যে আগে সালাম দেয় সে নিরহংকারী যে আগে সালাম দেয় সে নিরহংকারী - ajkerparibartan.com
যে আগে সালাম দেয় সে নিরহংকারী

3:19 pm , July 22, 2022

= জুম্মাবার =

বিশেষ প্রতিবেদক ॥ সালাম পরস্পরের মোহাব্বত বৃদ্ধি করে। মনের সব অহংকার দূর করে। যে আগে সালাম দেয় সে নিরহংকারী। জুম্মারদিন সকলের আগে মসজিদে আসা আল্লাহর আদেশ। সুন্দর পোশাক পরে, খুশবু মেখে পথে আসতে আসতে আগে সালাম দেয়া নবীজী সাঃ এর সুন্নত। কারণ আমাদের নবী করিম সাঃ ছোট বড় সবাইকে আগে সালাম দিতেন। এভাবেই জুম্মাবারের আলোচনা শুরু করেন বরিশাল নগরীর বটতলার হাজী উমর শাহ জামে মসজিদের ঈমাম হাফেজ মাওলানা শহীদুল ইসলাম। ২২ জুলাই শুক্রবার জুম্মার ফজিলত ও রাসুলুল্লাহ সাঃ এর সুন্নত হিসেবে সালাম – বিষয়ে গুরুত্ব আরোপ করে আলোচনার বিস্তার ঘটান তিনি। পবিত্র কোরআন থেকে সূরা জুম্মা ও বোখারী, মুসলিম শরীফের হাদিস তুলে ধরে ঈমাম শহীদুল ইসলাম বলেন, নবী করিম সাঃ কে ভালোবাসার দাবী করলে সবার আগে তার কাজের অনুসরণ করতে হবে। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তাআলা বলেন-হে মুমিনগণ! জুমার দিনে যখন নামাজের আজান দেওয়া হয়, তখন তোমরা আল্লাহর স্মরণে সব কাজ, বেচাকেনা বন্ধ কর এবং মসজিদের দিকে ছুটে যাও। এটা তোমাদের জন্যে উত্তম যদি তোমরা বুঝ।’ (সুরা জুমআ : আয়াত ৯) এ আয়াতে কারিমায় সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা এসেছে, জুমআর নামাজের আজান হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে হাতের সব কাজ রেখে মসজিদের দিকে নামাজের প্রস্তুতি নিয়ে ছুটে চলার। আর প্রিয় নবী সাঃ সব ওয়াক্তের নামাজের আজান শোনার সঙ্গে সঙ্গে মসজিদে যাওয়ার জন্য ব্যস্ত হতেন। হযরত আসওয়াদ বিন ইয়াজিদ রাঃ আনহু বলেন, ‘আমি হজরত আয়েশা রাঃ আনহাকে জিজ্ঞাসা করলাম যে, নবী সাঃ বাড়ীতে কি কি ধরনের কাজ করতেন? উত্তরে মা আয়েশা রাঃ বললেন-‘তিনি তার পরিবারের সব কাজে নিয়োজিত থাকতেন, তবে আজান শোনার সঙ্গে সঙ্গেই বাড়ি থেকে বের হয়ে যেতেন। (সহিহ বুখারি)
ঈমাম আরো বলেন, যারা আল্লাহকে ভালোবাসতে চায়, তারা যেন রাসুলকে ভালেবাসে। নিজের জীবনের চেয়ে বেশি ভালোবাসেন। এ নিয়েও কোরআন হাদিসে অনেক নির্দেশনা রয়েছে। ভালোবাসা ঈমানের আলামত। খোদ আল্লাহর রাসুল (সা.) এরশাদ করেন, তোমাদের কেউ ততক্ষণ পর্যন্ত ঈমানদার হতে পারবে না যতক্ষণ না তার কাছে আমি তার পিতামাতার চেয়ে, সন্তানাদির চেয়ে এবং সমস্ত মানুষের চেয়ে প্রিয় না হবো। (বুখারি, হাদিস : ১৫)
মুমিনের জন্য ভালোবাসার মূল কেন্দ্র স্বয়ং আল্লাহ পাক, তারপর হজরত মুহাম্মদ (সা.)। আর বাকি দুনিয়ার যতো প্রেমময় মানুষ আছে, যতরকমের ভালোলাগার জিনিস আছে সবকিছুর অবস্থান দ্বিতীয়তে। এই থেকে বোঝা যায় আল্লাহর রাসুলকে ভালোবাসা আমাদের প্রত্যেকের জন্য ওয়াজিব। কেননা দুনিয়াতে ভালোবাসার যতো কিছু আছে তার সবই তার কারণে প্রেমময়।
পবিত্র কুরআনে তাই আল্লাহ পাক এরশাদ করেন, নবীর ওপর মুমিনদের জানের চেয়ে বেশি হক আছে। (সুরা আহজাব, আয়াত : ৬) অর্থাৎ যেই ব্যক্তি নিজের জান-মাল ও প্রবৃত্তির ওপর নবীর প্রতি ভালোবাসাকে প্রাধান্য দিতে না পারবে, বোঝা যাবে তার ঈমানে ঘাটতি আছে।
একবার হজরত ওমর ফারুক (রা.) রাসুলকে (সা.) বলেন, ‘হে আল্লাহর রাসুল, আপনি আমার কাছে সবকিছুর চেয়ে বেশি প্রিয়, কেবল আমার জান ছাড়া।’ রাসুল (সা.) বলেন, ‘না (একথা সত্য নয়), আল্লাহর কসম যার হাতে আমার প্রাণ, ওইসময় পর্যন্ত (সত্য) নয়, যতক্ষণ না কারও কাছে আমি তার জানের চেয়ে বেশি প্রিয় হবো।’
তাই হে মুসলমান নবী করিম সাঃ এর অনুসরণ করতে আজ থেকে আসুন আমরা পথে ঘাটে সালাম আদানপ্রদানের প্রতিযোগিতা করি। সত্য বলার প্রতিযোগিতা করি। সত্যবাদিতা ইসলামের প্রথম ও প্রধান শর্ত। এটাও মনে রাখা জরুরী যে সত্যবাদিতা নবী রাসুলদের গুণাবলী।
দুনিয়ার সব কাজ, বিচার-ফয়সালা সত্য কথা বা সত্যবাদিতার ওপর নির্ভরশীল। আসামি কিংবা বিচারপ্রার্থী উভয়ই বিচারকের সামনে এ মর্মে হলফ করেন যে, ‘যা বলিব সত্য বলিব; সত্য বৈ মিথ্যা বলিব না’। এ সত্যবাদিতায় রয়েছে জীবনের পরম সুখ-শান্তি; সত্যবাদিতার মর্যাদা ও উপকারিতাও রয়েছে অনেকটা। আরেকদিন এ নিয়ে আলোচনা করবো ইনশাআল্লাহ। আল্লাহ আমাদের যা শ্রবণ করলাম তা আমল করার তৌফিক দিন।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT