বাবুগঞ্জে সুজন আহমেদকে সভাপতি করায় অনাস্থা দিয়ে সদস্যদের পদত্যাগ বাবুগঞ্জে সুজন আহমেদকে সভাপতি করায় অনাস্থা দিয়ে সদস্যদের পদত্যাগ - ajkerparibartan.com
বাবুগঞ্জে সুজন আহমেদকে সভাপতি করায় অনাস্থা দিয়ে সদস্যদের পদত্যাগ

3:46 pm , June 27, 2022

বাবুগঞ্জ প্রতিবেদক ॥ বাবুগঞ্জে ম্যানেজিং কমিটির (এডহক) সভাপতি সুজন আহমেদকে অনাস্থা প্রস্তাব করে কমিটির সদস্য পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন অন্যান্য সদস্যরা। সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার সপ্তাহের মাথায় তাঁকে অনাস্থা দিয়ে পদত্যাগ করেছেন কমিটির অন্যান্য সদস্যরা। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার দেহেরগতি ইউনিয়নের বাহেরচর আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে। খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, বাবুগঞ্জ উপজেলার দেহেরগতি ইউনিয়নের বাহেরচর আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ায় আগামী ছয় মাসের জন্য এডহক কমিটির সভাপতি নির্বাচনের লক্ষ্যে বিদ্যালয় কর্তৃক ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির সুপারিশ পাঠানো হয় বরিশাল শিক্ষাবোর্ডে। সেখানে সুজন আহমেদ নামে কোন সদস্যের নাম অন্তর্ভূক্ত ছিলো না। শিক্ষার্থী অভিভাবকদের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে প্রস্তাবিত তালিকার বাইরে থেকে কমিটি দিয়েছে শিক্ষা বোর্ড। এমনকি যাকে কমিটিতে সভাপতি করা হয়েছে সেই সুজন আহমেদ ওই বিদ্যালয়ের অভিভাবক বা কোনভাবেই সংশ্লিষ্ট নন বলে দাবি অভিভাবকদের। সম্পূর্ণ বোর্ডের নীতিমালা অমান্য করে সুজন আহমেদকে এডহক কমিটির সভাপতি মনোনিত করেন। ফলে শিক্ষার্থী অভিভাবকদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। ফলে অভিভাবক ও স্থানীয়রা বাহেরচর আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে অবরুদ্ধ করে বিক্ষোভ করেন। পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. মশিউর রহমানের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। এর রেশ কাটতে না কাটতেই গতকাল সোমবার এডহক কমিটির অভিভাবক সদস্য মো. আলমগীর হোসেন, এডহক কমিটির শিক্ষক প্রতিনিধি মো. বজলুর রহমান খান পদত্যাগ পত্র দাখিল করেন। এ বিষয়ে বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক মো. ইউসুফ আলী ইউসুফ আলী জানান, প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান বরাবর প্রেরণ করেন।
অভিভাবক সদস্য মো. আলমগীর হোসেন জানান, ‘সুজন আহমেদ অবিবাহিত, স্কুলে তার কোন সন্তানও লেখাপড়া না করা। এমনকি তিনি স্কুলের দাতাও নন। এ কারণে সকল অভিভাবকরা সুজনকে সভাপতি করার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন। তিনি বলেন, ‘সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী হেদেরগতি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মশিউর রহমান, মো. বজলুর রহমান এবং তৃতীয় নম্বরে শাহ্ আলমসহ যে কোন একজনকে সভাপতি করার প্রস্তাব করা হয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রধান শিক্ষক অনলাইনে ওই প্রস্তাবনা শিক্ষা বোর্ডে প্রেরণ করেন। এর দুদিন পরেই সেই প্রস্তাবনা উপেক্ষা করে কোন প্রকার তদন্ত ছাড়াই সুজন আহমেদকে সভাপতি করে আদেশ প্রদান করে শিক্ষা বোর্ড। এ খবরে ক্ষুব্ধ হন অভিভাবকরা। এদিকে না প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী অভিভাবক জানান, ইতিপূর্বে সুজন আহমেদ এক সংসদ সদস্যের ব্যক্তিগত সহকারী থাকার সুবাদে সরকারী বরাদ্দের টিআর, কাবিখা, গভীরনলকূপ বিক্রির মাধ্যমে কোটি টাকা আতœসাৎ করেছেন। এছাড়া সরকারী বরাদ্দকৃত সৌর বিদ্যুৎ এর স্ট্রিট লাইট, সোলার লাইট নিজ বাড়ির আঙিনায় স্থাপন করেছেন। যা এখনও দৃশ্যমান। এলাকায় সুদি ভাসাই (ওরফে কালাম বেপারী) নামে পরিচিত পিতার দশ বছর পূর্বেও ছিলো সাধারণ চলাচল। বিগত ৫ বছর সুজন আহমেদ উত্থাণের ফলে আজ বিপুল বিত্তবৈভবের মালিক বনে গেছেন। বিষয়টি এলাকার মানুষ ভালোচোখে দেখছেন না। তারা বলছেন দূর্নীতি পরায়ন মানুষ বিদ্যালয়ে কি উন্নয়ন করবেন! ফলে সুজন আহমেদকে তারা প্রত্যাক্ষাণ করেছেন। এ বিষয়ে সুজন আহমেদ বলেন, বোর্ডের নিয়মানুযায়ী আমি সভাপতি। সদস্যদের পদত্যাগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নিবে।
বরিশাল বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. ইউনুস বলেছেন, এডহক কমিটির সভাপতি বোর্ড নির্ধারন করে। তাকে বিদ্যালয়ের অভিভাবক বা সংশ্লিষ্ট হতে হবে এমন নিয়ম নেই। বোর্ড চেয়ারম্যান যাকে যোগ্য মনে করেন তাকেই এডহক কমিটির সভাপতি করতে পারেন। তবে আমরা সেটি না করে স্থানীয় সংসদ সদস্যর ইচ্ছাকে প্রধান্য দেই। ওই স্কুলের এডহক কমিটির সভাপতি যাকে করা হয়েছিলো তার বিষয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য গোলাম কিবরিয়া টিপু ডিও লেটার দিয়েছিলেন। তাই তাকে সভাপতি করা হয়েছে। এখন অন্যান্য সদস্যরা পদত্যাগ করলে আইন অনুযায়ী পরবর্তি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT