বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় জমজমাট প্লট বাণিজ্য ॥ ধ্বংস হচ্ছে কৃষি জমি বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় জমজমাট প্লট বাণিজ্য ॥ ধ্বংস হচ্ছে কৃষি জমি - ajkerparibartan.com
বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় জমজমাট প্লট বাণিজ্য ॥ ধ্বংস হচ্ছে কৃষি জমি

3:13 pm , May 17, 2022

বিশেষ প্রতিবেদক ॥ ১০০ একরেরও বেশি জমিতে প্লট বিক্রির সাইনবোর্ড ঝুলছে চরকাউয়া ইউনিয়নের কর্ণকাঠী এলাকায়। বালু ফেলে ভরাট হচ্ছে নীচু ধান ক্ষেত আর এরফলে ধ্বংস হচ্ছে কৃষিজমি। ফলে কমছে ফসলের আবাদ। বেকার হওয়ার সম্ভাবনা হাজার হাজার কৃষকের। আশঙ্কা রয়েছে পরিবেশ বিপর্যয়েরও। হারিয়ে যাচ্ছে মুক্ত জলাশয়ের বিভিন্ন প্রজাতির দেশীও মাছ ও জলজ উদ্ভিদ। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় হবার পর থেকে গ্রীণল্যান্ড, গ্রীণডেল্টা, অগ্রগতি ও অগ্রযাত্রাসহ প্রায় ২৫টি নামে বেনামে কৃষি জমি দখল করে প্লট বিক্রির প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে এ অঞ্চলে। যার কারণে খাদ্য ভান্ডারখ্যাত বরিশাল তার জৌলুস হারাচ্ছে। অথচ প্রশাসনের নাকের ডগায় এই প্লট বিক্রি চললেও তারা তা না দেখার ভান করছেন বলে অভিযোগ স্থানীয় কৃষকদের। তবে প্রশাসনের এতে কিছুই করার নেই বলে জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ সরকার সংশ্লিষ্ট অনেকে।
কর্ণকাঠীর তালুকদার মার্কেট এলাকাবাসীর অভিযোগ অগ্রযাত্রা নামের একটি প্রতিষ্ঠান এ অঞ্চলের প্রায় সব কৃষককে বায়না দিয়ে জমি কওলা করে নিয়েছে। এখনো পুরো দাম পরিশোধ করেনি। প্লট বিক্রি হলে তবেই টাকা পরিশোধ হবে এমন শর্তে বায়না করা হয়েছে। আবার কেউ কেউ বলছেন অগ্রযাত্রা টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটের আড়ালেই চলছে এই ভূমি বাণিজ্য। এই টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট এর মাধ্যমেই এ অঞ্চলের সব কৃষি জমি কিনে নিয়ে প্লট বাণিজ্য চালাচ্ছে এরা। এদের বালু ভরাট করার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে আশেপাশের কৃষি জমিও। ফলে অনিচ্ছা সত্ত্বেও জমি বিক্রি করে দিতে হচ্ছে কৃষককে। এমনটাই দাবী কৃষক হালিম মোল্লার। এ বিষয়ে কথা বলতে ১৭ মে মঙ্গলবার দুপুরে অগ্রযাত্রা টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটে গিয়ে কাউকে পাওয়া গেলনা। কারো ফোন নম্বরও দিতে রাজী নয় দারোয়ান। চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম ছবি জানালেন, এ বিষয়ে আমি কিছুই জানিনা। ভূমি কর্মকর্তার সাথে কথা বলুন। তবে স্থানীয় মেম্বার মজিবর রহমান লিচু জানালেন, অগ্রযাত্রা টেকনিক্যাল নামের বিশ্ববিদ্যালয় পাড়ার বাসিন্দা সোহাগ হাওলাদার এসব জমি কিনে নিছেন। এ জেলার মানুষ বেচে আর অন্য জেলার মানুষ আইসা কেনে। মাঝখানে ভূমি অফিসের লাভ। যত জমি বিক্রি হইবো হেরা তত টাকা পাইবো। আপনার জমি আপনি বিক্রি করলে আমাগো কি বলার আছে, বলেন? আসলেও তাই। আমার জমি আমি বিক্রি করলে কে কি বলবে? আর এখানেই বন্দি আমাাদের প্রশাসন বললেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মনিরুজ্জামান। তিনি বলেন, কৃষি বিভাগের সাথে কথা বলে দেখুন কি বলেন তারা।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT