ঝালকাঠিতে অফিসবিহীন ঘরোয়া কর্মসূচীতে জেলা বিএনপি ঝালকাঠিতে অফিসবিহীন ঘরোয়া কর্মসূচীতে জেলা বিএনপি - ajkerparibartan.com
ঝালকাঠিতে অফিসবিহীন ঘরোয়া কর্মসূচীতে জেলা বিএনপি

3:03 pm , September 8, 2022

রিয়াজুল ইসলাম বাচ্চু, ঝালকাঠি ॥ আওয়ামী লীগের ভয়ে অফিস খোলে না বিএনপি। দীর্ঘদিন তালাবদ্ধ রয়েছে জেলা বিএনপির কার্যালয়। দলীয় অধিকাংশ কর্মসূচীই পালিত হচ্ছে জেলা বিএনপির সদস্য সচিব এ্যাডভোকেট শাহাদাৎ হোসেনের চেম্বারে। মাঝে মধ্যে চেম্বারের সামনের সড়কে মানববন্ধন করে দলটি। অন্যদিকে বিএনপির কর্মসূচীর দিন মাঠ দখলে থাকে আওয়ামী লীগের। এ দিন আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা শহরের ফায়ার সার্ভিস মোড়ে বিক্ষোভ করে। পরে দলীয় নেতাকর্মীরা মোটরসাইকেলে মহড়া দেয় গোটা শহরে। ইতোপূর্বে বিএনপির নেতাকর্মীরা আইনজীবী সমিতি ও জেলা কার্যালয় থেকে বিক্ষোভ করার চেষ্টা করলেও পুলিশ ও সরকার দলীয় নেতা কর্মীদের বাধায় তা পন্ড হয়ে যায়। এরপর থেকেই জেলা বিএনপি ঘরোয়া কর্মসূচীতে চলে যায়। তবে বিএরপির নেতাদের দাবি তারা সংগঠিত হচ্ছে। যেকোন সময় তারা প্রকাশ্য কর্মসূচী পালন করবেন। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, ঝালকাঠিতে যে কোন ধরনের নৈরাজ্য তারা প্রতিরোধ করবেন। দু পক্ষের এ অবস্থানের কারনে ঝালকাঠি জেলার রাজনীতি ক্রমেই উত্তপ্ত হতে চলছে।
এক সময় ঝালকাঠির দুটি আসনকে ধানের শীষের ঘাটি বলা হতো। কিন্তু সে অবস্থা বিএনপির এখন আর নেই। জেলায় দলের নেতৃত্ব সংকট ও অভ্যন্তরীন কোন্দলের কারনে দলটি কর্মসূচীতে শক্তি প্রদর্শন করতে পারছে না। জেলার মনোনয়ন প্রত্যাশীদের আন্দোলনে সংগ্রামে মাঠে থাকার কেন্দ্রীয় নির্দেশনা থাকলেও একমাত্র রফিকুল ইসলাম জামাল (ঝালকাঠি-১ আসন) ব্যতীত আর কোন এমপি প্রার্থীকে জেলা বিএনপির কোন কর্মসূচীতে দেখা যায় না। জেলা বিএনপির তৃনমূল নেতাকর্মীরা জানান, দলের পূর্নাঙ্গ কমিটি না করলে আন্দোলনে গতি আসবেনা। তাই অবিলম্বে কমিটি ঘোষনার দাবী ান তারা। উল্লেখ্য বর্তমানে জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি দিয়ে পরিচালিত হচ্ছে।
এদিকে অফিস না খোলা এবং প্রকাশ্য কর্মসূচী পালন করতে না পারা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে জেলা বিএনপির আহবায়ক এ্যাডভোকেট সৈয়দ হোসেন বলেন, চারবার বিএনপি কার্যালয় ভাঙ্গা হয়েছে। দুই মাস ধরে কার্যালয় বন্ধ রয়েছে। এখানে বসার পরিবেশ নেই। কর্মসূচি পালন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা সকল কর্মসূচীই পালন করি। কিন্তু সব কর্মসূচীতেই পুলিশ ও সরকারী দল আমাদের বাধা দেয়।
এদিকে ক্ষমতার তিন মেয়াদে ঝালকাঠিতে যথেষ্ট শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠন। দলের প্রতিটি কর্মসূচীতেই ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবকলীগের সরব উপস্থিতি দেখা যায়। তবে মাঠের কর্মসূচীকে মহিলা আওয়ামী লীগের তেমন কোন তৎপরতা চোখে পড়ে না। প্রতিটি কর্মসূচীতেই জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট খান সাইফুল্লাহ পনির নেতৃত্ব দেন। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জানান, ঝালকাঠিতে আওয়ামী লীগ এখন যে কোন সময়ের চেয়ে শক্তিশালী। তাই বিএনপি আন্দোলনে মাঠে নামলেও ঝালকাঠির রাজনীতির মাঠ আওয়ামী লীগের দখলেই থাকবে বলে তারা মনে করেন।
বিএনপির আন্দোলন প্রসঙ্গে জানতে চাইলে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট খান সাইফুল্লাহ পনির বলেন, বিএনপির আন্দোলন কর্মসূচী রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করা হবে। তবে বিএনপি যদি বিশৃঙ্খলা করার চেষ্টা করে, তাহলে জনগন তাদের প্রতিহত করবে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT