হতে হবে না।
তিনি হাসপাতালে যারা কাজ করেন তাদের উদ্দেশ্য করে বলেন, আপনারা নিজেরা সবসময় উপস্থিত থাকবেন, যন্ত্রপাতি সচল রাখবেন, হাসপাতাল পরিষ্কার রাখবেন এবং যারা সেবা নিতে আসবে তাদের উন্নত সেবা দেয়ার চেষ্টা করবেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT