নৌযান চলাচল বন্ধ, বিপাকে হাজারো যাত্রী নৌযান চলাচল বন্ধ, বিপাকে হাজারো যাত্রী - ajkerparibartan.com
নৌযান চলাচল বন্ধ, বিপাকে হাজারো যাত্রী

3:13 pm , November 27, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ ১০ দফা দাবীতে নৌযান শ্রমিকদের ডাকা কর্মবিরতির কারণে বরিশালে নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে। শনিবার দিনগত রাত ১২টা থেকে এ কর্মবিরতি শুরু করে নৌযান শ্রমিকরা। ফলে রোববার সকাল থেকে বরিশাল নদী বন্দরসহ দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন নদীবন্দর ও লঞ্চঘাট থেকে অভ্যন্তরীণ ও দূরপাল্লার যাত্রীবাহী লঞ্চ ছেড়ে যায়নি। আর এতে বিপাকে পড়েছেন নৌ-যাত্রীরা। রোববার সকালে অনেক যাত্রীই ঘাটে এসে লঞ্চ চলাচল বন্ধ দেখে হতাশা প্রকাশ করেছেন। বরিশাল থেকে মেহেন্দীগঞ্জে যাওয়ার লঞ্চ যাত্রী শারমিন বলেন, বাড়িতে যাওয়ার জন্য লঞ্চঘাটে এসেছি। কিন্তু র্টামিনালে এসে দেখি লঞ্চ চলাচল তো বন্ধ। এখন চিন্তা করছি ভেঙ্গে ভেঙ্গে ট্রলারে অথবা স্পীডবোটে যাবো। বিআইডব্লিউটিএ বরিশালের নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের পরিদর্শক কবির হোসেন জানান, শ্রমিকদের কর্মবিরতির কারণে সকাল থেকে বরিশাল নদীবন্দর থেকে কোনো লঞ্চ ছেড়ে যায়নি।  এদিকে বাংলাদেশ লঞ্চ লেবার অ্যাসোসিয়েশন বরিশালের সভাপতি আবুল হাসেম মাস্টার বলেন, বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের ব্যানারে সারাদেশে এ কর্মবিরতি শুরু করেছে নৌযান শ্রমিকরা। ফলে গেল রাত ১২টা থেকে সারাদেশের সঙ্গে বরিশাল বিভাগে সব ধরণের পণ্যবাহী ও যাত্রীবাহী নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে। আমাদের দাবি না মানা পর্যন্ত এই কর্মবিরতির আন্দোলন লাগাতার চলবে।  বাংলাদেশ লঞ্চ লেবার অ্যাসোসিয়েশন ও নৌযান শ্রমিক ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক আবু সাঈদ বলেন, শ্রমিকদের কর্মবিরতির কারণে সারাদেশে তেলবাহী, বালুবাহীসহ সকল পণ্যবাহী ও যাত্রীবাহী নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে। আমরা চাই আমাদের যৌক্তিক দাবিগুলো মানা হোক। তবে এখন পর্যন্ত সরকারসহ কোনো পক্ষ থেকে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়নি। আর আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত কর্মবিরতি চলবে।
এসময় বরিশাল বিভাগীয় সভাপতি শেখ আবুল হাসেম মাস্টার গণমাধ্যমকে বলেন,আমরা নৌ-যান শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদ আমাদের দাবী আদায়ের লক্ষ্যে দীর্ঘ ১৬ বছরে আন্দোলন-সংগ্রাম ও কর্মবিরতীতে গিয়ে শুধু সরকার ও মালিক পক্ষের প্রতিশ্রুতির কথা শুনেছি। কিন্তু শ্রমিকদের কোন ভাগ্যের পরিবর্তন হয়নি।
বার বারই তারা বিভিন্নভাবে ওয়াদা করে পরবর্তীতে তাদের দেওয়া সেই কথা রক্ষা করেন না বলেই আন্দোলনের মাধ্যমে তাদের ১০ দফা দাবী আদায়ের লক্ষ্যে নৌ-যান শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদ এই ধর্মঘটে যেতে বাধ্য হয়েছে।
অপরদিকে বরিশাল নদী বন্দরের পল্টুনে বান্দিং করা অভ্যন্তরীণ ও ঢাকাগামী বিলাসবহুল ডাবল ডেকার লঞ্চগুলো পল্টুন ছেড়ে নদীর অপর প্রান্তের চরকাউয়া এলাকায় নোঙ্গর করে রেখেছে।
সকাল থেকে বরিশাল জেলা ও বিভাগের নদীমাত্রিক উপজেলা মেহেন্দিগঞ্জ,হিজলা, মুলাদী সহ ভোলা,পটুয়াখালী,বাউফল সহ বিভিন্ন এলাকার যাত্রীরা ঘাটে এসে চরম দুর্ভোগের মধ্য পড়ে।
১০ দফা দাবিগুলো হলো ॥ নৌযান শ্রমিকদের নিয়োগপত্র, খাদ্য ভাতা ও সমুদ্র ভাতার সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কন্ট্রিবিউটরি প্রবিডেন্ট ফান্ড ও নাবিক কল্যাণ তহবিল গঠন করা, পরিচয়পত্র ও সার্ভিস বুক দেওয়াসহ শ্রমিকদের সর্বনি¤œ মজুরি ২০ হাজার টাকা নির্ধারণ, দুর্ঘটনা ও কর্মস্থলে মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ ১০ লাখ টাকা নির্ধারণ করা, চট্টগ্রাম থেকে পাইপ লাইনের মাধ্যমে জ্বালানি তেল সরবরাহে দেশের স্বার্থবিরোধী অপরিণামদর্শী প্রকল্প বাস্তবায়নে চলমান কার্যক্রম বন্ধ করা, বালুবাহী বাল্কহেড ও ড্রেজারের রাত্রিকালীন চলাচলের ওপরে ঢালাও নিষেধাজ্ঞা শিথিল, নৌপথে সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি ও ডাকাতি বন্ধ, ভারতগামী শ্রমিকদের ল্যান্ডিং পাস দেওয়াসহ ভারতীয় সীমানায় সব প্রকার হয়রানি বন্ধ, চট্টগ্রাম বন্দর থেকে পণ্য পরিবহন নীতিমালা ১০০ শতাংশ কার্যকর করে সব লাইটারিং জাহাজকে সিরিয়াল মোতাবেক চলাচলে বাধ্য করা, চরপাড়া ঘাটে ইজারা বাতিল ও নৌ-পরিবহন অধিদফতরের সব ধরণের অনিয়ম-অব্যবস্থাপনা বন্ধ করা।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT