সাংগঠনিক ঝুঁকিতে বরিশালের ১৯ বিদ্রোহীসহ প্রভাবশালীরা সাংগঠনিক ঝুঁকিতে বরিশালের ১৯ বিদ্রোহীসহ প্রভাবশালীরা - ajkerparibartan.com
সাংগঠনিক ঝুঁকিতে বরিশালের ১৯ বিদ্রোহীসহ প্রভাবশালীরা

3:00 pm , May 11, 2022

আওয়ামী লীগের সম্পাদকম-লীর বৈঠক

আরিফ আহমেদ, বিশেষ প্রতিবেদক ॥ আওয়ামী লীগের সম্পাদকম-লীর বৈঠকের সিদ্ধান্তনুযায়ী সাংগঠনিক ঝুঁকিতে থেকে যাচ্ছেন ইউপি নির্বাচনে বরিশালের ১৯ বিদ্রোহীসহ বিদ্রোহী প্রার্থী ও তাদের মদদদাতারা। এ ঝুঁকিতে রয়েছেন বেশ কয়েকজন এমপি, মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীও। গত ৭ মে শনিবার অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের সম্পাদকম-লীর বৈঠকে সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে যেন দলের একক প্রার্থী থাকে সেভাবে চেষ্টা করতে হবে। যদি কেউ বিদ্রোহী প্রার্থী হয় তাহলে তাদের ছাড় দেওয়া হবে না। এছাড়াও বিদ্রোহী প্রার্থীদের মদদদাতাদের কারণ দর্শানোর নোটিশ (শোকজ) দেবে আওয়ামী লীগ। আগামী নির্বাচনগুলোতে বিদ্রোহী প্রার্থী ঠেকাতে এবং দলের অভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলা ফেরাতে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে দলটি। পাশাপাশি বিদ্রোহী প্রার্থীদের ভবিষ্যতে দলের গুরুত্বপূর্ণ কোনো পদে রাখা হবে না এবং নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নও দেওয়া হবে না। শনিবার দলের সম্পাদকম-লীর সভায় এ বিষয়ে আলোচনা হয়েছে বলে জানান আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন। তিনি আরো জানান, একই সঙ্গে সভায় ভুঁইফোড় সংগঠন এবং নির্বাচন কমিশন গঠনের বিষয়েও আলোচনা হয়েছে। সভায় দলের সম্পাদকম-লীর সদস্যরা আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিনের কর্মসূচিও ঠিক করেছেন বলে জানা গেছে। শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সভাপতিত্বে সভা শুরু হয়। শুরুতেই সূচনা বক্তব্য রাখেন ওবায়দুল কাদের। পরে শুরু হয় রুদ্ধদ্বার বৈঠক। প্রতিমাসে দলের বিষয়ভিত্তিক সম্পাদকদের নিয়ে অন্তত একটি সভা করা আওয়ামী লীগের রীতি। করোনার কারণে কিছুদিন এই আয়োজন নিয়মিত ছিল না। শনিবারের সভার বিষয়ে বরিশাল বিভাগের দায়িত্ব প্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক বাহাউদ্দীন নাসিম, আফজাল হোসেনসহ কেন্দ্রীয় গুরুত্বপূর্ণ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। তারা জানান, সভার শুরুতেই ভুঁইফোড় সংগঠন নিয়ে আলাপ হয়। একপর্যায়ে সিদ্ধান্ত হয় ভুঁইফোড় সংগঠনে দলের নেতারা যেতে পারবে না। এইসব সংগঠনকে দলীয় কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠানও করতে দেওয়া হবে না। সভায় বক্তারা বলেন, ‘লীগ’ ও ‘আওয়ামী’ শব্দ যোগ করে প্রতিনিয়ত সংগঠন গজিয়ে উঠছে। রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ স্থানে তারা অফিস নিয়ে দলের নাম ভাঙিয়ে যাচ্ছে। সচিবালয়েও তাদের অবাধ বিচরণ। এসব বন্ধ না করলে আওয়ামী লীগের ইমেজ নষ্ট হবে। সম্প্রতি ভুঁইফোড় সংগঠনের বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর পরও থামছে না এইসব সংগঠনের তৎপরতা। এদিকে গতবছর ২১ জুন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বরিশালে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর বিরুদ্ধে অপপ্রচার ও নৌকার বিপক্ষে কাজ করায় দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে বিদ্রোহী প্রার্থীসহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের ১৯ জনকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট তালুকদার মো. ইউনুসের স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তাদের নোটিশও দেয়া হয়। এতে বলা হয়, ২১ জুন-২০২১ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনার সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে হিজলা, মুলাদী, বানারীপাড়া, বাকেরগঞ্জ, বরিশাল সদর ও বাবুগঞ্জ উপজেলায় যে সকল ইউনিয়নে দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসাবে নিবার্চন করছেন। উক্ত উপজেলা কমিটিসমুহের সুপারিশক্রমে হিজলা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক প-িত সাহাবুদ্দিন আহম্মেদ, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ফারুক সরদার, সাংগঠনিক সম্পাদক মাস্টার নাসির উদ্দিন হাওলাদার ও হরিনাথপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তৌফিকুর রহমান সিকদার, মুলাদী উপজেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মো. সিরাজুল ইসলাম মুন্সি, সদস্য মজিবুর রহমান শরিফ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা ইঞ্জিয়ার ইউসুফ আলী, বানারীপাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি তাজেম আলী হাওলাদার, বরিশাল সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ কাশিপুর ইউনিয়নের সভাপতি নুরুল ইসলাম ও চরবাড়ীয়া ইউনিয়নের সভাপতি শহিদুল ইসলাম (ইতালী শহিদ), বাকেরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা, জেলা কৃষক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনায়েত হোসেন পান্না, দাঁড়িয়াল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বাছের আহম্মদ বাচ্চু, গারুড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনউদ্দিন তালুকদার মিন্টু, কলসকাঠী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুস সালাম তালুকদারকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়।
এছাড়া বাবুগঞ্জ উপজেলার ১নং জাহাঙ্গীর নগর ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থীকে সমর্থন দিয়ে প্রত্যক্ষভাবে নৌকার প্রার্থীর বিরোধিতা করায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম মীর, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদুল ইসলাম, আওয়ামীলীগ নেতা মনির খান, ইসমাইল বেপারী ও একই ইউনিয়নের স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আ. রব বেপারীকে দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে নিবার্চনে অংশগ্রহণ করায় এবং নৌকার বিপক্ষের প্রার্থীকে সমর্থন করায় সংগঠন বিরোধী কার্যকলাপে লিপ্ত থাকায় এবং দলীয় শৃংখলা ভঙ্গের অভিযোগে তাদেরকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বরিশাল জেলা কমিটি তাদের স্ব-স্ব পদ থেকে সাময?িক ভাবে বহিষ্কার করে। পরবর্তীতে সদর উপজেলার চাঁদপুরা ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত বিদ্রোহী প্রার্থী জাহিদ খানসহ আরো কয়েকজনকেও শোকজ করা হয়। আওয়ামী লীগের সম্পাদকম-লীর সিদ্ধান্তে এই নেতারা এখন কঠিন পরীক্ষার মুখে বলে মনে করেন বরিশালের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের সম্পাদকম-লীর সভায় গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি জানান, সহযোগী সংগঠন মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলা লীগ এবং ছাত্র লীগের সম্মেলন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে এ বিষয়ে দলের সভাপতি তারিখ নির্ধারণ করবেন বলে জানান তিনি। মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু এভিনিউর দলীয় কার্যালয়ে এক সভা শেষে এসব তথ্য জানান ওবায়দুল কাদের। এ সময় তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগের আসন্ন সম্মেলন উপলক্ষ্যে দলের গঠনতন্ত্র ও ঘোষণাপত্র সংশোধনের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ড? সেলিম মাহমুদকে। ২৩ জুন দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড? হাসান মাহমুদকে। সম্মেলন উপলক্ষ্যে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতাদের তথ্য হালনাগাদ করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়াকে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT