প্রতিমন্ত্রীর হাতে ফুল দিয়ে রাজনীতির মাঠে ড. আরিফ প্রতিমন্ত্রীর হাতে ফুল দিয়ে রাজনীতির মাঠে ড. আরিফ - ajkerparibartan.com
প্রতিমন্ত্রীর হাতে ফুল দিয়ে রাজনীতির মাঠে ড. আরিফ

3:27 pm , June 4, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ প্রাইমারী থেকে মাধ্যমিক, এরপর কলেজ। কলেজের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশে গিয়ে ডক্টরেট ডিগ্রি নিয়ে পেশায় নিজেকে একজন বড় মাপের আইনজীবী হিসেবে নিজেকে গড়েছেন ড. আরিফ বিন ইসলাম। দেশে যেমন ছাত্রলীগের সাথে নিজেকে জড়িয়ে রেখেছিলেন। ঠিক তেমনটি বিদেশে গিয়ে ভোলেননি বঙ্গবন্ধু ও দেশকে। সেখানে গিয়েও যুবলীগের রাজনীতির সাথে জড়িয়ে ছিলেন ড. আরিফ বিন ইসলাম। এখন নিজেকে মুল দলের সাথে সম্পৃক্ত করতে গতকাল শনিবার জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি প্রতিমন্ত্রী কর্ণেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীমের হাতে তুলে দিয়েছেন ফুলের তোড়া। তাকে জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু ও আওয়ামী লীগের প্রতি তার ভালোবাসা ও ভালোলাগার বিষয়টি। প্রতিমন্ত্রী ফারুক তার মধ্যে বঙ্গবন্ধু এবং আওয়ামীলীগের রাজনীতির প্রতি ভালোবাসা দেখে তাকে বরিশালের মানুষের জন্য কাজ করার উৎসাহ জোগান। এরপর তাকে নিয়ে বিভিন্ন স্থানে একাধিক প্রোগ্রাম করেন জাহিদ ফারুক শামীম। ওই সকল স্থানে আরিফ বিন ইসলাম বক্তৃতা করেন।
বরিশাল ল’ কলেজ থেকে পাশ করে ড. আরিফ বিন ইসলাম বরিশাল ল কলেজের সাবেক জিএস, কানাডায় থাকাকালীন সেখানকার আওয়ামী যুবলীগ সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য এবং বর্তমানে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রম ও জনশক্তি বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য পদে দায়িত্ব পালন করেন।
বরিশালে ড. আরিফ বিন ইসলামের পরিবারকে বলা হয় আওয়ামীলীগ পরিবার। কারন বাবা মৃত এ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম থেকে শুরু করে ভাইবোন সকলেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক।
বিরোধী দলে থাকাকালীন বরিশালে বিক্ষোভ মিছিল থেকে শুরু করে সভা-সমাবেশ করতে গিয়ে বেশ কয়েকবার হামলার শিকার হয়ে রক্তাক্ত হন ড. আরিফ বিন ইসলাম। এ হামলার প্রতিবাদের বরিশাল নগরীতে হরতালের ডাকও দেয়া হয়। এভাবে বরিশাল আওয়ামী লীগ থেকে শুরু করে প্রতিটি অঙ্গ সংগঠনের কর্মসূচীতে ড. আরিফের উপস্থিতি ছিল দেখার মতো। তবে কেনো এতদিন নিশ্চুপ ছিলেন। তার উত্তর না দিয়ে আগামীর পথচলার বিষয়ে কথা বললেন তিনি।
বরিশালের রাজনীতিতে আবার সক্রিয় হয়ে ওঠার পিছনের কারন জানতে চাইলে ড. আরিফ বিন ইসলাম বলেন, নগরীর নাজিরমহল্লায় তার বেড়ে ওঠা। সেখান থেকেই রাজনীতি শুরু। তার পিতা হচ্ছে ড. আরিফ বিন ইসলামের রাজনীতি গুরু। যে কোন সমস্যায় সমাধান দিতেন তার পিতা। রাজনীতি করতে গিয়ে বরিশাল নগরী থেকে শুরু করে ১০ উপজেলার মানুষের কাছে অতি পরিচিত মুখ হওয়ায় তাদের কাছে আবার ফিরে আসাই তার মূল লক্ষ্য। রাজনীতির মাধ্যমে একটি এলাকার মানুষের যত উপকার করা যায় তার আর কোন মাধ্যমে তা সম্ভব নয় বলে জানান ড. আরিফ। আর কানাডা থেকে দেশে আসার পর ঢাকায় আইন পেশায় ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। ইতিমধ্যে অগনিত মানুষ তাকে বরিশালের রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়ার পরামর্শ বলেন, আবদার বলেন, অনুরোধ বলেন সবকিছুই করেছেন বলে জানান তিনি। আর আমার মধ্যেও রয়েছে নিজ এলাকার মানুষের জন্য কিছু একটা করার। সেখান থেকেই আবারও বরিশালের রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়ার চেষ্টা করছি। এ জন্য জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক শামীমের সাথে দেখা করেছি। কথা হয়েছে দীর্ঘক্ষন। এলাকার মানুষের জন্য রয়েছে বিশাল একটি মণ রয়েছে প্রতিমন্ত্রীর। সেই মণ দিয়ে তিনি নগরী থেকে শুরু করে সদর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার উন্নয়নে ব্যাপক কাজ করছেন। গ্রামকে শহর করতে তার রয়েছে বিশাল পরিকল্পনা। আর সেই পরিকল্পনায় তাকে আগামীতেও বরিশাল সদর আসন থেকে এমপি নির্বাচিত হতে কোন বেগ পেতে হবে না। আর এমন একজন মানুষের সাথে থেকেই রাজনীতি করতে চাই। যার মাধ্যমে আমাদের বরিশালের গোটা এলাকার চিত্র পাল্টে যাবে।
বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি কর্ণেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীম বলেন, বঙ্গবন্ধু এবং আওয়ামী লীগের ভালোবাসা যাদের মধ্যে রয়েছে তাদের জন্য আমিও আছি। সেই হিসেবে ড. আরিফ বিন ইসলামকে বরিশাল রাজনীতিতে সক্রিয় করার সাথে সাথে আরো যারা নিষ্ক্রিয় হয়ে রয়েছে তাদেরকেও আমি আহ্বান জানাবো রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়ার। এ জন্য যা কিছু করার দরকার আমি তাদের জন্য তা করতে প্রস্তুত। এতে করে আমাদের প্রধানমন্ত্রীর হাত আরো শক্তিশালী হবে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT