দক্ষিণাঞ্চলে সরকারী হাপাতালে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা ৪০ হাজার ছাড়িয়েছে দক্ষিণাঞ্চলে সরকারী হাপাতালে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা ৪০ হাজার ছাড়িয়েছে - ajkerparibartan.com
দক্ষিণাঞ্চলে সরকারী হাপাতালে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা ৪০ হাজার ছাড়িয়েছে

3:32 pm , June 1, 2022

বিশেষ প্রতিবেদক ॥ দক্ষিণাঞ্চলের অস্বস্তিকর ডায়রিয়া পরিস্থিতি এখনো জনজীবনে যথেষ্ট উদ্বেগ সৃষ্টি করছে। গত ৪ মাসে দক্ষিনাঞ্চলের ৪২ উপজেলায় ৪০ হাজারেরও বেশী ডায়রিয়া রোগী বিভিন্ন সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য এসেছেন। এরমধ্যে গত এক মাসের সংখ্যাটাই প্রায় সাড়ে ১১ হাজার। এখনো বরিশাল জেনারেল হাসপাতাল ও শের এ বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বেডে ডায়রিয়া রোগীর ঠাই হচ্ছে না। দক্ষিনাঞ্চলের বেশীরভাগ জেলা ও উপজেলা হাসপাতালগুলোই ডায়রিয়া রোগীতে ঠাশা। গত এক সপ্তাহেই এসব হসপাতালে প্রায় আড়াই হাজার রোগীর চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। তবে এর বাইরে বিভিন্ন বেসরকারী হাসপাতাল ও ক্লিনিক সহ চিকিৎসকদের চেম্বার থেকেও ব্যবস্থাপত্র নিয়ে ঘরে বসে বিপুল সংখ্যক ডায়রিয়া আক্রান্ত মানুষ চিকিৎসা নিয়েছেন। ওয়াকিবহাল মহলের মতে, সরকরী হাপতালে ৪০ হাজার মানুষ চিকিৎসা নিলেও বেসরকারী পর্যায়ে অন্তত ৩গুন ডায়রিয়া আক্রান্ত চিকিৎসা নিয়েছেন। যে পরিসংখ্যান স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে নেই।
তবে একাধিক সূত্রের মতে, দক্ষিণাঞ্চলে গত ৪ মাসে ডায়রিয়া আক্রান্তের সংখ্যা ইতোমধ্যে দু লাখ অতিক্রম করেছে। কিন্তু স্বাস্থ্য বিভাগের দায়িত্বশীল মহল থেকে এ ব্যপারে কোন মন্তব্য করা হয়নি।
গতবছরও মার্চ থেকে জুলাই পর্যন্ত দক্ষিণাঞ্চলে প্রায় ৭০ হাজার ডায়রিয়া আক্রান্তকে বিভিন্ন সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। এবছরও মার্চের মধ্যভাগ থেকে দক্ষিণাঞ্চলে ডায়রিয়া পরিস্থিতি জটিল হতে শুরু করে। ৩১ মে পর্যন্ত এ অঞ্চলে যে ৪০ হাজার ২৯৭ জনের আক্রান্তের কথা বলেছে বিভাগীয় স্বাস্থ্য দপ্তর, তার অন্তত ৩৭ হাজারই আক্রান্ত হয়েছে মধ্য মার্চের পরে। এবারও গত বছরের মতই সর্বাধীক আক্রান্তের সংখ্যাটা বরিশালেই। ৩১ মে সন্ধা পর্যন্ত জেলায় আক্রান্ত প্রায় ১০ হাজারের মধ্যে দুই তৃতীয়াংশই বরিশাল মহানগরীতে। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আক্রান্ত দ্বীপ জেলা ভোলাতেও ইতোমধ্যে ডায়রিয়া আক্রান্তের সংখ্যা ৮ হাজার ছুতে চলেছে। এপ্রিলের শেষ থেকে পিরোজপুরেও ডায়রিয়া আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকে। এসময়ে জেলাটিতে প্রতি দিন গড়ে দেড় শতাধিক ডায়রিয়া আক্রান্ত মানুষ সরকারী হাসপাতালগুলোতে এসেছে। জেলাটিতে ইতোমধ্যে সাড়ে ৭ হাজারেরও বেশী ডায়রিয়া আক্রান্ত মানুষ জেলা উপজেলা সরকারী হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসা নিয়েছেন। পটুয়াখালীতেও ইতোমধ্যে ৬ হাজার ৭৩ জন ডায়রিয়া রোগী বিভিন্ন সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। বরগুনা জেলায়ও প্রায় সাড়ে ৪ হাজার ডায়রিয়া রোগী সরকারী হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসা নিতে এসেছেন। দক্ষিণাঞ্চলের সবচেয়ে ছোট জেলা ঝালকাঠীর অবস্থাও প্রায় একই। ইতোমধ্যে জেলা সদরের হাসপাতাল সহ অপর ৩টি উপজেলা হাসপাতালে প্রায় ৪ হাজার ডায়রিয়া রোগী চিকিৎসা নিয়েছেন।
তবে স্বাস্থ্য বিভাগের দায়িত্বশীল সূত্রের মতে গত সপ্তাহখানেক ধরে দক্ষিণাঞ্চলে বৃষ্টি হওয়ায় ডায়রিয়া পরিস্থিতির ইতিবাচক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বর্ষা মৌসুম আসন্ন হওয়ায় বিভাগীয় স্বাস্থ্য দপ্তর পরিস্থিতির উন্নতি আশা করছেন। স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে দক্ষিনাঞ্চলের ৬ জেলার ৪২ উপজেলায় ডায়রিয়া চিকিৎসায় ৪১৩টি মেডিকেল টিম কাজ করছে বলে জানান হয়েছে। তবে এসব টিমে সার্বক্ষনিক কোন চিকিৎসক নেই। দু-তিনটি টিমের দায়িত্বে একজন চিকিৎসক রয়েছেন। ডিপ্লোমাধারী চিকিৎসা কর্মীগন প্রয়োজনে মেডিকেল টিমের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসককে খবর দিলে তারা এসে সকটাপন্ন রোগীদের বাবস্থাপত্র দিচ্ছেন।
এদিকে বুধবার সকাল পর্যন্ত দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা উপজেলায় ১ হাজার সিসির প্রায় ৬৫ হাজার ব্যাগ এবং ৫শ সিসি’র ৩৭ হাজার ব্যাগ স্যলাইন মজুদ থাকলেও তা ইতোপর্বের যেকোন সময়ের তুলনায় কম বলে জানা গেছে। তবে বিভাগীয় পরিচালক স্বাস্থ্য জানিয়েছেন,বর্তমানে ডায়রিয়া আক্রান্তের তুলনায় পর্যাপ্ত স্যালইন মজুদ রয়েছে। উপরন্তু আরো স্যালাইন পাইপ লাইনে রয়েছে বলেও জনান তিনি।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT