দাঁড়ি রাখা ওয়াজিব, তার আগে সত্যবাদী হওয়া ফরজ দাঁড়ি রাখা ওয়াজিব, তার আগে সত্যবাদী হওয়া ফরজ - ajkerparibartan.com
দাঁড়ি রাখা ওয়াজিব, তার আগে সত্যবাদী হওয়া ফরজ

3:28 pm , January 13, 2023

= জুম্মাবার =
বিশেষ প্রতিবেদক ॥  নবী করীম (সাঃ) মুসলমানদের জন্য দশটি নির্দেশনা দিয়েছেন। তার অন্যতম একটি দাঁড়ি রাখা ও মোচ ছোট করা। এটা সুন্নত নয় ওয়াজিব। কিন্তু তারচেয়ে বড় ওয়াজিব হচ্ছে সত্যবাদী হওয়া। কেননা আমাদের নবী (সাঃ) কিশোর বয়সেই সত্যবাদী হিসেবে আলামিন উপাধি পেয়েছিলেন। এভাবেই জুম্মাবারের আলোচনা শুরু করেন চাঁদপুরা ইউনিয়নের তালুকদার হাট জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ মাওলানা মহিউদ্দিন। নিজেকে পরিচ্ছন্ন ও পবিত্র রাখতে তিনি নবী করিম (সা.) এর ১০ টি নির্দেশ একে একে বর্ণনা করে বলেন, হাত ধৌত করা, নাকে পানি দেয়া, বগলি ও নাভির নিচের পশম কাটা ইত্যাদি বিষয় বর্ণনা শেষে দাঁড়ি রাখার উপর গুরুত্বারোপ করে দীর্ঘ আলোচনা করেন। তিনি সাহাবাদের  (রা.) উদাহরণ তুলে ধরে বলেন, যেহেতু নবী করিম (সাঃ) ও সাহাবা (রা.) এর সকলের দাঁড়ি ছিলো তাই মুসলমানদের পরিচয় হচ্ছে দাঁড়ি ও মোচ ছোট। কিন্তু  তারও আগে আমাদের সত্যবাদী হতে হবে উল্লেখ করে ইমাম মহিউদ্দিন পবিত্র কোরআনের সূরা তাওবা (আয়াত ১১৯) থেকে পাঠ করেন। যেখানে আল্লাহ বলেছেন ‘হে মুসলমান আল্লাহকে ভয় করো এবং সত্যবাদীদের সহযোগী হও’।
আরো আয়াতে আল্লাহ বলেছেন, যারা সত্যবাদী, আল্লাহর দরবারে তাদের মর্যাদা অনেক। পবিত্র কোরআনে এসেছে, ‘নবী, সত্যবাদী, শহীদ ও সৎ ব্যক্তিবর্গ- আল্লাহ এদেরকে নেয়ামত দান করেছেন’ (সুরা নিসা : ৬৯)। আল্লাহ তায়ালার কাছে সত্যবাদীদের বিশেষ মর্যাদা এই আয়াত থেকেই স্পষ্ট হয়। এখানে চার শ্রেণির মর্যাদার মধ্যে দ্বিতীয় স্তরে উল্লেখ করেছেন সত্যবাদীদের কথা।
সত্যবাদিতা সব নবী ও রাসুলদের গুণ। আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘আপনি এই কিতাবে ইব্রাহিমের কথা বলুন, নিশ্চয় তিনি ছিলেন সত্যবাদী নবী’ (সুরা মারয়াম : ৪১)। আরও বলেছেন, ‘এই কিতাবে ইসমাঈলের কথা বলুন, নিশ্চয় তিনি ছিলেন প্রতিশ্রুতি পালনে সত্যাশ্রয়ী এবং তিনি ছিলেন রাসুল ও নবী’ (সুরা মারয়াম : ৫৪)।
ইমাম মহিউদ্দিন আরো বলেন, রাসুল (সাঃ)-এর সবচেয়ে প্রিয় সাহাবি হযরত আবু বকর (রা.)-এর গুণ ছিল সত্যবাদিতা। এজন্য তার নাম হয়ে যায় ‘সিদ্দিক’ অর্থাৎ সত্যবাদী। যে ব্যক্তি সদা সত্য বলবে আল্লাহর রাসুল (সাঃ) স্বয়ং তার জান্নাতের দায়িত্ব গ্রহণ করবেন। হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, হযরত উবাদা ইবনে সামেত (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সাঃ) বলেছেন, ‘তোমরা আমার নিকট ছয়টি বিষয়ের জিম্মাদার হও, আমি তোমাদের জন্য জান্নাতের জিম্মাদার হবো। ছয়টি বিষয় হচ্ছে- ১. যখন তোমরা কথা বলবে, সত্য বলবে। ২. অঙ্গীকার করলে তা পূরণ করবে। ৩. আমানত যথাযথ আদায় করবে। ৪. তোমাদের লজ্জাস্থান হেফাজত করবে। ৫. তোমাদের দৃষ্টি নি¤œগামী রাখবে এবং ৬. অন্যায় কাজ থেকে তোমাদের হাত ফিরিয়ে রাখবে’ (মুসনাদে আহমদ : ২২৮০৯)।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT