ডেঙ্গু হ্রাস পেলেও ডায়রিয়ার চোখ রাঙানি অব্যাহত ডেঙ্গু হ্রাস পেলেও ডায়রিয়ার চোখ রাঙানি অব্যাহত - ajkerparibartan.com
ডেঙ্গু হ্রাস পেলেও ডায়রিয়ার চোখ রাঙানি অব্যাহত

4:14 pm , January 2, 2023

বিশেষ প্রতিবেদক ॥  বিদায়ী বছরের শেষভাগে দক্ষিণাঞ্চল থেকে করোনা মহামারীর সাথে ডেঙ্গু অনেকটা দূরে সরে থাকলেও এখনো ৮০ ভাগের বেশী মানুষকে কোভিড-১৯ প্রতিষেধকের প্রথম ডোজের আওতায় আনা সম্ভব হয়নি। আর দ্বিতীয় ডোজের ভ্যাকসিন গ্রহণকারীর সংখ্যা ৬৬%। বুষ্টার ডোজ গ্রহণ করেছেন ৩৩ ভাগেরও কম। দিন দশেক আগে থেকে করোনা প্রতিষেধকের ৪র্থ ডোজ শুরু হলেও সোমবার পর্যন্ত দক্ষিণাঞ্চলের ৬ জেলার ৪২ উপজলায় মাত্র সাড়ে ৩ হাজার মানুষ এ টিকা গ্রহণ করেছেন। মূলত করোনার প্রকোপ হ্রাসের সাথে উদাসীনতার সাথে জন সচেতনতা এবং প্রচারণার অভাবেই দক্ষিণাঞ্চলে ভ্যাকসিন প্রয়োগের অগ্রগতি ঝিমিয়ে পড়েছে বলে মনে করছেন স্বাস্থ্য বিভাগের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা। তবে দক্ষিণাঞ্চল জুড়ে এখনো ডায়রিয়ার চোখ রাঙানি অব্যাহত রয়েছে। গত একমাসে দক্ষিণাঞ্চলের ৬ জেলা ও উপজেলা হাসপাতালগুলোতে প্রায় ৫ হাজার ডায়রিয়া রোগী চিকিৎসার  জন্য এসেছে বলে জানা গেছে। এমনকি বিদায়ী বছরে দক্ষিণাঞ্চলের সরকারী হাসপাতালগুলোতে প্রায় ৭২ হাজার ডায়রিয়া আক্রান্ত নারী-পুরুষ ও শিশু ডায়রিয়া চিকিৎসা গ্রহণ করেছে। এর বাইরে আরো লক্ষাধিক ডায়রিয়া আক্রান্ত মানুষ বিভিন্ন চিকিৎসকসহ বেসরকারী হাসপাতাল ও ক্লিনিকে চিকিৎসা নিয়েছেন বলে জানা গেছে। নতুন বছরের প্রথম দুই দিনে আরো প্রায় পৌনে ৪শ মানুষ ডায়রিয়া আক্রান্ত হয়ে সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন বলে বিভাগীয় স্বাস্থ্য দপ্তর জানিয়েছে।
এদিকে দক্ষিণাঞ্চলে ডেঙ্গুর প্রকোপ গত মাসে যথেষ্ট নিয়ন্ত্রনে এসেছে। পূর্ববর্তী মাসে প্রতিদিন গড়ে যেখানে শতাধিক ডেঙ্গু রোগী সরকারী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে সেখানে বিগত ডিসেম্বরের ৩১ দিনে ২২৭ জন ভর্তি হয়েছে। এখন দৈনিক হাসপাতালে আগত রোগীর সংখ্যা ১০ জনের নিচে বলে জানা গেছে। তবে ইতোমধ্যে দক্ষিনাঞ্চলে প্রায় ৩ হাজার ২শ ডেঙ্গু রোগীর মধ্যে ১২ জনের মৃত্যুর কথা জানিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। যার সবই বরিশাল শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।
এদিকে প্রায় ১ কোটি জনসংখ্যার দক্ষিণাঞ্চলের  ৬ জেলায় ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত  ৮০ লাখ ৪২ হাজার ২২৪ জন করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ গ্রহণ করলেও দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণকারীর সংখ্যা ৬৬ লাখ ৬ হাজার ২৮৩। আর বুষ্টার ডোজ গ্রহণকারীর সংখ্যা ৩২ লাখ ৬৪ হাজার ২৭২ জন। ৪র্থ ডোজ গ্রহণ করেছেন ৪ হাজারেরও কম। ঠিক কত মানুষ এখনো করোনা ভ্যাকসিনের আওতার বাইরে রয়েছে তা বলতে না পারলেও স্বাস্থ্য বিভাগের দায়িত্বশীল সূত্রের মতে দক্ষিণাঞ্চলের ১ কোটি জনসংখ্যার অন্তত ২০ ভাগ মানুষ এখনো করোনা ভ্যাকসিন গ্রহণ করেননি। এদিকে শীতের তীব্রতা বৃদ্ধির সাথে সমগ্র দক্ষিণাঞ্চল জুড়েই নিউমোনিয়াসহ ঠান্ডাজনিত বিভিন্ন রোগের প্রাদুর্ভাব ক্রমশ বাড়ছে। প্রতিদিন গড়ে ৭০ থেকে একশ রোগী সরকারী হাসপাতালে আসছে। ইতোমধ্যে ভোলায় এক নিউমোনিয়া রোগীর মৃত্যু হয়েছে। গত দেড় মাসে দক্ষিনাঞ্চলের হাসপাতালগুলোতে  নিউমোনিয়া সহ ঠান্ডাজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রায় সাড়ে ৫ হাজার রোগী চিকিৎসা নিয়েছেন। এরমধ্যে নিউমোনিয়া রোগীর সংখ্যাই ৩ হাজারের ওপরে বলে জানা গেছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT