রাজাপুরে জাল নোটে দেনা পরিশোধ অবশেষে জেল হাজতে! রাজাপুরে জাল নোটে দেনা পরিশোধ অবশেষে জেল হাজতে! - ajkerparibartan.com
রাজাপুরে জাল নোটে দেনা পরিশোধ অবশেষে জেল হাজতে!

3:55 pm , September 7, 2022

ঝালকাঠি প্রতিবেদক ॥ রাজাপুরে জাল টাকার নোট দিয়ে দেনা পরিশোধ করে জেল হাজতে গেছে এক নারী। বিউটি মিস্ত্রি নামে ওই নারী তার পাওনাদার সুবর্ন হালদারকে টাকা পরিশোধ করে। পরে সুবর্না ঐ টাকা নিয়ে দোকানে মালামাল কিনতে গেলে দোকানদার তাকে জাল টাকা বলে ৫ শত টাকার একটি নোট ফিরিয়ে দেয়। এরপরে সুবর্না বিউটি মিস্ত্রির নিকট জাল টাকা দেওয়ার কারন জানতে চেয়ে তা ফিরিয়ে দিয়ে আসল নোট দেওয়ার দাবী জানায়। এ নিয়ে তাদের মধ্যে বসচা শুরু হলে পুলিশ তাদের দুজনকে আটক করে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদের পর বুধবার পাওনাদার সূর্বনা হালদার বাদী হয়ে বিউটি মিস্ত্রিকে আসামী করে রাজাপুর থানায় মামলা করে। পুলিশ তাকে আদালতে সোপর্দ করে। আদালত বিউটি মিস্ত্রিকে জেলহাজতে প্রেরন করেছে। মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৫ টায় উপজেলার সাতুরিয়া ইউনিয়নের নৈকাঠি এলাকার সূর্বনা হালদারের পাওনা টাকা পরিষোদের নামে বিউটি মিস্ত্রির জাল টাকার নোট লেনদেনের এ ঘটনা ঘটে বলে থানা পুলিশ সূত্রে জানাগেছে।
সুবর্ণা হালদার জানায়, নৈকাঠি এলাকার পূর্বপরিচিত ননী হালদারের স্ত্রী সুবর্ণার কাছ থেকে একই এলাকার সরকারী আবাসনের জয়ন্ত মিস্ত্রীর স্ত্রী বিউটি পাঁচ মাস পূর্বে ১৭ হাজার টাকা ধার নেয়। ১৫ দিন পূর্বে বিউটি তার দেনার টাকা শোধ করতে এসে সবগুলো ৫শ টাকার নতুন নোট প্রদান করেন। সে টাকা রেখে দিলে পুনরায় বিউটি নতুন ৫শ টাকার নোটের ৫হাজার টাকা দিয়ে সুবর্ণার কাছ থেকে পুরাতন নোটের ৫হাজার টাকা পাল্টে নেয়।
গত ৫ সেপ্টেম্বর সোমবার ঐ টাকা থেকে সুবর্ণা পাঁচশত টাকার ১টি নোট নিয়ে মালামাল কিনতে গেলে দোকানদার নোটটি জাল সন্দেহ করে সুবর্ণাকে ফিরিয়ে দেয়। তখন সে ছুটে বাড়ীতে এসে বিউটির দেয়া বাকী ২১ হাজার পাঁচশত টাকা বেড় করে সবগুলো টাকার নোটই জাল বলে নিশ্চিত হয়।
গত ৬সেপ্টেম্বর সুবর্ণা জাল নোটগুলো নিয়ে বিউটির কাছে গিয়ে নোট গুলো সে কোথায় পেয়েছে জানতে চায়। এতে বিউটি ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে ও সে এই নোটগুলো দেয়ার কথা অস্বীকার করে। এক পর্যায়ে সে রাজাপুর থানায় এসে সুবর্ণার নামে জাল টাকা দিয়ে তাকে ফাঁসানো উল্টো অভিযোগ দেয়।
সুবর্ণা রাজাপুর থানায় বিউটির বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ উভয় অভিযোগ প্রাথমিক তদন্তে করে।
এসময় স্থানীয়রা জানায় বিউটি মিস্ত্রী এর আগেও ইসলামি ব্যাংকে ঋণ পরিশোধ করতে জাল টাকার প্রদান করে ধরা পরেছিল। ধরা পড়ে বিউটি জানায়, ঐ টাকা গুলো সে পার্শ্ববর্তী কাউখালী উপজেলার রিসোর্স ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন নামে একটি এনজিও থেকে ঋণ হিসাবে এনেছে।
এ বিষয়ে পুলিশ রিসোর্স ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন ব্যবস্থাপক মো. জুয়েল তালুকদারের কাছে জানতে চাইলে সে বলেন, আমরা ব্যাংকে চেকের মাধ্যমে গ্রাহকদের ঋণ অর্থ দেই, কোন নগদ টাকা দেই না।
এ ব্যাপারে রাজাপুর থানার ওসি তদন্ত মোঃ মোস্তফা জানান, দুজনকেই থানা হেফাজতে রেখে প্রাথমিক তদন্তের পর সূর্বনা হালদারকে ছেড়ে দেয়া হয়। এরপর সূর্বনা হালদার বাদী হয়ে বিউটির বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করলে তাকে উক্ত মামলায় আদালতে চালান দেয়া হয়।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT