জমে উঠেছে ঝালকাঠি ভীমরুলীর ভাসমান পেয়ারার হাট জমে উঠেছে ঝালকাঠি ভীমরুলীর ভাসমান পেয়ারার হাট - ajkerparibartan.com
জমে উঠেছে ঝালকাঠি ভীমরুলীর ভাসমান পেয়ারার হাট

4:20 pm , July 29, 2022

রিয়াজুল ইসলাম বাচ্চু, ঝালকাঠি ॥ মৗসুমের শুরুতেই এবার জমে উঠেছে ঝালকাঠির ভিমরুলী ও পিরোজপুর নেছারাবাদের আটঘর কুড়িয়ানার ভাসমান পেয়ারার হাট। ভাসমাস হাটে বেড়েছে পর্যটকদের আনাগোনা। ক্রেতা বিক্রেতার কোলাহলে এখন মুখর ভিমরুলীর ও আটঘর কুড়িয়ানার ভাসমান পেয়ারর হাট। কোন কোন জাযগায় এবার ফলন ভালো হওয়ায় আশাবাদি চাষীরা। এদিকে কৃষি বিভাগ বলছে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দেয়া হবে চাষিদের। গত বছর করোনা পরিস্থিতির কারনে এখানে পর্যটকের আসা প্রায় বন্ধই ছিলো। এছাড়া লক ডাউনে পরিবহন সংকটে গতবার পেয়ারায় ক্ষতি গুনতে হয়েছে এখানকার চাষিদের। কিন্তু এবার পরিস্থিতি ভিন্ন। পাইকাররা জানান চাষিদের কাছ থেকে ৪০০ টাকা মন কিনে খুচরা বাজারে বিক্রি করছেন ৬০০ টাকা। হাটে আসা পাইকারি ক্রেতা বিত্রেতারা জানান ভিমরুলীর ভাসমান হাটের এ পেয়ারা যাচ্ছে ঢাকা চট্্রগ্রামসহ সারাদেশে। পদ্মা সেতু চালু হাবার পরে এখন আর পেয়ারা নষ্ট হচ্ছেনা। প্রতিদিনই মিনি ট্রাকে পদ্মা সেতু হয়ে পেয়ারা পৌছে যাচ্ছে ঢাকার কাওরান বাজারে। কৃষি বিভাগ সূত্র জানায়, সদর উপজেলার কৃত্তিপাশা ইউনিয়নের ভিমরুলী, খাজুরা, ডুমুরিয়া ও বৈরামপুর গ্রাম এবং নবগ্রাম ইউনিয়নের জগদিশপুর, বৈহার, মীরকাঠি ও কাপড়কাঠি গ্রামেই মুলত পেয়ারার ফলন বেশি হয়ে থাকে। তবে পেয়ারার বড় হাট হয় প্রতিদিন ভিমরুলীর খালেই। অন্যদিকে পিরোজপুর নেছারাবাদের আটঘর কুড়িয়ানার ভাসমান পেয়ারার হাটও জমে উঠেছে। জিন্দাকাঠি, আদমকাঠি, মাহামুদকাঠি, দলহার, ব্রাক্ষনকাঠি, সঙ্গিতকাঠি। ঝালকাঠি সদর উপজেলায় এ বছর ৫৩০ হেক্টর জমিতে পেয়ারার চাষ হয়েছে। উৎপাদনের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে ৫ হাজার তিনশো মেট্রিক টন। যা আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় ৮ কোটি টাকা। ঝালকাঠি সদর উপজেলার সাওরাকাঠি গ্রামের পেয়ারা চাষী রনক জানায় “এ বছর পেয়ারার ফলন কম তবে বাজার মূল্য ভালো।” ঝালকাঠি সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুলতানা আফরোজ জানান, “এবারে উৎপাদন ভালো, কৃষি বিভাগের পক্ষ হতে পেয়ারা চাষিদের প্রয়োজনীয় সহয়তা দেয়া হবে।” রমজানকাঠি কারিগরি ও কুষি কলেজের বিভাগীয় প্রধান কৃষিবিদ ড. চিত্ত রঞ্জন সরকার বলেন, “এ বছর পেয়ারার ফলন ভালো না। সঠিক সময় বৃষ্টি না হওয়ায় পেয়ারার আকার ছোট হয়েছে। তাছাড়াও এলাকায় ২০০ বছর আগে পেয়ারা চাষ শুরু হয়েছে। ফলে অনেক গাছই বৃদ্ধ রয়েছে। বৃদ্ধ গাছের পেয়ারা আকারে ছোট হয় এবং ফলন কম হয়।”

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT