নগরীতে বেপরোয়া উঠতি বয়সীদের উচ্চ গতির মোটরসাইকেল চালনা কেড়ে নিচ্ছে প্রাণ নগরীতে বেপরোয়া উঠতি বয়সীদের উচ্চ গতির মোটরসাইকেল চালনা কেড়ে নিচ্ছে প্রাণ - ajkerparibartan.com
নগরীতে বেপরোয়া উঠতি বয়সীদের উচ্চ গতির মোটরসাইকেল চালনা কেড়ে নিচ্ছে প্রাণ

3:30 pm , May 27, 2022

সাইদ মেমন ॥ নগরীতে স্কুল কলেজ পড়–য়া উঠতি বয়সীরাসহ কিশোরদের উচ্চ গতির মোটর সাইকেল নিয়ে বেপরোয়া গতিতে মহড়া দেয়া এখন ষ্টাইলে পরিনত হয়েছে। তাদের বেপরোয়া গতিতে চালিয়ে মহড়া দেয়া সচেতন নগরবাসীকে ভাবিয়ে তুললেও প্রতিরোধে কারো যেন কোন দায় নেই। নগরীসহ বিভিন্ন সড়কে একের পর এক মর্মান্তিক ও করুন মোটর সাইকেল দুর্ঘটনা ঘটলেও প্রতিরোধে কেউ এগিয়ে আসছে না। এসব উঠতি বয়সীদের অভিভাবকদের যেন কোন খেয়াল নেই। সন্তানদের বেয়ারাপনা আবদার মেটাতে অভিভাবকরাও সন্তানদের জীবন ঠেলে দিচ্ছেন মৃত্যুর মুখে। উচ্চমুল্যের দ্রুত গতি সম্পন্ন মোটর সাইকেল কিনে দিয়ে নিজেরাও শিকার হচ্ছেন করুন ও মর্মান্তিক ঘটনার। এরপরেও কারো মধ্যে কোন হুশ নেই। বৃহস্পতিবার দিনগত গভীর রাতে নগরীতে বেপরোয়া গতি কারনে প্রান হারিয়েছে দুই কলেজ ছাত্র। দুই সন্তানকে হারিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে শোকের ছায়া অন্যান্যদের মধ্যে কোন প্রতিক্রিয়া নেই। মর্মান্তিক ও হৃদয়বিদারক দুর্ঘটনার কয়েক ঘন্টার মধ্যে শুক্রবার দিনভর নগরীর বিভিন্ন এলাকায় দেখা গেছে উঠতি বয়সীদের বেপরোয়া গতির মোটর সাইকেল মহড়া। এদের প্রতিরোধে আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর তেমন কোন ভুমিকা দেখা যায়নি।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, নগরীর বিভিন্ন দর্শনীয় এলাকায় উঠতি বয়সী যুবকদের বেপরোয়া গতির মোটর সাইকেল মহড়া চলছে। একেকটি মহড়ায় কমপক্ষে পাঁচটি থেকে সর্বোচ্চ ১৫/২০টি মোটর সাইকেল দেখা যায়। উঠতি বয়সী এসব তরুন কিশোরদের সাথে তরুনী ও কিশোরীদের দেখা যায়।
নগরীর ৪ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা সামসুল হুদা রিপন জানান, উপকণ্ঠ চরবাড়িয়া ও শায়েস্তাবাদ ইউপির সংযোগ সেতু এবং ঢাল বর্তমানে দর্শনীয় এলাকা হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। এছাড়াও কীর্তনখোলা নদীর চরবাড়িয়া এলাকায় তীর ব্লক দেয়া হয়েছে। দীর্ঘ এলাকায় নদীর ব্লক দেয়ায় স্থানটি দর্শনীয় হয়ে উঠেছে। তাই প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত উঠতি বয়সী যুবকদের মোটর সাইকেল নিয়ে মহড়া দিয়ে এলাকায় আসে। তাদের নিয়ে সব সময় আতংকিত থাকতে হয়।
কারন হিসেবে রিপন বলেন, তাদের দামি ও উচ্চ গতির মোটর সাইকেলে বেপরোয়া গতির কারনে সব সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংকায় থাকতে হয়। প্রায় প্রতিদিন ছোট বড় দুর্ঘটনা ঘটে। কিন্তু এদের প্রতিরোধে কেউ এগিয়ে আসে না। এদের কারনে এলাকার যে কোন পথচারী বড় ধরনের দুর্ঘটনার শিকার হতে পারে জানিয়ে প্রতিরোধে সংশ্লিষ্টদের এগিয়ে আসার আহবান জানিয়েছেন।
স্থানীয় বাসিন্দা সোহেল সিকদার জানান, এদের মহড়া টের পেলে নিজে দ্রুত সড়কের নিরাপদ স্থানে সরে যাই। কারন এদের কারনে নিজের জীবন ঝুকিতে পড়বে।
এদের প্রতিরোধে যাদের এগিয়ে আসা উচিত সেই পুলিশ ও ট্রাফিক পুলিশের কোন তৎপরতা নেই। সাধারন মানুষ এদের প্রতিরোধে কিছু বললে উল্টো বিপদে পড়তে হয়। প্রতিবাদ করলে প্রভাবশালী পরিবারের সন্তান ও ক্ষমতাসীন দলের কোন নেতার কর্মী উঠতি বয়সীদের কাছে নাজেহাল হতে হয়।
তার দাবি চরবাড়িয়ার তালতলী এলাকায় থানা ও ট্রাফিক পুলিশের নজরদারী বাড়ানো। তাহলে এদের বেপরোয়া গতির চালনা হয়তো কমবে। সচেতন এক বাসিন্দা জানান, এদের কাছে থাকা মোটর সাইকেল বিদেশী বিভিন্ন ব্রান্ডের উচ্চ দাম ও গতি হয়। সবনি¤œ তিন থেকে ৬ লাখ টাকা দামের মোটর সাইকেল থাকে। ওই বাসিন্দার প্রশ্ন কয়েক লাখ টাকা মুল্যে এসব মোটর সাইকেল অভিভাবকরা কেন কিনে দিয়ে সন্তানদের জীবন হুমকির মুখে ফেলেছে। এছাড়া এত টাকা দামের মোটর সাইকেল কিনে দেয়ার সামর্থ্য কতজন অভিভাবকের রয়েছে প্রশ্ন করেন ওই বাসিন্দা।
এছাড়াও নগরীর রাজাবাহাদুর সড়ক, বান্দরোড, বঙ্গবন্ধু উদ্যান, ৩০ গোডাউন এলাকায়ও উঠতি বয়সীদের বেপরোয়া গতির চালনায় বিভিন্ন যানবাহন, চালক, যাত্রী ও পথচারীরা আতংকে থাকেন।
নগরীর আমানতগঞ্জ এলাকার এক বাসিন্দা জানান, ওয়ার্কশপ ব্যবসায়ী বাবা নিজে পুরাতন মোটর সাইকেল চালায়। কিন্তু স্কুল পড়–য়া সন্তানকে ৫ লাখ টাকা মুল্যের মোটর সাইকেল কিনে দেয়। ওই মোটর সাইকেল বেপরোয়া গতিতে চালাতে গিয়ে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে সন্তানকে হারিয়েছে।
এমনভাবে উচ্চগতির মোটর সাইকেল কিনে দেয়ায় নিয়ন্ত্রন হারিয়ে প্রান গেছে, গত ৮ এপ্রিল বাকেরগঞ্জ পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ রুনসীর গ্রামের শেখ খলিলুর রহমান লোটাস’র ছোট ছেলে ও বাকেরগঞ্জ সরকারি কলেজের একাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থী শেখ মাহফুজের। দ্রুত গতিতে মোটর সাইকেল চালিয়ে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে রাস্তার পাশে সীমানা পিলারের উপর আছড়ে পড়ে নিহত হয়েছে সে। মোটর সাইকেল ভাড়া করে দপদপিয়া সেতুতে ঘুরতে এসে বাসের সাথে পাল্লা দিয়ে একই সাথে মারা গেছে বাকেরগঞ্জ জে এস মাধমিক বিদ্যালয়ে দশম শ্রেণীর ছাত্র রাব্বি (১৭), চয়ন (১৯) ও সিয়াম (১৯)। গত ৪ মে বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কে স্থানীয় থ্রি-হুইলার আলফা ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে নগরীর শাহপরান সড়কের বাসিন্দা শাজাহান মৃধার ছেলে নীরব (২৫) এবং একই এলাকার নাছির হাওলাদারের ছেলে লিমন (২০) নিহত হয়।
এ বিষয়ে সচেতন নাগরিক কমিটির সভাপতি শাহ সাজেদা পারিবারিক শিক্ষার উপর জোর দিয়ে বলেছেন, পিতা-মাতারা যদি সচেতন না হয়, তাহলে বিষয়টি প্রতিরোধ করা কষ্ট সাধ্য হবে। এছাড়াও তিনি আইনশৃংখলারক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি আহবান জানিয়েছেন মোটর সাইকেল চালনার জন্য সকলকে একটি নির্দিষ্ট বয়সসীমা নিধারনের।
বিএম কলেজের সাবেক এই অধ্যাপিকা আরো বলেন, বর্তমানে মোটর সাইকেল ক্রয় সহজলভ্য হয়েছে। কিছু টাকা দিলেই কিস্তিতে মোটর সাইকেল কেনা যায়। এটাও একটি নিয়মের মধ্যে আনতে হবে। কাদের কাছে বিক্রি করা হয়। তারা মোটর সাইকেলের মুল্য পরিশোধ করা ও পরিচালনার সার্মথ্য রয়েছে কিনা তাও দেখতে হবে।
তিনি বৃহস্পতিবারের ঘটনাসহ সাম্প্রতি এ ধরনের দুর্ঘটনায় খুব ব্যথিত জানিয়ে বলেন, এটা এখন প্রতিরোধের সময় এসেছে। পরিবারসহ আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের এজন্য এগিয়ে আসতে হবে।
এ বিষয়ে উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) তানভীর আরাফাত বলেন, বেপরোয়া গতির মোটর সাইকেল চালনা ঠেকাতে ট্রাফিক পুলিশ বেশ কঠোর অবস্থানে রয়েছে। এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। গত তিনদিনে বেশ কয়েকটি মোটর সাইকেল আটক করা হয়েছে। ট্রাফিক পুলিশের সামনে পড়লে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT