ফ্লেক্সিলোড বাকিতে না দেওয়ায় যুবকের বিরুদ্ধে মামলা ! ফ্লেক্সিলোড বাকিতে না দেওয়ায় যুবকের বিরুদ্ধে মামলা ! - ajkerparibartan.com
ফ্লেক্সিলোড বাকিতে না দেওয়ায় যুবকের বিরুদ্ধে মামলা !

3:30 pm , May 18, 2022

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ স্ত্রীর জন্য ১৫ টাকা ফ্লেক্সিলোড করতে দোকানে গিয়েছিলো মিথুন নামে এক প্রতারক। বাকীতে ফ্লেক্সিলোড না দেয়ায় দোকানদারকে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে উল্টো তাকে ফাঁসানোর জন্য ইতিমধ্যে আদালতে মামলাও করেছে সে। নাটকীয় মামলায় হয়রানির শিকার ওই যুবকের নাম তামিম মাহমুদ। নগরীর উত্তর আমানতগঞ্জ দালানওয়ালা বাড়ির বাসিন্দা নিরব শিকদারের ছেলে সে। মাহমুদ ওই এলাকায় দীর্ঘবছর দোকান করছেন। দোকান দেওয়ার শুরু থেকে তার কাছে চাঁদা দাবি করে আসছে স্থানীয় বাসিন্দা মিথুন। ওই এলাকার মৃত মোশাররফের ছেলে সে। তার দাবিকৃত চাঁদার টাকা না দেওয়ার কারণে প্রায়শই মাহমুদকে হুমকি-ধামকি দিতো। সম্প্রতি মাহমুদকে ফাঁসানোর জন্য একটি ভুয়া ফেইসবুক আইডি খুলে কিছু মনগড়া কথা লিখে সে। এলাকায় ফেসবুক আইডি দোকান মালিক মাহমুদের বলে চাউর করে। ফেসবুক আইডির মিথ্যা অপবাদ দিয়ে ইতিমধ্যে সে নাটকীয় মামলাও দায়ের করেছে। এ বিষয়ে কথা হলে সাহাদ-সাহানা ভ্যারাইটিজ স্টোরের স্বত্বাধিকারী তামিম মাহমুদ বলেন, দোকান দেওয়ার শুরু থেকে আমার কাছ থেকে মোবাইলে ফ্লেক্সিলোডের টাকাও বাকি নিতো মিথুন। বাকী টাকা ফেরত চাইলে টালবাহানা করতো সে। এক সময় আমি তার কাছে বাকিতে কোনো পন্য সামগ্রিই বিক্রি করবো না বলে জানাই। এক পর্যায়ে সে দোকানে আসা বন্ধ করে দেয়। সম্প্রতি স্ত্রী’র জন্য ১৫ টাকা ফ্লেক্সিলোড করতে দোকানে আসে সে। এ সময় ফ্লেক্সিলোডের টাকা বাকি থাকবে বলেও জানায়। বাকিতে ফ্লেক্সিলোড দিতে অস্বীকৃতি জানালে সে ক্ষিপ্ত হয়ে পরবর্তীতে দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়। তার কিছু দিন পরে জানতে পারি, সুমি সিকদার নামে একটি ভুয়া ফেসবুক আইডি খুলে কিছু মনগড়া কথা লিখে সে। আর এই ফেবু আইডি আমার স্ত্রী’র বলে এলাকায় চাউর করে । কিন্তু আমার স্ত্রী’র নাম সোনিয়া আক্তার। আমার স্ত্রী’র নামে কোনো আইডি নেই। তাছাড়া ওই ফেসবুক আইডিতে প্রথমে সে আমার ছবি পোস্ট করে। একপর্যায়ে তার নিজের ছবি পোস্ট করে। আর ফেসবুক আইডির মিথ্যা অপবাদ দিয়ে আমার কাছে প্রায়ই চাঁদাবাজী করতে আসে। এমনকি দাবীকৃত চাঁদার টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে আমার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করবে বলে হুমকি দেয়। আমার ছবি পোস্ট করে প্রমাণ করতে চাইছে এটা আমার আইডি। অনুমতি ছাড়া ওই ভুয়া আইডিতে কেন আমার ছবি পোস্ট করা হয়েছে, সে জন্য মিথুনের বিরুদ্ধে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।” দোকান মালিকের বাবা নিরব শিকদার বলেন, “এলাকার মানুষকে বিভিন্ন মামলায় ফাঁসিয়ে তাদের কাছ থেকে টাকা-পয়সা হাতিয়ে নেয় মিথুন। তাছাড়া এলাকায় কারও সঙ্গে ঝগড়া হলে সে মামলা করতে উস্কানীমূলক পরামর্শ দেয়। একপর্যায়ে মামলা দায়েরের পর বাদি-বিবাদি উভয়ের কাছে থেকে টাকা হাতিয়ে নেয় সে। আর এসব ধান্দাবাজির টাকা দিয়ে মিথুনের সংসার চলে। মিথুন আমাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচারে লিপ্ত হয়ে অন্যায় করেছে। আমরা মিথুনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিয়েছি। “ তবে এ ঘটনায় জহিরুল ইসলাম মিথুনের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। অন্যদিকে পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশনের সাব-ইন্সপেক্টর আলমগীর হোসেন বলেন, “ মামলার ঘটনায় তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে। তদন্ত প্রতিবেদনে মাহমুদের বিরুদ্ধে দোষ প্রমাণিত না হলে আদালত অবশ্যই সেই মামলা খারিজ করে দিবে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT