সমাবেশ নাকি লাইসেন্স, দ্বিধা বিভক্তিতে ইজিবাইক শ্রমিকরা সমাবেশ নাকি লাইসেন্স, দ্বিধা বিভক্তিতে ইজিবাইক শ্রমিকরা - ajkerparibartan.com
সমাবেশ নাকি লাইসেন্স, দ্বিধা বিভক্তিতে ইজিবাইক শ্রমিকরা

3:29 pm , January 19, 2023

আরিফ আহমেদ, বিশেষ প্রতিবেদক ॥ একদিকে ছয়দফা দাবীতে বিভাগীয় সমাবেশ। অন্যদিকে সিটি কর্পোরেশন এলাকায় গাড়ি চালাতে হলে জরুরী লাইসেন্স নেওয়ার আহবান কর্তৃপক্ষের। কোনটি করবে, নগরীর ইজিবাইক চালকরা? এ নিয়ে দ্বিধা বিভক্তি দেখা গেছে ইজিবাইক ও অটোরিকশা শ্রমিকদের মধ্যে। ফলে সমাবেশে অংশ নিতে বলপ্রয়োগ আবার অংশ না নিতেও হুমকি ধামকির অভিযোগ করেছেন শ্রমিকদের অনেকে। সরেজমিনে বৃহস্পতিবার সকালে নগরীর আমতলা মোড়, রূপাতলী ও চাদমারী এলাকায় দেখা গেছে সমাবেশে অংশ না নেওয়া চালকদের জোর করে যেতে বাধ্য করছে অন্য শ্রমিকদের একটি দল। এ নিয়ে কথা-কাটাকাটি থেকে ইজিবাইক ভাংচুরের ঘটনাও ঘটেছে। ভাঙচুরের শিকার চালক কান্নাকাটি করে বলছেন, ‘ওরে মুই তোগো লগে গেলে শহরে আর থাকতে দেবে না মোরে’। চাদমারিতে এই বেদনাদায়ক ভয়ের দৃশ্য প্রত্যক্ষ করেছেন অনেক পথচারী। এদিকে ছয়দফা দাবী নিয়ে নগরীর বঙ্গবন্ধু উদ্যানে যখন রিক্সা, ব্যাটারিচালিত রিক্সা-ভ্যান-ইজিবাইক চালক সংগ্রাম পরিষদের সমাবেশ চলছে, ঠিক তখনই লাইসেন্স নেয়ার জন্য সিটি করপোরেশনের এনেক্স ভবনে জমেছে দীর্ঘলাইন। শ্রমিক কল্যাণ সংস্থার ব্যানারে এখানে আরেকটা গ্রুপের তৎপরতা দেখা গেছে। পাশাপাশি রয়েছে বঙ্গবন্ধু উদ্যানে আগত শ্রমিকদের তালিকা তৈরি ও তাদের শহরে প্রবেশ নিষিদ্ধ করার হুমকিও। ফলে বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে ৬ দফা দাবির বিভাগীয় সমাবেশে আগত শ্রমিকদের মধ্যেও একধরনের আতঙ্ক বিরাজ করছে। আবার একটি ড্রোন ক্যামেরার ঘন ঘন বঙ্গবন্ধু উদ্যানে মাঠের উপর ঘুরে বেড়ানো দেখে বাসদ আয়োজিত এই সমাবেশ অনেকটাই মলিন ও উদ্বেগের বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। বঙ্গবন্ধু উদ্যানে আয়োজিত এই সমাবেশের প্রধান আলোচক সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি রাজেকুজ্জামান রতন যদিও শ্রমিকদের সাহস বৃদ্ধির জন্য বলেছেন, ড্রোন ক্যামেরায় ছবি তুলে আর লাইসেন্স দেয়ার লোভ দেখিয়ে শ্রমিকদের আন্দোলন বানচাল করা যাবে না।
আর রিক্সা, ব্যাটারিচালিত রিক্সা-ভ্যান-ইজিবাইক চালক সংগ্রাম পরিষদ, কেন্দ্রীয় কমিটি উপদেষ্টা, বাসদ নেত্রী মনীষা চক্রবর্তী বলেন, গত বছর বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে মে মাসে লাইসেন্স, পোষাক, পার্কিং স্ট্যান্ড ও চার্জিং স্টেশন দেয়ার কথা বলে ফর্ম দেয়ার নামে শ্রমিকদের জড়ো করা হয়েছিল যার কোন দাবিই পূরণ করা হয়নি। এখন সংগ্রাম পরিষদের কর্মসূচির দিন হঠাৎ করে পুনরায় বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে লাইসেন্সের ফর্ম দেয়ার কথা বলে একই সময়ে শ্রমিকদের ডাকা প্রতারণার পুনরাবৃত্তি ছাড়া আর কিছুই নয়। গত বছরও আমাদের সমাবেশের দিন তারাও ওইসব প্রতিশ্রুতি দেয়। আজও একই কাজ করে সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি কতটা শ্রমিক বান্ধব?
এদিকে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের এনেক্স ভবনেও তখন লাইসেন্সের জন্য ফর্ম দিচ্ছে সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ। এই ফরম পূরণ করে জমা দিলেই অল্প সময়ের মধ্যে তাদের লাইসেন্স দেয়া হবে বলে জানান শ্রমিক নেতা পরিমল দাস। তিনি বলেন, ইতিমধ্যে প্রায় ৭ হাজার ফরম দেয়া হয়েছে। এগুলো যাচাই-বাছাই শেষে আগামী মাসেই নগরীতে চলাচলের লাইসেন্স দেবে সিটি কর্পোরেশন।
বঙ্গবন্ধু উদ্যানে একইসময় মনীষা চক্রবর্তী ও তার সমর্থিত শ্রমিকদের সমাবেশ থেকে ছয়দফা দাবী তোলা হয়। এ দাবীর মধ্যে রয়েছে- সংগ্রাম পরিষদের সংশোধনী প্রস্তাব গ্রহণ করে “থ্রি হুইলার ও সমজাতীয় মোটরযানের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা ও নিয়ন্ত্রণ নীতিমালা ২০২১” দ্রুত চূড়ান্ত ও কার্যকর কর এবং নীতিমালার বিআরটিএ কর্তৃক ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক ও রিক্সার নিবন্ধন, রুট পারমিট এবং লাইসেন্স প্রদান কর।
সংগ্রাম পরিষদের আপীলের পরিপ্রেক্ষিতে মহামান্য হাইকোর্টের রায়ে বৈধ ঘোষিত ব্যাটারিচালিত যানবাহনকে অবৈধ যান হিসেবে মামলা দেয়া বন্ধ করা। ব্যাটারিচালিত যানবাহনের জন্য ট্রাফিক মামলার জরিমানা অনধিক ৫০০ টাকা নির্ধারণ করা।
নগরীর গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ব্যাটারিচালিত থ্রি হুইলারের জন্য পার্কিং স্ট্যান্ড নির্ধারণ করা। ব্যাটারিচালিত যানবাহনের চালকদের থেকে জোরপূর্বক চাঁদা আদায়, হয়রানি বন্ধ করা। প্রধান সড়ক ও মহাসড়কের দুইপাশে ব্যাটারিচালিত যানবাহন ও অন্যান্য থ্রি হুইলার চলাচলের জন্য সাইডলেন নির্মাণ করা এবং ব্যাটারিচালিত যানবাহনের চালকদের প্রশাসনিক উদ্যোগে ট্রাফিক আইন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া।
রিক্সা, ব্যাটারিচালিত রিক্সা-ভ্যান-ইজিবাইক চালক সংগ্রাম পরিষদের বরিশালের সভাপতি দুলাল মল্লিকের সভাপতিত্বে এতে আরো বক্তব্য রাখেন, রিক্সা, ব্যাটারিচালিত রিক্সা-ভ্যান-ইজিবাইক চালক সংগ্রাম পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি খালেকুজ্জামান লিপন, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের বরিশাল জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মানিক হাওলাদারসহ জেলা ও বিভাগের নেতৃবৃন্দ।
সমাবেশে কমরেড রাজেকুজ্জামান রতন বলেন, শ্রমিকরা অর্থনীতির চাকা ঘুরায় আর শাসকরা সেই শ্রম শোষণ করে সম্পদের পাহাড় গড়ে। ব্যাটারিচালিত যানবাহনকে লাইসেন্স দিলে তাদের অর্থ সরকারি কোষাগারেই জমা হবে অথচ লাইসেন্স ছাড়া এই লক্ষ লক্ষ শ্রমিক বিটবাণিজ্যের হোতাদের কাছে জিম্মি হয়ে আছে।  আই এম এফ এর কাছে সাড়ে চার বিলিয়ন ডলার ঋণ নিয়ে সরকার গ্যাস-বিদ্যুৎ-তেলের দাম বাড়িয়ে জনগনের জীবনকে দুর্বিষহ করে তুলেছে। এই অনাচার-অবিচারের বিরুদ্ধে একতাবদ্ধ হওয়ার জন্য কমরেড রতণ শ্রমিকদের প্রতি আহবান জানান।
সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি খালেকুজ্জামান লিপন বলেন, বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র হঠাৎ করে ঘুম ভেঙে সংগ্রাম পরিষদের ও শ্রমিক ফ্রন্টের সমাবেশের দিন যেভাবে লাইসেন্স দেয়ার জন্য শ্রমিকদের ডেকেছেন তা দিয়ে তাদের শ্রমিক আন্দোলন নস্যাৎ করার দুরভিসন্ধিই প্রকাশ পেয়েছে। তিনি বলেন,ব্যাটারিচালিত যানবাহনের লাইসেন্সের দাবিতে বরিশালসহ সারাদেশে ১২ বছর ধরে শ্রমিক ফ্রন্ট ও সংগ্রাম পরিষদের নেতৃত্বে আন্দোলন হয়ে আসছে এবং সংগ্রাম পরিষদের নেতৃত্বেই শ্রমিকরা এপর্যন্ত ব্যাটারিচালিত যানবাহনের লাইসেন্সের নীতিমালা ও সুপ্রীম কোর্ট থেকে ব্যাটারিচালিত যানবাহনের বৈধতার রায়  আদায় করেছে। তিনি আগামী মার্চ মাসে প্রনীত নীতিমালা বাস্তবায়নে সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয় ঘেরাও কর্মসূচিতে বরিশালের শ্রমিকদের অংশ নেয়ার আহবান জানান।
সংগ্রাম পরিষদের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা  মনীষা চক্রবর্তী বলেন, গতকাল পাড়ায় পাড়ায় সন্ত্রাসী মহড়া ও আজ সকালে সিটি কর্পোরেশন ঘোষিত লাইসেন্সের প্রতারণামূলক প্রলোভন উপেক্ষা করে যারা সংগ্রাম পরিষদের ও শ্রমিক ফ্রন্টের সমাবেশে এসেছেন তারা শ্রমিক শ্রেনীর সত্যিকারের প্রতিনিধি। এই শ্রমিকদের হাত ধরেই বিআরটিএ থেকে ব্যাটারিচালিত যানবাহনের লাইসেন্স আদায় হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT