শেবাচিমে পেটে গজ রেখে সেলাই, এক চিকিৎসককে অব্যাহতি, দুই নার্সকে শোকজ শেবাচিমে পেটে গজ রেখে সেলাই, এক চিকিৎসককে অব্যাহতি, দুই নার্সকে শোকজ - ajkerparibartan.com
শেবাচিমে পেটে গজ রেখে সেলাই, এক চিকিৎসককে অব্যাহতি, দুই নার্সকে শোকজ

3:32 pm , June 12, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রসুতির পেটে গজ রেখে সেলাই করার ঘটনায় এক চিকিৎসককে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। এছাড়াও অস্ত্রপচারের সময় সহযোগি হিসেবে থাকা দুই নার্সকে কারন দর্শানোর (শো-কজ) নোটিশ দেয়া হয়েছে। ঘটনা তদন্তে গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পেয়ে রোববার এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলে জানিয়েছেন পরিচালক ডা. এইচএম সাইফুল ইসলাম। তিনি জানান, প্রসুতির পেটে গজ রেখে সেলাই দেয়ার ঘটনায় গঠিত তিন সদস্য বিশিষ্ট কমিটি শনিবার প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে দায়িত্বরত হাসপাতালের অনারারি (অবৈতনিক) সার্জন ডা. মো তারেকের দায়িত্বে অবহেলার প্রমান মিলেছে। তাই তাকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। এছাড়া বিষয়টি চিঠি আকারে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে অবহিত করে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পাঠানো হয়েছে। তিনি আরো জানান, অব্যাহতি প্রাপ্ত চিকিৎসক তারেক এমবিবিএস পাস করে হাসপাতালের গাইনি বিভাগে ছয়মাসের প্রশিক্ষণ নিচ্ছিলেন। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ায়, সে এখন থেকে আর হাসপাতালে প্রশিক্ষন নিতে পারবেন না।
শোকজ প্রাপ্ত দুই ষ্টাফ নার্স মিঠু রানী দাস এবং সুমী সরকারকে সাত কার্যদিবসের মধ্যে কারণ দর্শানোর জন্য বলা হয়েছে।
তদন্ত কমিটির প্রধান হাসপাতালের সার্জারী বিভাগের প্রধান ডা. মো. নাজিমুল হক বলেন, সম্পূর্ন অবহেলা ও অসতর্কতার কারনে ঘটনাটি ঘটেছে। সব কিছু বিবেচনা করে প্রতিবেদন দিয়েছি। দায়িত্বরতদের সজাগ রাখতে অবহেলাকারীকে শাস্তি দিয়ে উদাহরন সৃষ্টি করতে হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।
প্রসুতির স্বামী নলছিটি উপজেলার বাসিন্দা জিয়াউল হাসান জানান, গত ১৬ এপ্রিল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে কন্যাসন্তান জন্ম দেয় স্ত্রী শারমিন আক্তার শীলা। অস্ত্রোপচারের পর তার পেটে গজ রেখেই সেলাই দেয়া হয়।
স্ত্রীকে নিয়ে বাড়ি ফেরার কিছু দিন পর থেকে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। বিষয়টি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানালে তাকে পুনরায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত ২২ মে পূনরায় অস্ত্রোপচার করে গজ অপসারণ করা হয়।
হাসপাতাল পরিচালক জানান, এ ঘটনা গত ৩১ মে তিন সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। সার্জারি বিভাগের প্রধান ও কলেজের উপাধ্যক্ষ ডা. নাজিমুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের কমিটির অন্য দুই সদস্য ছিলেন সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) মনিরুজ্জামান শাহীন ও গাইনী বিভাগের প্রধান খুরশীদ জাহান।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT