হিজলা ও মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলায় আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরন করেছে প্রতিপক্ষরা হিজলা ও মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলায় আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরন করেছে প্রতিপক্ষরা - ajkerparibartan.com
হিজলা ও মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলায় আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরন করেছে প্রতিপক্ষরা

3:57 pm , September 12, 2022

এমপি পংকজ নাথের দল থেকে অব্যাহতির খবরে

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যসহ সকল পদ থেকে অব্যাহতি পাওয়া এমপি পংকজ নাথের বিরুদ্ধে দলীয় শৃংখলাভঙ্গসহ নানা অভিযোগ এনেছে নেতা কর্মিরা। বরিশাল-৪ আসনের এ সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষরা নেতা-কর্মীদের হত্যা, পঙ্গু করে দেয়া, মামলা দিয়ে হয়রানিসহ দলের মধ্যে বিভেদ ও গ্রুপিং সৃষ্টির অভিযোগ এনেছেন। তবে পংকজ দেবনাথ এমপি ও তার অনুসারী নেতা কর্মীরা বিষয়টি ষড়যন্ত্রমুলক বলে দাবি করেছেন।
এদিকে পংকজ দেবনাথ এমপিকে অব্যাহতি দেয়ায় বরিশাল-৪ আসনের হিজলা ও মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলায় আনন্দ মিছিল করে মিষ্টি বিতরন করেছে প্রতিপক্ষরা।
হিজলা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ টিপু বলেন, পংকজ দেবনাথ এমপি দুই উপজেলায় আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের দুই ভাগে বিভক্ত করেছেন। নিজের আধিপত্য ধরে রাখতে অনুসারীদের দিয়ে প্রতিপক্ষের উপর দমন-নিপীড়ন চালিয়েছেন। এ কারনে হামলা-পাল্টা হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।
টিপু অভিযোগ করে বলেন, হিজলা উপজেলা চেয়ারম্যানসহ তিনটি ইউনিয়নে দলীয় মনোনীত প্রার্থীদের হারিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী নিজের অনুসারীদের জিতিয়ে নিয়েছে।
টিপু জানান, তাকে অব্যাহতি দেয়ায় হিজলা উপজেলার বিভিন্নস্থানে মিষ্টি বিতরন করাসহ আনন্দ মিছিল করেছে নেতা কর্মীরা।
তিনি জানান, সন্ধ্যায় হিজলা উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে থেকে একটি আনন্দ মিছিল বের করে নেতা-কর্মীরা। মিছিলটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এ সময় তাঁরা পথচারীদের মধ্যে মিষ্টি বিতরণ করেন।উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এনায়েত হোসেন হাওলাদারের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা এতে অংশ নেন। এ ছাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলতাফ মাহমুদের নেতৃত্বে কাউরিয়া বাজার ও সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল লতিফ খানের নেতৃত্বে হরিনাথপুর বাজারে আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরণ করা হয়েছে।
মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও পৌর মেয়র কামালউদ্দীন খান বলেন, এমন কোন হীন অপকর্ম নেই যা এমপি পংকজ দেবনাথের নির্দেশে তার অনুসারীরা করেনি। উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ৯টি ইউনিয়নের দলীয় মনোনীত প্রার্থীদের হারানো হয়েছে। তার অনুসারীদের নিয়ে সকল বাজার, খেয়াঘাট ও চর দখল করিয়েছে। আইনশৃংখলা কোন নিয়মনীতি মানেনি সে। তার উপর শুধু নেতা কর্মীরাই নয়, উপজেলা প্রশাসন ক্ষুব্ধ ছিলো জানিয়ে, পৌর মেয়র বলেন, তারা এসব অনিয়মের বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য দলীয় প্রধান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতিকে জানিয়েছেন। প্রশাসন তাদের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের তাদের মতো করে জানিয়েছে।
তাকে কোপানোর নির্দেশ দেয়ার একটি অডিও ভাইরাল হয়েছে জানিয়ে বলেন, পংকজ দেবনাথ এমপির কারনে দলের বিভেদ সৃষ্টি হওয়ায় এখন পর্যন্ত ১০ জন হত্যার শিকার হয়েছে। শতাধিক নেতা কর্মী পঙ্গু হয়েছে। কতটি যে মামলা রয়েছে, তার হিসেব মনে নেই বলে জানান প্রবীন এ নেতা।
তিনি আরো বলেন, পঙ্কজ দেবনাথ এমপির অব্যাহতির খবর প্রকাশের পর থেকে দলীয় নেতা-কর্মীরা নানাভাবে আনন্দ প্রকাশ করছেন। তবে তিনি তাঁদের এ নিয়ে বাড়াবাড়ি করতে নিষেধ করেছেন। অনেকে আনন্দ মিছিল করতে চেয়েছিলেন, তা করতে বারণ করা হয়।
জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক এ্যাড. মুনসুর আহমেদ জানান, এমপি পংকজ দেবনাথের নির্দেশে এ পর্যন্ত কমপক্ষে ১০ জন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী হত্যার শিকার হয়েছেন। পঙ্গু হয়েছেন অসংখ্য নেতাকর্মী। তিনি স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলীয় নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী দাঁড় করিয়ে তাদের পক্ষে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারনা চালিয়েছেন। পংকজ অনেক আগেই আওয়ামী লীগে থাকার যোগ্যতা হারিয়েছেন বলে মন্তব্য করেন এ্যাড. মুনসুর।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট তালুকদার মো. ইউনুস জানিয়েছেন, কার্যনির্বাহী সংসদ সংগঠনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী প্রাতিষ্ঠানিক শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারনে তাকে জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা সদস্য পদ এবং আওয়ামী লীগের সকল পদ থেকে অব্যহতি প্রদান করেছে দল। এই সংক্রান্ত নির্দেশনা আমরা পেয়েছি।
তিনি বলেন, গত চার বছরে মেহেন্দিগঞ্জে দলকে বিভক্ত করে নিজের বলয় সৃষ্টি করে পঙ্কজ নাথ নিজের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে দলীয় নেতা-কর্মীদের হত্যা, নির্যাতন, পঙ্গু করে দেওয়া, মিথ্যা মামলায় হয়রানি এবং স্থানীয় নেতাদের বিরুদ্ধে নানা ধরনের অপতৎপরতা চালিয়েছেন। বিভিন্ন নির্বাচনে সে নৌকার প্রার্থীদের বিপক্ষে কাজ করেছেন। দলের বিরুদ্ধে তার অপকর্মের শেষ নেই। সর্বশেষ গত ২৮ অগাস্ট তার অনুসারীরা মেহেন্দিগঞ্জে হাসপাতালের মধ্যে ঢুকে ছাত্র ও যুবলীগের ৬ কর্মীকে কুপিয়ে জখম করেছে। আর এসব কারণেই কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।
পংকজ নাথ এমপির একান্ত আস্থাভাজন হিসেবে পরিচিত মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম ভুলু বলেন, পংকজ দেবনাথ দলীয় এমপি ছিলেন। তাই তার সাথে থেকে এলাকার উন্নয়ন করেছি। প্রধানমন্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কেউ তো আমাকে বলেনি, তার সাথে থাকা যাবে না।
ভুলু বলেন, একটি বড় দলে গ্রুপিং থাকবে। এখানে গ্রুপিং রয়েছে। কেউ তো বলতে পারবে না এমপি বিদ্রোহী বা স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে ভোট চেয়েছেন।
তার বিরুদ্ধে হত্যা, পঙ্গু করে দেয়ার অভিযোগের বিষয়ে বলেন, দুই দল মারামারি করেছে। সেখানে যদি কোন ঘটনা ঘটে থাকে তার দায় তো এমপি পংকজ দেবনাথ নেবেন না।  খোরশেদ আলম ভুলুর দাবী, এমপি পংকজ দেবনাথ ষড়যন্ত্রের শিকার।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT