ভরা মৌসুমেও কাঙ্খিত ইলিশের দেখা মেলেনি ভরা মৌসুমেও কাঙ্খিত ইলিশের দেখা মেলেনি - ajkerparibartan.com
ভরা মৌসুমেও কাঙ্খিত ইলিশের দেখা মেলেনি

12:01 pm , October 3, 2022

নিষেধাজ্ঞার পরে প্রচুর ইলিশের দেখা মিলবে, আশা মৎস্য বিভাগের

হেলাল উদ্দিন ॥ দখিনাঞ্চলের জেলেদের কপালে আর শান্তি জুটলো না। একে তো ভরা মৌসুমেও কাঙ্খিত ইলিশ ধরা পড়লো না। তার উপর আগামী ৭ অক্টোবর থেকে শুরু হচ্ছে মাছ ধরার উপর নিষেধাজ্ঞা। ফলে জেলেদের কপালে আপাতত আর জুটছে না ইলিশ মাছ। জেলেরা বলছে নিষেধাজ্ঞার আগে মাছ ধরার জন্য মরিয়া হয়ে আছেন তারা। বেশীর ভাগ জেলেই বর্তমানে সাগরে অবস্থান করছেন। কিন্তু ভাগ্য বড়ই খারাপ তাদের। কারন এখন থেকে ৬ তারিখ পর্যন্ত ডালা গোন (ভাটির সময়) চলছে। তাই মাছ জালে ধরা পড়ছে না। বিধাতার কি খেলা ৬ তারিখ সকাল থেকে জোবা গোন ( সাগরে জো মৌসুম) শুরু হবে। কিন্তু তার পরের দিন থেকেই নিষেধাজ্ঞা শুরু হবে। তারা বলছে ৬ তারিখ রাত ১২ টার মধ্যে ঘাটে ফিরতে হবে। তাই যে দিন জো শুরু হবে সেদিনও তারা জাল ফেলতে পারবেন না। কারন তীরে ফিরতে তাদের ১ থেকে ২ দিন লেগে যাবে। জেলা মৎস বিভাগও মানছে জেলেদের দূর্দশার কথা। কিন্তু সুখবরও দিয়েছেন তারা। জানিয়েছেন নিষেধাজ্ঞার পরপরই জেলেদের জালে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়বে। তখন জেলেদের মাঝে সুদিন ফিরে আসবে।
মৎস বিভাগের তথ্য অনুযায়ী বাংলা মাস আষাঢ়-শ্রাবন দুই মাস ইলিশ আহরনের ভরা মৌসুম। এই দুই মাসে সমুদ্রে ও নদীতে জেলেদের জালে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়ে। কিন্তু নদীতে চর জাগা, নাব্যতা সংকট, উজানের প্রবাহ কম থাকা এবং বৃষ্টি কম হওয়ায় নদীতে পানির লবণাক্ততা বৃদ্ধি, নদীর গতিপথ পরিবর্তন হওয়া, উজানে পাহাড়ি ঢল না থাকায় এবার জেলেরা কাঙ্খিত ইলিশের দেখা পায়নি। যে কারনে জেলেরা একদিকে যেমন মহাজনসহ বিভিন্ন এনজিওর কাছ থেকে নেয়া ঋন পরিশোধ করতে পানেনি। অন্য দিকে পরিবার পরিজন নিয়েও অতি কষ্টে দিনাতিপাত করছেন। এর মধ্যে গত মাসে সাগরে একাধিক ঘুর্নিঝড় তথা বৈরী আবহাওয়ার কারনে জেলেদের মাছ ধরার মিশন ব্যর্থ হয়েছে। আবার গুছিয়ে যখন সাগরের যাবার পরিকল্পনা চলছিলো তখনই আসলো নিষেধাজ্ঞা। তাই সব মিলিয়ে হতাশার শেষ নেই জেলেদের।
বরিশাল পোর্ট রোড মৎস ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সদস্য জহির বলেন ইলিশের খুব আকাল চলছে। গত কয়েকদিন ধরে ২’শ মনের মত মাছ আসছে মোকামে। যা এই সময়ে মোটেও প্রত্যাশিত না। তিনি বলেন বেশীর ভাগ ট্রলার এখন সাগরে আছে। কিন্তু খবর পেয়েছি তারাও জালে তেমন মাছ পাচ্ছে না। কারন এখন ভাটির গোন চলছে। আগামী ৬ তারিখ একাদশী। ওই দিন থেকে সাগরে জো শুরু হবে। জো শুরু হলে মাছ কিছুটা ধরা পড়ত। কিন্তু ৭ তারিখ থেকে অবরোধ শুরু তাই জো শুরুর আগেই জেলেদের ঘাটে ফিরতে হবে। সুতরাং নিষেধাজ্ঞার আগে আর মাছ ধরার কোন সুযোগ সম্ভাবনা নেই। তিনি আরো বলেন অন্তত ২’শ ট্রলার এখন সাগরে রয়েছে। যদি কাঙ্খিত মাছ ধরা পড়ে তাহলে সব ট্রলারই ঘাটে আসবে মাছ বিক্রি করতে। আর যদি মাছ ধরা না পড়ে তাহলে অধিকাংশ ট্রলারই ঘাটে আসবে না। জেলা মৎস কর্মকর্তা (ইলিশ) বিমল চন্দ্র দাস বলেন ভরা মৌসুমে এবার কাঙ্খিত ইলিশ ধরা পড়েনি এটা সত্য। কিন্তু হতাশ কবার কিছু নেই। আশা করছি অবরোধের পর প্রচুর মাছ ধরা পড়বে।আমাদের প্রত্যাশা তখন জেলেরা তাদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবে।
এদিকে গতকাল রবিবার পর্যন্ত বরিশাল পোর্ট রোড মোকাম থেকে ২’শ টন ইলিশ মাছ ভারতে রপ্তানী করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বরিশাল মৎস আড়তদার এ্যাসেসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক নিরব হোসেন হোটেল টুটুল। তিনি জানান সরকার ৫ অক্টোবর পর্যন্ত রপ্তানীর সময় বৃদ্ধি করা হয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT