প্রথাগত ওপেন হার্ট সার্জারির তুলনায় MICS এর বাড়তি সুবিধা রয়েছে -ডা. সুশান মুখোপাধ্যায় প্রথাগত ওপেন হার্ট সার্জারির তুলনায় MICS এর বাড়তি সুবিধা রয়েছে -ডা. সুশান মুখোপাধ্যায় - ajkerparibartan.com
প্রথাগত ওপেন হার্ট সার্জারির তুলনায় MICS এর বাড়তি সুবিধা রয়েছে -ডা. সুশান মুখোপাধ্যায়

3:23 pm , January 14, 2023

কলকাতা থেকে কাজী মিরাজ ॥ ন্যূনতম বেদনাদায়ক কার্ডিয়াক সার্জারি (MICS) করে তিনজন আশি ঊর্ধ্ব মানুষকে নতুন জীবন দিয়েছে কলকাতার অ্যাপোলো মাল্টিস্পেশালিটি হসপিটালস। MICS হলো হৃদপিন্ডে অস্ত্রোপচারের এক নতুন পথ, যার একগুচ্ছ সুবিধা রয়েছে। প্রথাগত ওপেন হার্ট সার্জারির জন্য ৮ থেকে ১০ ইঞ্চি কাটার বদলে এই সার্জারিতে ১.৫ থেকে ৩ ইঞ্চি কাটলেই কাজ হয়ে যায়। MICS কম বেদনাদায়ক এবং প্রায় ক্ষতবিহীন। এই সার্জারির পর সেরে ওঠা য়ায় তাড়াতাড়ি। ফলে হাসপাতালে থাকতে হয় কম দিন এবং দ্রুত স্বাভাবিক জীবনে ফেরা যায়। একজন  ৮৫ বছর বয়সী এবং একজন ৮৭ বছর বয়সী মানুষ কলকাতায় অ্যাপোলো মাল্টিস্পেশালিটি হসপিটালস এসেছিলেন বুকে প্রচন্ড ব্যথা নিয়ে। আলাদা আলাদা এনজিওগ্রাম করে দেখা যায়, এমন ধরণের গুরুতর ব্লকেজ আছে যার চিকিৎসা এনজিওপ্লাস্টি দিয়ে করা যাবে না। ফলে দুজনের জন্যই ওপেন হার্ট সার্জারি একমাত্র বিকল্প ছিলো। কিন্তু তাঁদের বয়সের কারণে সার্জারি চিকিৎসার প্রথম পছন্দ ছিলো না। ওই বয়সে বাইপাস হার্ট সার্জারি না করাই ভাল। কারণ একটা বড় সার্জারি খুব মসৃণভাবে হয় না আর সার্জারি সংক্রান্ত নানা জটিলতা দেখা দিতে পারে। MICS-এর মাধ্যমে দুজন রোগীরই মাল্টি ভেসেল গ্রাফটিং করা হয়েছিলো এবং দুজনেই দুদিনের মধ্যে হাঁটাহাঁটি শুরু করেন। স্বাভাবিক রুটে কার্ডিয়াক সার্জারি করলে এটা ভাবাই যায় না।
শনিবার সন্ধায় কোলকাতার একটি ৫তারকা হোটেলে সংবাদ সম্মেলনে অ্যাপোলো মাল্টিস্পেশালিটি হসপিটালস এর ডিরেক্টর কার্ডিও থোরাসিক অ্যান্ড ভাস্কুলার সার্জন ডা: সুশান মুখোপাধ্যায় এ কথা বলেন। এ সময় তিনি আরো বলেন, চার হাজারের বেশি MICS করার রেকর্ডসম্পন্ন অ্যাপোলোর ডাক্তাররা ন্যূনতম হস্তক্ষেপ করে কার্ডিয়াক সার্জারি করেন। আমাদের এখানে আরও একজন ৮২ বছর বয়সী রোগী এসেছিলেন কার্ডিও জেনিক শক, সিভিয়ার এওর্টিক ভালভ স্টেনোসিস নিয়ে। তিনি ভেন্টিলেটরে ছিলেন এবং ১২ ঘন্টা তাঁর প্রসাব হয়নি। আমরা MICS-এর মাধ্যমে ট্রান্স-ক্যাথিটার এওটিক ভালভ রিপ্লেসমেন্ট (TAVI) করি। তিনি ৪৮ ঘন্টায় পুরোপুরি সেরে ওঠেন। আরও চেক-আপে দেখা গেছে তাঁর হৃদপিন্ডের কাজে উল্লেখযোগ্য উন্নতি হয়েছে এবং তিনি স্বাভাবিক জীবন কাটাচ্ছেন।”
আগে করোনারি আর্টারি বাইপাস গ্রাফটিং (CABG), ভালভ প্রতিস্থাপন, হৃদপিন্ডের ছিদ্র বন্ধ করা ইত্যাদিতে ওপেন সার্জারিই ছিলো একমাত্র সমাধান। কিন্তু এখন মেডিকেল সায়েন্সের উন্নতির ফলে MICS-এর মাধ্যমে করা প্রোসিডিওরগুলো হলো ন্যূনতম বেদনাদায়ক বাইপাস সার্জারি (MICS CABG), এন্ডোস্কোপিক ভেন ও রেডিয়াল আর্টারি হারভেস্টিং, MICS এওর্টিক ভালভ, ন্যূনতম বেদনাদায়ক মাইট্রাল ভালভ সার্জারি, কিহোল ASD ক্লোজার এবং করোনারি বাইপাস।
কিহোল হার্ট সার্জারি করা হয় বিশেষভাবে তৈরি সার্জিকাল সরঞ্জাম দিয়ে। ভারতের মোট মৃত্যুর ১৪.৫% হার্ট অ্যাটাকে হয় এবং MICS CABG বা কিহোল বাইপাস করোনারি আর্টারি ডিজিজের রোগীদের জন্য একটা সমাধান হিসাবে উঠে এসেছে। এই সার্জারিগুলো নিরাপদে করতে পারার ব্যাপারে যেসব সন্দেহের জায়গা ছিলো সেগুলো এড়ানো গেছে। যদি MICS নিয়মিত প্রক্রিয়া হিসাবে সব জায়গায় চালু করা হয়, তাহলে মানুষ এনজিওওপ্লাস্টির চেয়ে MICS বাইপাসের দিকেই বেশি ঝুঁকবেন এবং ১৪.৫% সংখ্যাটা অবশ্যই বদলাবে। রুটিন মাল্টি-ভেসেল বাইপাস মৃত্যুর সম্ভাবনা উল্লেখযোগ্যভাবে কমিয়ে ফেলবে।
প্রথাগত ওপেন হার্ট সার্জারির তুলনায় MICS-এর অনেকগুলো বাড়তি সুবিধা রয়েছে।  এগুলো হলো : অতি উন্নত সরঞ্জাম এবং উন্নত কৌশলের ফলে অস্ত্রোপচার নিরাপদে করা সম্ভব হয়। কোন হাড় কাটা হয় না। রক্তপাতের পরিমাণ অগ্রাহ্য করার মতো ফলে রক্ত দেওয়ার প্রয়োজন হয় না। রক্তবাহিত রোগ হওয়ার সম্ভাবনাও থাকে না। আঘাত বা অস্ত্রোপচারের পরে ফুসফুসে সংক্রমণের পরিমান কমে যায়। তাই এই সার্জারি ডায়বেটিসের রোগী বা সংক্রমণ প্রতিরোধের ক্ষমতা দুর্বল এমন রোগীদের জন্য আদর্শ। যে ছিদ্রটা করা হয় তা একেবারেই ছোট, মাত্র ২-৩ ইঞ্চির। ফলে হৃদপিন্ডে অস্ত্রোপচার হয়েছে এটা বোঝা অসম্ভব হয়ে পড়ে। সুতরাং ক্ষত থেকে যাওয়ার সম্ভাবনাও কমে যায়। হাসপাতালে থাকা এবং সেরে ওঠার সময় এই কেসে ন্যূনতম এবং স্বাভাবিক অবস্থায় সাধারণত অস্ত্রোপচারের ৭ দিনের মধ্যে রোগী পুরোপুরি সেরে ওঠেন। ভবিষ্যতের অস্ত্রোপচারগুলোতে ঝুঁকির দিক উল্লেখযোগ্যভাবে কমে যায়।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT