উজিরপুরে মায়ের পরকিয়ার বলি শিশু দীপ্ত নিখোঁজের ৪ দিন পর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার উজিরপুরে মায়ের পরকিয়ার বলি শিশু দীপ্ত নিখোঁজের ৪ দিন পর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার - ajkerparibartan.com
উজিরপুরে মায়ের পরকিয়ার বলি শিশু দীপ্ত নিখোঁজের ৪ দিন পর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার

3:47 pm , May 31, 2022

শাকিল মাহমুদ বাচ্চু, উজিরপুর ॥ উজিরপুরে হারতায় নিখোঁজের চারদিন পর বস্তাবন্দি অবস্থায় স্কুল ছাত্র’র লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ । শিশুর লাশ উদ্ধারের ঘটনায় এক নারীসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। উদ্ধার করা হয়েছে শিশু দীপ্ত মন্ডলের (৮) লাশ। সে উজিরপুর উপজেলার হারতা ইউপির জামবাড়ি কাজিবাড়ি দিপক মন্ডলের ছেলে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- হারতা ছোট ব্রীজ সংলগ্ন সড়কের পাশের সেলুন মালিক রতন বিশ^াস (৩৮), তার স্ত্রী ইভা বিশ^াস (২৭) ও দোকানে কর্মচারী নয়ন শীল (৪০)। রতন হারতার নাথারকান্দি এলাকার নিবাশ বিশ^াসের ছেলে। কর্মচারী নয়ন স্বরুপকাঠি উপজেলার জগন্নাথকাঠি গ্রামের অতুল চন্দ্রের ছেলে। মঙ্গলবার দিনভর সাধারন মানুষ হত্যাকারীদের বিচারের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল করেন। ডিআইজি এসএম আক্তারুজ্জামান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। সাধারন মানুষ তার কাছে শিশু দীপ্ত হত্যাকান্ডের সঠিক তদন্ত ও হত্যাকারীদের কঠোর বিচারের দাবী করেন।
স্থানীয় ও পুলিশ সুত্রে জানা যায়, গত ২৭ মে রাতে নিজ বাড়ী থেকে স্কুল ছাত্র দিপ্ত মন্ডল (৯) নিখোঁজ হয়। পরদিন ২৮ মে তার বাবা দিপক মন্ডল উজিরপুর মডেল থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করেন। ঘটনার ৪ দিন পর প্রতিবেশী রতন বিশ্বাস ও নয়ন শীলের আচরনে স্থানীয়দের সন্দেহ হলে সোমবার গভীর রাতে তাদের দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা দু’জনে স্কুল ছাত্র দীপ্তকে হত্যা করে লাশ বস্তাবন্দি করে ডোবার মধ্যে লুকিয়ে রাখার কথা স্বীকার করলে স্থানীয়রা বিষয়টি পুলিশে জানায়। উজিরপুর মডেল থানার পুলিশ বস্তাবন্দি লাশটি উদ্ধার করে। উজিরপুর মডেল থানার ওসি আলী আর্শাদ বলেন, লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বরিশাল শেবাচিম হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। স্থানীয় ইউপি সদস্য কৃষ্ণ বাড়ৈ বলেন, নয়ন শীল সোমবার রাতে হারতা বাজারে তার সেলুনের মধ্যে রক্ত ধোয়ামোছা করার সময় লোকজন দেখে ফেলে পুলিশে সংবাদ দেয়। পুলিশ তাকে আটক করলে সে (নয়ন শীল) দীপ্ত হত্যাকান্ডের বর্ননা দিয়ে তার সহযোগী রতন বিশ্বাসের নাম প্রকাশ করেন। এ সময় রতন বিশ্বাস দীপ্তকে হত্যা করে ড্রামের মধ্যে ভরে ডোবার কাছে নিয়ে বস্তায় ভরে ফেলে দেয়। উজিরপুর থানার ওসি আলী আর্শাদ বলেন, আটককৃত ৩ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে ঘটনার সাথে আরো কেউ জড়িত আছে কিনা বা হত্যাকান্ডের কু¬ উৎঘাটনের চেষ্টা করা হয়েছে। এ রিপোট লেখা পর্যন্ত মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। এদিকে এ ঘটনায় বিকেলে বরিশাল জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. শাহজাহান হোসেন জানিয়েছেন, এখন পর্যন্ত হত্যার পুরো রহস্য উদ্ধার করা যায়নি। আটক তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে যে তথ্য পাওয়া গেছে তা যাচাই করা হচ্ছে। শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে। ময়না তদন্ত প্রতিবেদন এলে কিভাবে হত্যা করা হয়েছে নিশ্চিত বলা যাবে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরো বলেন, শিশুকে হত্যার পর সেলুনের বক্স সোফার মধ্যে লুকিয়ে রেখেছিলো। পরে বস্তা ও ড্রামে ভর্তি করে ভ্যানগাড়িতে করে নিয়ে সন্ধ্যা নদীতে ফেলে দেয়। নদীতে থাকা জাইলের (ঝাউ) খুটিতে আটকে পড়া অবস্থায় বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ড্রাম ও ভ্যানগাড়ি উদ্ধার করা হয়েছে। হত্যার রহস্য উদ্ধার হলে জানানো হবে বলে জানান তিনি। সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) ইকবাল হোছাইন, উজিরপুর থানার ওসি আর্শাদ আলী উপস্থিত ছিলেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT