বাকেরগঞ্জে ইউএনও’র কাছে অভিযোগ দিয়ে পানিবন্দি আট পরিবার! বাকেরগঞ্জে ইউএনও’র কাছে অভিযোগ দিয়ে পানিবন্দি আট পরিবার! - ajkerparibartan.com
বাকেরগঞ্জে ইউএনও’র কাছে অভিযোগ দিয়ে পানিবন্দি আট পরিবার!

3:56 pm , September 7, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বাকেরগঞ্জ উপজেলার ১নং চরামদ্দি ইউনিয়নের উত্তর সঠিখোলা গ্রামে সরকারী কালভার্ট আটকিয়ে বালু ভরাট করায় মাসব্যাপী পানিবন্দি অবস্থায় থাকা পরিবারগুলো ইউএও’র কাছে লিখিত অভিযোগ দেয়। এটাই যেন তাদের এখন কাল হয়ে দাড়িয়েছে। পানি অপসারনের কোন ব্যবস্থা নেয়া তো দুরের কথা, উল্টো চরামদ্দি ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারের রোষানলে পড়েছেন তারা। হুমকি দিয়েই ক্ষ্যান্ত হননি আরিফ মেম্বার, ১৬ হাজার টাকা দিলে সমাধান করা হবে, নইলে ইউএনওর কাছে গিয়ে যা পারেন করেন। এমনটা সাফ জানিয়ে দিয়েছেন ৯নং ওয়ার্ড মেম্বার আরিফুর রহমান। এসব কথা উল্লেখ করে বাকেরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সজল চন্দ্র শীলকে সরেজমিনে এসে তদন্ত পূর্বক যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগী শিরিন বেগম। বুধবার তিনি আবারো বাকেরগঞ্জ ইউএনও অফিসে গিয়ে সরাসরি এসব অভিযোগ করেন।
জানাগেছে, চরামদ্দি ইউপি চেয়ারম্যান সাহাবুদ্দিন খোকনকে ভুক্তভোগী এসব পানিবন্দি পরিবারের বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন বাকেরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। নির্দেশ পেয়ে এলাকায় গিয়ে ভুক্তভোগী পরিবারগুলোকে উল্টো শাসিয়েছেন চেয়ারম্যান খোকন ও তার সহযোগী আরিফ মেম্বার। ইউএনও কাছে কেন গেছেন এমন প্রশ্ন করে বলেন, এখন পারলে ইউএনও সমাধান করুক। পরে সমাধানের খরচ বাবদ ১৬ হাজার টাকা দাবি করেন তারা।
গত প্রায় ১ মাস আগে চরামদ্দির ৯নং ওয়ার্ডের নিউ মার্কেটের দক্ষিণপাশে সিঙ্গাপুর প্রবাসী ছালাম হাওলাদার (ফারুখ) তার জমিতে ব্যবসায়িক মার্কেট নির্মাণের জন্য বালু ভরাট করেন। সেখানে কয়েকটি বাড়ি ঘরের পানি নিস্কাসনের একমাত্র কালভার্ট ভরাট করে বালু ফালানো হয়। এতে প্রায় ১ মাস যাবৎ পানিবন্দি হয়ে পড়ে অন্তত ৮টি পরিবার। যার মধ্যে রয়েছে শামসুল হক মিন্টু, আলমগীর হোসেন আলম, ছত্তার জোমাদ্দার, নুর ইসলাম, তাজেল জোমাদ্দার, স্বপন হুজুর ও শাখাওয়াত এর পরিবার। ঘরে ঢুকতে হাটুর উপরে পানি। দুর্বিষহ জীবন যাপন করছে এসব পরিবারগুলো। এ অবস্থা থেকে রেহাই পেতে তারা প্রথমে ৯নং ওয়ার্ড মেম্বার আরিফুর রহমানের কাছে যায়। কিন্ত বালু ভরাটকারী আরিফ মেম্বারের মামাতো ভাই হওয়ায় তিনি কোন ব্যবস্থা নেননি। এরপরে চেয়ারম্যানের কাছে গেলে তিনিও আরিফ মেম্বারের বাধাঁর মুখে কোন ব্যবস্থা নিতে পারেন নি। এখন নিরুপায় হয়ে পানিবন্দি এসব পরিবারগুলো বাকেরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দেন।
পানিবন্দি একজন শামসুল হক মিন্টু বলেন, গায়ের জোরে কালভার্ট আটকে আমাদেরকে পানিবন্দি করেছে। তাদেরকে বার বার বলার পরেও কালভার্টে পাইপ দেয়নি। কালভার্টে পানি নিস্কাসনের জন্য কয়েকটি পাইপ দিলে এভাবে পানি জমতো না। আমার পুকুর তলিয়ে যাওয়ায় সেখানে নেট দিয়ে রেখেছি। মাছ কি পরিমান উঠে গেছে জানিনা। আমরা এর স্থায়ী সমাধান চাই।
আলমগীর হোসেন আলম বলেন, হাটু অব্দি প্যান্ট উচিয়ে ঘরে যাওয়া আসা করতে হয়। কালভার্ট আটকিয়ে দেওয়ায় যে কোন মুহুর্তে আরো বৃষ্টি হলে ঘরও তলিয়ে যেতে পারে। কেননা পানি নামার আর কোন পথ নেই। একমাত্র কালভার্টটি এভাবে আটকে মহাবিপদে ফেলেছে।
এদিকে খোঁজ নিয়ে আরো জানা গেছে, এখানে বসবাসকারী এসব পরিবারের অনেকেই গত ইউপি নির্বাচনে আরিফ মেম্বারের পক্ষে কাজ করেনি। তাই তিনি এমন শোধ নিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন কেউ কেউ। এসব অভিযোগের বিষয়ে চরামদ্দি ইউপির ৯নং ওয়ার্ড মেম্বার আরিফুর রহমান বলেন, আমি বিষয়টি জানি। দেখি কি করা যায়। আত্মীয়ের পক্ষ নেওয়া ও ভোট না দেওয়ার শোধ নিচ্ছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে আরিফ মেম্বার “একথা আপনাকে বলতে আমি বাধ্য না” এই বলে ফোনটি কেটে দেন। এ বিষয়ে জানার জন্য চরামদ্দি ইউপি চেয়ারম্যান সাহাবুদ্দিন খোকনের মোবাইলে বার বার ফোন দিলেও তিনি ফোনটি রিসিভ করেননি। এ বিষয়ে বাকেরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সজল চন্দ্র শীল বলেন, অভিযোগ পেয়ে আমি চরামদ্দি ইউপি চেয়ারম্যানকে সমাধানের দায়িত্ব দিয়েছিলাম। তিনি সমাধান না করে থাকলে বিষয়টি আমি নিজেই গুরুত্বসহকরে দেখবো

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT